fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

যুগশঙ্খ খবরের জেরে অনাহারে থাকা শিমুরালির আদিবাসীদের পাশে দাঁড়ালেন সমাজসেবী সৌমিত্র ভট্টাচার্য

অভিষেক আচার্য, কল্যাণী: যুগশঙ্খ খবরের জেরে অনাহারে থাকা শিমুরালি অঞ্চলের আদিবাসীদের পাশে দাঁড়াল চাকদার ‘করোনা ভলান্টিয়ারস’-র প্রধান উদ্যোক্তা সৌমিত্র ভট্টাচার্য। আদিবাসী ২৫ টি পরিবারের হাতে তুলে দিলেন খাদ্যসামগ্রী।

যুগশঙ্খ পত্রিকার ওয়েব পোর্টালে ‘দুদিনেই শেষ সরকারের দু কেজি চাল। অনাহারে দিন কাটাচ্ছেন শিমুরালির আদিবাসীরা’ এই শিরোনামে একটি খবর প্রকাশিত হয়। সেই খবর পেয়ে সৌমিত্র ভট্টাচার্য যোগাযোগ করেন আমাদের সাথে। ফোন করে তিনি জানান, তিনি আদিবাসী পরিবারদের পাশে দাঁড়াবেন। সেই মত এদিন চাকদা ব্লকের তাঁতিগাছি সর্দারপাড়ার ২৫টি পরিবারের হাতে খাদ্যসামগ্রী, মাস্ক ও স্যানিটাইজার তুলে দেওয়া হয়। এ বিষয়ে সৌমিত্রবাবু বলেন, যুগশঙ্খ পত্রিকাকে অজস্র ধন্যবাদ। তারা এই আদিবাসী পরিবারদের পরিস্থিতি আমাদের সামনে তুলে ধরেছে। এই আদিবাসী ভাইবোনদের পরিস্থিতি দেখে আমি হতবাক। অনাহারে থাকতেন এঁরা। তাই এদের হাতে খাদ্য সামগ্রী তুলে দেওয়া হয়েছে। দেওয়া হয়েছে মাস্ক ও স্যানিটাইজার। পরবর্তী সময়ে এদের পাশে আবার দাঁড়াবেন বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি।

আরও পড়ুন: করোনার থাবা, প্রয়াত কংগ্রেসের হেভিওয়েট নেতা

পাশাপাশি যুগশঙ্খ ওয়েব পোর্টালে খবর দেখে এদের পাশে দাঁড়িয়েছেন কলকাতার বাসিন্দা অতনু মিশ্র। তিনি ওই আদিবাসী পরিবারদের জন্য পাঠিয়েছেন অর্থ। সেই অর্থ দিয়ে খাদ্যসামগ্রী কিনে তুলে দেওয়া হয়েছে তাঁদের হাতে।
খাদ্যসামগ্রী পেয়ে খুশি অজানা আশঙ্কায় থাকা ১০ বছরের রোহিত সর্দারও। সে জানায়, এবার কদিন আর শুকনো ভাত খেতে হবে না। সৌমিত্র দাদা আমাদের খাবার দিয়েছে। তাতে আমাদের কিছুদিন শুকনো ভাত খেতে হবে না।
খুশি তাঁতীগাছী সর্দার পাড়ার আদিবাসীরা। কদিন আর শুকনো ভাত খেতে হবে না তাই ওই মূঢ় ম্লান মুখগুলো আজ খুশিতে ভরে উঠেছে।

Related Articles

Back to top button
Close