fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

তৃণমূলের প্রাথমিক শিক্ষক সংগঠনের কোচবিহার জেলা কনভেনশনে হাতেগোনা উপস্থিতি, শুরু গুঞ্জন

নিজস্ব সংবাদদাতা, দিনহাটা: বিধানসভা ভোটের আগে তৃণমূলের প্রাথমিক শিক্ষক সংগঠনের কোচবিহার জেলা কনভেনশনে হাতেগোনা সদস্যসংখ্যা উপস্থিত থাকায় সংগঠনের অন্দরে গুঞ্জন শুরু হল। আগামী বিধানসভা নির্বাচনকে লক্ষ্য রেখেই দলের পাশাপাশি প্রাথমিক শিক্ষক সংগঠনকে শক্তিশালী করে তুলতে জেলা কনভেনশন অনুষ্ঠিত হল। সোমবার শহরের মহারাজা নৃপেন্দ্র নারায়ন স্মৃতি সদনে এই কনভেনশনে রাজ্য ও জেলা নেতৃত্তের পাশাপাশি উপস্থিত ছিলেন তৃণমূলের জেলা সভাপতি থেকে শুরু করে দিনহাটা সিতাই এর বিধায়করা। তার সত্বেও সদস্য সংখ্যা অনেকটাই কম থাকায় কনভেনশন কে নিয়ে কটাক্ষ করেন বিরোধীরা। প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মধ্য দিয়ে কনভেনশনের উদ্বোধন করেন তৃণমূল প্রাথমিক শিক্ষক সংগঠনের রাজ্য সভাপতি অশোক রুদ্র। উপস্থিত ছিলেন তৃণমূলের কোচবিহার জেলা সভাপতি পার্থপ্রতিম রায়, বিধায়ক উদয়ন গুহ, জগদীশচন্দ্র বর্মা বসুনিয়া প্রমুখ।

এদিনের এই কনভেনশনে আগামী ২০২১ এর নির্বাচনের দিকে লক্ষ্য রেখে প্রাথমিক শিক্ষক সংগঠন কে আরো শক্তিশালী করার কথা বলেন নেতৃত্ব। জানা গেছে, দিনহাটায় অনুষ্ঠিত সংগঠনের জেলা কনভেনশনে সদনের অধিকাংশ আসনই ফাঁকা থাকায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে কার্যত ক্ষোভ প্রকাশ করেন নেতৃত্ব। কনভেনশনের জন্য চিঠি দিয়ে সাংবাদিকদের আমন্ত্রণ জানান হয়। কনভেনশন শুরু হতেই সাংবাদিকদের বের করে দেওয়া হয়। এ নিয়েও সংগঠনের অন্দরে চাপা গুঞ্জন শুরু হয়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এই শর্তে সংগঠনের সদস্য শিক্ষকদের অনেকেই বলেন এভাবে আমন্ত্রণ করে সাংবাদিকদের বের করে দেওয়া উচিত হয়নি। কনভেনশনে সাংগঠনিক বিভিন্ন বিষয় ছাড়াও নিজেদের আত্মসমালোচনার নানা বিষয় উঠে আসে।

আরও পড়ুন: ফুলহারের স্রোতে ভেঙে গেল হরিশ্চন্দ্রপুর ২ ব্লকের অস্থায়ী বাঁশের সেতু, সমস্যায় এলাকাবাসী

বিজেপির শিক্ষক সংগঠন বঙ্গীয় নববর্ষ প্রাথমিক শিক্ষক সংঘের নেতা ধর্মেন্দ্র সিংহ বলেন, “সমস্ত ভাল কাজই হয় খোলামেলা ভাবে। সেখানে কনভেনশনের নামে রুদ্ধদ্বারের প্রয়োজন হয়না। শিক্ষাক্ষেত্রে থেকে শুরু করে বিভিন্ন ক্ষেত্রেই দুর্নীতিতে ডুবে গেছে এই সরকার। কনভেনশনেও নানা দুর্নীতির বিষয়ে উঠে আসে বলে তারা জানতে পেরেছেন। তাই সাংবাদিকদের আমন্ত্রণ জানানো সত্ত্বেও বের করে দিয়ে কার্যত গণতন্ত্রের উপর আঘাত নামিয়ে আনা হয়। এদিনের এই কনভেনশনে যে শিক্ষকরা ছিলেন তারাও মন থেকে ছিলেন না। যারা ছিলেন তারাও কেউ ভয়ে কেউ ভিত্তিতে সেখানে ছিলেন বলেও তার অভিযোগ।”

তৃণমূল প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির রাজ্য কমিটির সদস্য দিনহাটা মহকুমা সভাপতি সুব্রত নাহা বলেন, “এদিনের এই কনভেনশনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাতকে আরও শক্তিশালী করে তুলতে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী অনেক অধিকার আমাদের দিয়েছে। কিন্তু কিছু কিছু ক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে যে কোন কারনেই হোক তা নানাভাবে বাধাপ্রাপ্ত হচ্ছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্যোগকে কালিমালিপ্ত করার জন্য কিছু প্রয়াস চলছে। সেসব বিভিন্ন বিষয় এদিন তারা রাজ্য নেতৃত্বের কাছে তুলে ধরেন। কনভেনশনে আত্মসমালোচনার কিছু বিষয় থাকে। পরবর্তী সময় সেই সিদ্ধান্তটা সাংবাদিকদের কাছে জানানোর জন্যই আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। তবে ভুল বোঝাবুঝির জন্য তাদেরকে বাইরে যেতে বলা হয়।

Related Articles

Back to top button
Close