fbpx
অন্যান্যপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

টবে গাছ বসানোর জন্য মাটি প্রস্তুতি

নিজস্ব প্রতিনিধি: একান্নবর্তী পরিবারের উঠোন আজ হয়েছে ফ্ল্যাটের একফালি বারান্দা। তাই জমি সহ বাড়িতে যেভাবে বাগান করা হত আজ তা পাল্টে গেছে। আজ ওই একফালি বারান্দাতেই বসেছে টবের সারি। তৈরি হচ্ছে অসংখ্য ফুল, ফল, সবজি।
এক শহুরে পাঠিকা জানতে চেয়েছেন নার্সারি থেকে উন্নতমানের চারা কিনে এনে বসানোর পরেও আশানুরূপ ফল পাচ্ছেন না। ঠিক কী কারণে এটা হচ্ছে এবং কী করলে তিনি ভালো ফল পাবেন।

তাঁর দ্বিতীয় প্রশ্ন ছিল বাড়িতে নিমকীটনাশক কেমন ভাবে তৈরি করা যায়? পাঠিকার জন্য রইল যুগশঙ্খের তরফ থেকে কিছু টিপস। নার্সারি থেকে চারা কিনে এনে সঙ্গে সঙ্গেই টবে তা রোপণ করবেন না। ২-৩ দিন খোলা জায়গায় নর্মাল টেম্পারেচারে রেখে দেবেন। কারণ নার্সারির পরিবেশ আর বাড়ির পরিবেশ আলাদা। টবে যে মাটি ব্যবহার করছেন তা সঠিকভাবে প্রস্তুত হচ্ছে কিনা সেদিকে নজর রাখবেন। টবে গাছ বসানোর ক্ষেত্রে মাটি প্রস্তুত করার কিছু নিয়ম বিধি মানলে ভালো ফলন হবে।

       আরও পড়ুন: লকডাউনের জেরে সংকটে উত্তর দিনাজপুর জেলার আনারস চাষিরা

আপনার বাড়িতে যে মাটি আছে তা এক জায়গায় জড়ো করে শক্ত কিছু দিয়ে বাড়ি দিয়ে গুড়ো করে নিন। এরপর বালি চালার চালনি দিয়ে মাটিটা চেলে নিন। এতে একদম ঝুরঝুরে মাটি পাবেন। এরপর এই ঝুরঝুরে মাটিতে দিতে হবে সার। মূলত জৈব সারই দিতে হবে। তবে গাছের শিকড়ের সঠিক বৃদ্ধির জন্য সুপার ফসফেট রাসায়নিক সার দিলে ভালো ফল পাওয়া যায়। মোটামুটি দুটি টবের জন্য যে মাটি আপনি তৈরি করবেন তাতে ৫০০ গ্রাম মতো ডিকম্পোস্ট গোবর সার মেশাতে হবে।

               আরও পড়ুন: সর্বরোগহরা ড্রাগন ফল চাষে সফল খেজুরির দেবাশীষ

এছাড়া দু চামচ সুপার ফসফেট ও গোবর সারের সম পরিমাণ সাদাবালি মেশাতে হবে। এতে টবের অতিরিক্ত জল বেরিয়ে যাবে। জলনিকাশী ব্যবস্থা সঠিক না হলে গাছের গোড়াপচা রোগ দেখা দেবে। ওই মাটিতে আরও যে সব সার দিতে হবে তা হল ভার্মিকম্পোস্ট ৫০০ গ্রাম, নিমখোল ৪ চামচ, সিংকুচি ২ চামচ, কাঠের ছাই ৪ চামচ, সরষে খোল ৪ চামচ, হাড়ের গুঁড়ো ৪ চামচ এবং খড়িমাটি (অপশনাল) ১ চামচ।

খড়িমাটি গাছের ক্যালসিয়ামের অভাব মেটায় এবং ফাঙ্গাস রোধ করে। এইভাবে মাটি তৈরি করে সব ধরনের গাছ বসালে আপনি আশানুরূপ ফল পাবেন আশা করি। এবার বলি কেমন ভাবে তৈরি করবেন নিমকীটনাশক। এই কীটনাশক তৈরি করার
জন্য পরিমাণ মতো নিমপাতা নিতে হবে। একটি পাত্রে শুধু নিমের পাতা নিয়ে তাতে প্রায় হাফ লিটার মতো জল দিয়ে তা ফোটাতে বসাতে হবে। জল গরম হতে শুরু করলে একটি চামচ দিয়ে ক্রমাগত নাড়তে থাকুন। এরপর জল ফুটে গেলে মিনিট
পাঁচেক কম আঁচে ক্রমাগত নেড়ে নামিয়ে ঢেকে একদিন রেখে দিন। একদিন পর ওই জল ছাকনি দিয়ে ছেকে নিতে হবে। প্লাস্টিকের বোতলে ওই জল ভরে শীতল জায়গায় রেখে দিন।

 

যখন এটি গাছে প্রয়োগ করবেন তখন প্লাস্টিকের বোতল থেকে স্প্রেয়ার ঢেলে নিতে হবে। ২০০ মিলি মতো নিমকীটনাশকে একফোঁটা হ্যান্ডওয়াশ কিংবা সামান্য সাবানের গুঁড়ো দিয়ে ভালোভাবে মিশিয়ে গাছে প্রয়োগ করুন।

Related Articles

Back to top button
Close