fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

অটল টানেলে সোনিয়া গান্ধীর শিলান্যাশ করা ফলক উধাও, থানায় কংগ্রেস

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: অটল টানেলে সোনিয়া গান্ধীর শিলান্যাশ করা ফলক উধাও। রাগে থানায় ছুটল কংগ্রেস। এই অটল টানেল মানালি থেকে লাহৌল-স্পিতিকে জুড়েছে। এই টানেল তৈরি হওয়ায় লাদাখ যাওয়ার সময় আরও ৫ ঘণ্টা কমেছে। ৩ অক্টোবর সেই অটল সুড়ঙ্গের উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সুড়ঙ্গটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছিলেন সোনিয়া গান্ধী। এরমধ্যে সুড়ঙ্গ থেকে সোনিয়া গান্ধীর নাম লেখা ফলক উধাও হয়ে যায়। আর এতেই বেজায় চটেছে কংগ্রেস।

লাহৌল-স্পিতি জেলার কংগ্রেস সভাপতি ঝালছন ঠাকুর ২৮ জুন ২০১০ এ ইউপিএ সভাপতি সোনিয়া গান্ধীর তরফ থেকে রোহতাং টানেলের নামে শিলন্যাস করা ফলক উধাও হওয়ার কারণে কি-লং থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে। এর আগে বিরোধী নেতা মুকেশ অগ্নিহোত্রী এই মামলায় সরব হয়েছিলেন।

[আরও পড়ুন- কম দৈনিক সংক্রমণ, করোনায় মৃতের সংখ্যাও কমল]

২০১০ সালের ২৮ জুন মানালির ধুন্দিতে সুড়ঙ্গের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী। এই সুড়ঙ্গ উদ্বোধনে এসে নাম না করে পূর্ববর্তী কংগ্রেস সরকারকে একহাত নেন মোদি। বলেন, কংগ্রেস যখন ক্ষমতায় ছিল, তখন দেশের প্রতিরক্ষা ক্ষেত্র অবহেলিত হয়েছে। এই সুড়ঙ্গ তৈরির সিদ্ধান্ত নেয় অটলবিহারী বাজপেয়ীর সরকার। ২০০০ সালের ৩ জুন। ২০১৯ সালে তাই সুড়ঙ্গের নাম অটলবিহারীর নামে রাখার সিদ্ধান্ত নেয় মোদি সরকার। ৩০০০ মিটার (‌১০ হাজার ফিট)‌ উচ্চতায় তৈরি এই সুড়ঙ্গের দৈর্ঘ্য ৯.‌২ কিলোমিটার।

লাহৌল-স্পিতির মহিলা কংগ্রেস সভাপতি শশি কিরণ বলেন, সোনিয়া গান্ধীর ফলক উধাও হয়ে যাওয়া নিন্দনীয়। মানালি ব্লক কংগ্রেসের সভাপতি হরিচন্দ্র শর্মা বলেন, উদ্বোধনের দিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি নিজের ভাষণে শুধু একটি দল পর্যন্তই সীমিত ছিলেন, কিন্তু তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের সময় বাজেট বরাদ্দ করে তৎকালীন ইউপিএ সভাপতি সোনিয়া গান্ধী এই সুড়ঙ্গের শিলন্যাস করেছিলেন।

 

Related Articles

Back to top button
Close