fbpx
আন্তর্জাতিকক্রিকেটখেলাগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

স্টেডিয়ামে থেকেও পুরস্কার দিতে পারছেন না সৌরভ -মামনরা

তাজ উদ্দিন: অনেক হ্যাপা সামলে করোনাকালে শেষ পর্যন্ত শুরু হয়েছে আইপিএল। এ পর্যন্ত সবগুলো ম্যাচই জমজমাট হয়েছে। দর্শকরা স্টেডিয়ামে থাকলে অবশ্যই বলতেন ‘পয়সা উশুল ম্যাচ’। কিন্তু এবার যে কোভিড১৯ প্রোটোকলের জেরে দর্শকদের প্রবেশাধিকার নেই। খেলা উপভোগের সুযোগ কেবল টেলিভিশনেই। স্টেডিয়ামে খেলা পরিচালনার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিরা, প্রতিদ্বন্দ্বী দুই দলের খেলোয়াড়, টিম ম্যানেজমেন্ট এবং খেলোয়াড় পরিবারের দু-একজন সদস্য থাকলে তারাই হাজির হন। এছাড়া দেখা গেছে আইপিএল এবং ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের কয়েকজন কর্মকর্তাকে। কিন্তু ম্যাচ শেষে পুরস্কার বিতরণ পর্বে দেখা যাচ্ছে সংশ্লিষ্ট বিজয়ী ক্রিকেটার তাঁর জেতা পুরস্কার এবং প্রতীকী চেক নিয়ে মঞ্চে এসে ভাষ্যকার বা প্রেজেন্টারের প্রশ্নের জবাব দিচ্ছেন। কিন্তু স্টেডিয়ামে বোর্ড কর্তারা উপস্থিত থেকেও কেন পুরস্কার তুলে দিচ্ছেন না?

আবুধাবিতে ১৯ সেপ্টেম্বর আইপিএলের উদ্বোধনী ম্যাচে স্টেডিয়ামে ছিলেন খোদ বোর্ড সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলি। তাঁর পাশে দেখা গেছে সচিব জয় শাহ, কোষাধ্যক্ষ অরুণ ধুমল, আইপিএল চেয়ারম্যান ব্রিজেশ প্যাটেল এবং বোর্ডের গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য খয়রুল জামাল মজুমদার ওরফে মামন। তাঁরা খেলা দেখার পাশাপাশি নিজেদের মধ্যে খোশগল্পে ব্যস্ত ছিলেন। একই দৃশ্য দেখা গেছে দুবাই এবং শারজা স্টেডিয়ামেও। যেহেতু পুরো স্টেডিয়াম বায়ো বাবলের মধ্যে রয়েছে তাহলে খেলোয়াড়দের হাতে কেন সরাসরি পুরস্কার তুলে দেওয়া হচ্ছে না? এই বায়ো বাবলের মধ্যেও আলাদা আলাদা ভাগ রয়েছে বলে এই প্রতিবেদককে জানালেন মামন মজুমদার।

আরও পড়ুন:টেস্টিং-ট্রেসিং-ট্রিটমেন্টে জোর, সাত রাজ্যকে সতর্ক করলেন প্রধানমন্ত্রী

ফ্র্যাঞ্চাইজি টিমগুলির জন্য যে জৈব সুরক্ষা বলয় তৈরি করা হয়েছে, সেখানে কর্মকর্তাদের প্রবেশে বাধা রয়েছে। আবার কর্মকর্তাদেরও মরুদেশে চলাফেরা করার জন্য নির্দিষ্ট একটা গণ্ডি দেওয়া রয়েছে। প্রত্যেকের শরীরে যুক্ত রয়েছে আলাদা আলাদা চিপ। নিজের চলাফেরার গণ্ডি ভাঙলেই সিগন্যাল পৌঁছে যাবে কন্ট্রোল রুমে। এই হল আসল কথা।

যদি কোনও খেলোয়াড় এই সুরক্ষা বলয় ভাঙেন, তাহলে সংশ্লিষ্ট ফ্র্যাঞ্চাইজিকে এক কোটি টাকা জরিমানা করা হবে বলে জানিয়ে দিয়েছেন আইপিএল কর্তৃপক্ষ। সত্যিই, জীবনের বৃত্তটা আরও ছোট ছোট বৃত্তে ভাগ করে দিয়েছে এই করোনা মহামারী।

Related Articles

Back to top button
Close