fbpx
হেডলাইন

তৃণমূল নেত্রীকে ‘জোকার’ বলে কটাক্ষ করলেন রাজ্য বিজেপি সহ সভাপতি রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়

প্রদীপ চট্টোপাধ্যায়, বর্ধমান: পশ্চিমবঙ্গ সরকার এবং মুখ্যমন্ত্রীকে তিব্র ভাষায় কটাক্ষ করলেন রাজ্য বিজেপির সহ সভাপতি রাজু বন্দ্যোপাধ্যায় । সোমবার দলীয় কর্মসূচিতে বর্ধমানে এসে তিনি বলেন, ‘এই রাজ্যে সরকার চলছেনা- সার্কাস চলছে । তার সার্কাশের জোকার হলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । তিনি শুধু বাংলার মানুষকেই হাসাচ্ছেন না , ভারতবর্ষের মানুষকেও হাসাচ্ছেন। প্রাধানমন্ত্রীর সঙ্গেও মিথ্যাচার করছেন। ’একই সঙ্গে রাজু বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন দাবি করেন , ‘আর আট মাস পরেই হবে তৃণমূলের সর্বনাশ’ ।বিজেপি নেতার এই বক্তব্যের পাল্টা কেন্দ্রের মোদি সরকারকেও কাঠগড়া তৃলেছেন তৃণমূল নেতৃত্ব ।

আসন্ন বিধানসভা ভোটকে সামনে রেখে এদিন  বর্ধমান জেলা বিজেপি পার্টি অফিসে সাংগাঠনিক বৈঠকের আয়োজন করা হয় । সেই বৈঠকে রাজ্য বিজেপি সহ সভাপতি তথা রাঢ়বঙ্গ জোন পর্যবেক্ষক রাজু বন্দ্যোপাধ্যায় ,রাঢ়বঙ্গ জোন আহ্বায়ক পার্থ কুণ্ডু , রাঢ়বঙ্গ জোন বিস্তারক ধনঞ্জয় কারক ,পূর্ব বর্ধমান জেলা বিজেপি সভাপতি সন্দীপ নন্দি সহ অন্য জেলা কার্যকর্তারা উপস্থিত থাকেন ।বৈঠক স্থলে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ছেড়ে আসা প্রায় ৫ শতাধীক ব্যক্তি বিজেপিতে যোগদান করেন । রাজু বন্দ্যেপাধ্যায় তাদের হাতে বিজেপির দলীয় পতাকা তুলেদেন । সাংগাঠনিক এই বৈঠক সেরে বিজেপি নেতারা সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হন ।

সাংবাদিক বৈঠকে রাজু বন্দ্যোপাধ্যায় , মুখমন্ত্রীকে কটাক্ষ করে আরও বলেন ,‘রাজ্যে করোনা চিকিৎসা নাকি বিনা পয়সায় হচ্ছে বলে বলা হচ্ছে । অথচ করোনা চিকিৎসার জন্য যারা বেসরকারী হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছেন তারা সর্বসান্ত হয়ে যাচ্ছেন ।রাজু বাবু অভিযোগ করেন এই অবস্থার জন্য তৃণমূলের নেতারাই দায়ী । তিনি দাবি করেন রাজ্যের প্রতিটি বেসরকারী হাসপাতালের সঙ্গে যুক্ত রয়েছে তৃণমূলের নেতারা ।তারা বেসরকারী হাসপাতাল থেকে ব্যাপক ভাবে কাটমানি খায় । সেই কারণেই দিদিমনি রাজ্যের গরিব মানুষদের ‘আয়ুস্মান ভারত ’ এর মাধ্যমে চিকিৎসা পরিষেবার সুবিধা নিতে দিচ্ছেন না ।
তারজন্য দিদিমনি যাযা করার করেছেন ।

প্রধানমন্ত্রী দেশের কৃষকদের অ্যাকাউন্টে ২০০০ টাকা করে দেবার যে ব্যবস্থা করেছেন সেই প্রসঙ্গ সামনে এনেও রাজ্য বাবু মুখ্যমন্ত্রীকে কটাক্ষ করেছেন। তিনি বলেন , দুর্ভাগ্যের বিষয় প্রধানমন্ত্রী দিতে চাইলেও কৃষি প্রধান বর্ধমান সহ পশ্চিমবঙ্গের কৃষকরা সেই টাকা পাবেন না । কারণ ওই টাকা মোদিজী দিচ্ছেন বলে দিদি ভয় পেয়েছেন । বিজেপি নেতা রাজু বাবুর আরও অভিযোগ আমপানে ক্ষতিপূরণ পাওয়া নিয়ে যেমন গোটা রাজ্যে দুর্নীতি হয়েছে । তেমনি করোনা আবহে চাল বিলি নিয়েও দুর্নীতি করেছে তৃণমূল । এই সব আড়াল করতে বর্ধমান সহ রাজ্যের সর্বত্র তৃণমূল সন্ত্রাস চালাচ্ছে । আর একাংশ দলদাস পুলিশ তাদের সহযোগীতা করছে ।এতকিছুর পরেও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তৃণমূলে ভাঙন আটকাতে পারছেন না ।

রাজ্য বিজেপি সহ সভাপতি রাজু বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন দাবি করেন ,তৃণমূলের গুণ্ডারা পশ্চিমবঙ্গে সংখ্যালঘু ভাইয়েদের সবথেকে বেশী খুন করেছে । সংখ্যালঘুদের কোন উন্নয়ন এই সরকার করেনি । উল্টে সংখ্যালঘুদের গুন্ডা বদমাস তৈরি করেছে ।অন্য দিকে করোনার দোহাই দিয়ে রামমন্দিরের ভূমিপুজোর দিন রাজ্যে লকডাউন জারি করেদেওয়া হচ্ছে । তৃণমূল কংগ্রেস কংগ্রেসকে ক্রিমিনালদের দল বলে কটাক্ষ করে রাজু বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন ,এই সবকিছুর জবাব ২০২১ সালে দিয়ে দেবে বাংলার মানুষ ।

বিজেপি নেতার বক্তব্যের পাল্টা রাজ্য তৃণমূল কংগ্রেসের মুখপত্র দেবু টুডু বলেন , দেশের সবথেকে বল দুর্নীতিস্ত ও ধাপ্পাবাজ দল হল বিজেপি । ওরা শুধু সাম্প্রদায়িক-ই নয় , বাঙালি বিদ্বেষী ও দাঙ্গাবাজ । চোর , ডাকাত , ক্রিমানাল ও গুন্ডাদের সঙ্গে নিয়ে বিজেপি বাংলা লুঠ করবে ভাবছে । ২০২১ শেই রাজ্যবাসী বুঝিয়ে দেবে বাংলায় বিজেপির স্থান নেই ।

Related Articles

Back to top button
Close