fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

করোনা মোকাবিলায় রাজ্য সরকার ব্যর্থ তাই নিজেদের ব্যর্থতা ঠাকতে বিজেপির ঘাড়ে দোষ চাপাচ্ছে: রাজু ব্যানার্জী

নিজস্ব প্রতিনিধি দিনহাটা: করোনা মোকাবিলায় রাজ্য সরকার ব্যর্থ তাই নিজেদের ব্যর্থতা ঠাকতে বিজেপির ঘাড়ে দোষ চাপাচ্ছে। সোমবার বিজেপির রাজ্য সহ সভাপতি রাজু ব্যানার্জী কোচবিহারে এসে দলীয় কার্যালয়ে সাংবাদিক বৈঠক করে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধেক্ষোভ উগড়ে দিলেন। সাংবাদিক বৈঠকে স্বাস্থ্য দফতরের কেনা পিপিই কিট থেকে মাক্স সবই মুখ্যমন্ত্রীর ভাইপোর কোম্পানি বরাত পাচ্ছে বলে অভিযোগ তুললেন কোচবিহারের সাংসদ তথা বিজেপি নেতা নিশীথ প্রামানিক। দলের রাজ্য সহ সভাপতির বলা শেষ হতেই বলতে শুরু করেন সাংসদ । আর সরাসরি মুখ্যমন্ত্রীর ভাইপোর কোম্পানি মাক্স পিপিই কিট নেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন। তাঁর সাথে সুর মিলিয়ে বিজেপির রাজ্য সহ সভাপতি রাজু ব্যানার্জী বলেন, নীল সাদা রঙয়ের বরাতও কালীঘাটের ওই বাড়িতে যায়।

করোনা মোকাবিলা নিয়ে বাংলার সরকার ব্যর্থ বলে বিজেপির কেন্দ্র থেকে রাজ্য, এমনকি জেলা স্তরের নেতারাও এর আগে বারবার অভিযোগ তুলেছেন।কখনও করোনা নিয়ে তথ্য লুকানোর অভিযোগ তোলা হয়েছে, কখনো আবার পর্যাপ্ত মাক্স পিপিই কিট না থাকা, হাসপাতালে পরিকাঠামোর অভাব নিয়েও কথা বলতে শোনা গিয়েছে। উঠে এসেছে রেশন দুর্নীতির অভিযোগও।কিন্তু মাক্স, পিপিই কিট ভাইপোর কোম্পানিকে বরাত দিচ্ছে রাজ্য, এমন অভিযোগের কথা এর আগে সেভাবে কোন বিজেপি নেতার মুখ থেকে শোনা যায় নি। আর সেই কারনে ওই অভিযোগকে কেন্দ্র করে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে কোচবিহারের রাজনৈতিক মহলে।

উল্লেখ্য এক সময় তৃণমূল কংগ্রেসের যুব সংগঠনের সাথে যুক্ত ছিলেন নিশীথ বাবু। জেলার সাধারন সম্পাদক ছিলেন তিনি। তখন সে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘনিষ্ঠ বলে কোচবিহারে প্রচার ছিল। কিন্তু বিগত পঞ্চায়েত নির্বাচনে তৃণমূলে যুব’র নামে প্রার্থী দেওয়ার অভিযোগে শেষ পর্যন্ত তৃণমূল থেকে বহিষ্কৃত হন নিশীথ বাবু। এরপর বিজেপিতে যোগ দিয়ে ২০১৯ এর লোকসভা নির্বাচনে প্রার্থী হয়ে সাংসদ নির্বাচিত হন। আর তাই নিশীথ প্রামানিকের মুখ থেকে ভাইপোর নামে এমন অভিযোগ ওঠায় কোচবিহারের রাজনৈতিক মহলে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। তবে শুধু ওই অভিযোগ করেই ক্ষান্ত হন নি নিশীথ বাবু। তিনি আরও অভিযোগ করে জানান, তাঁরা দুঃস্থ মানুষের পাশে দাঁড়াতে গেলে তাঁদের পুলিশ প্রশাসন দিয়ে আটকে দেওয়া হয়েছে। এর প্রতিবাদে অবস্থান আন্দোলন করতে গেলে শাসক দল গুন্ডা এনে ঝামেলা তৈরি করার চেষ্টা করে। শুধু তাঁর ক্ষেত্রেই নয়, আলিপুরদুয়ার ও জলপাইগুড়ির সাংসদকেও একই ভাবে আটকে দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেন নিশীথ বাবু। এরপর সাংগঠনিক ভাবে বুথ স্তরে দলীয় কর্মীদের দিয়ে ত্রান দেওয়ার কাজ চালানো হয়েছে বলে দাবি করেন তিনি।

আরও পড়ুন: আমফানের ক্ষতিপূরণের টাকা তৃণমূলের পকেটে যাচ্ছে, তোপ বিজেপি নেতার

যদিও তৃণমূল কংগ্রেস বিজেপি সাংসদ নিশীথ প্রামানিকের এমন অভিযোগকে ভিত্তিহীন অসত্য বলে উড়িয়ে দিয়েছে। তৃণমূল কংগ্রেসের কোচবিহার জেলা কার্যকারী সভাপতি প্রাক্তন সাংসদ পার্থ প্রতিম রায় বলেন, “শুধু সাজানো ভিডিও দিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল করা ছাড়া এঁরা মানুষের জন্য কিছুই করে নি। কিন্তু তৃণমূল কংগ্রেসের নেতা কর্মী সকলেই দুঃস্থ অসহায় মানুষ ভিন রাজ্য থেকে আসা শ্রমিক সকলের পাশে ছিল, আছে , থাকবে। এটা সবাই জানে দেখেছে, আগামী দিনেও দেখবে। আর বিজেপি যে শুধু ভোটের রাজনীতি করে সেটাও মানুষ বুঝে গিয়েছে। আর তাই ভিত্তিহীন অসত্য কথা বলে প্রচারে থাকতে চাইছে।এমন মনগড়া কথা বলে আর যাই হোক বাংলার মানুষকে বোকা বানানো যাবে না।”

Related Articles

Back to top button
Close