fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

করোনা আবহে GST বাবদ রাজ্যের প্রাপ্য দিচ্ছে না কেন্দ্র,  অভিযোগ মুখ্যমন্ত্রীর

অভীক বন্দোপাধ্যায়, কলকাতা: ফের নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে একাধিক বিষয়ে নিজের অবস্থান স্পষ্ট করলেন মুখ্যমন্ত্রী। একদিকে যেমন তিনি অভিযোগ করলেন করোনা আবহে জিএসটি বাবদ রাজ্যের প্রাপ্য দিচ্ছে না কেন্দ্র, তেমনই বললেন, কেন্দ্রের জেদের কারণেই সমস্যায় পড়েছে নিট-জেইই পরীক্ষার্থীরা। ২৫ শতাংশের বেশি পরীক্ষার্থী তাদের পরীক্ষা কেন্দ্রে পৌঁছতে পারেননি। আবার একই সঙ্গে দাবি করলেন, লকডাউন সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে যে নির্দেশনা দিক না কেন, তা প্রয়োগ করার অধিকার রয়েছে কেবল রাজ্যেরই। তাই সেপ্টেম্বরে লকডাউন হবেই।

জিএসটি নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী অভিযোগ করেন, জিএসটি কাউন্সিলের নিয়ম অনুযায়ী কেন্দ্র এবং রাজ্য উভয়েরই জিএসটি বাবদ টাকা প্রাপ্য থাকে। সেই কারণেই যে কোনও গ্রাহক কোনও পরিষেবা নিলে কেন্দ্র ও রাজ্যের নামে সেন্ট্রাল জিএসটি ও স্টেট জিএসটি কেটে নেওয়া হয়। কিন্তু করোনা আবহে রাজ্যের প্রাপ্য বহুদিন ধরেই পায়নি রাজ্য। কেন্দ্রের এই আচরণ সঠিক নয় এবং এর ফলে কেন্দ্র-রাজ্যের সুসম্পর্কের ব্যাঘাত ঘটবে বলে দাবি মুখ্যমন্ত্রীর।

এই নিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠিতে মুখ্যমন্ত্রী উল্লেখ করেছিলেন, “আমি মনে করিয়ে দিতে চাই ২০১৩ সালে আপনি যখন গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন তখন জিএসটি কার্যকর করার ব্যপারে বাধা দিয়েছিলেন। তখন স্বর্গীয় অরুণ জেটলি এই নীতির বিরোধিতা করে স্পষ্ট জানিয়েছিলেন যে, এই নীতি লাগু হলে রাজ্যগুলো তার অধিকার থেকে বঞ্চিত হবে। কেন্দ্রীয় সরকারকে বিশ্বাস করি না। আজও একই কারণে জিএসটি বাবদ রাজ্যের ক্ষতিপূরণ না মেলায় আমাদের কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের ওপর বিশ্বাস হারাচ্ছে।”

একই সঙ্গে ১ সেপ্টেম্বর থেকে নিট-জেইই পরীক্ষা শুরু হলেও বেশিরভাগ পরীক্ষাকেন্দ্রে তবে বর্তমান পরিস্থিতিতে পরীক্ষাকেন্দ্রে পৌঁছতে বেশ সমস্যায় পড়তে হয়েছে পরীক্ষার্থীদের। বুধবার নবান্ন থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই নিয়ে বলেন, “কেন্দ্রের জেদের কারণেই সমস্যায় পড়েছে। আমি সংবাদমাধ্যমে দেখেছি বহু পরীক্ষার্থী পরীক্ষাকেন্দ্রে পৌঁছতে পারেনি। কারণ, বর্তমান সময়ে গণপরিবহণ ব্যবস্থা আগের মতো নেই। বাধা পেরিয়ে কিছু সংখ্যক পরীক্ষার্থী পরীক্ষা দিয়েছে, কিন্তু সকলের পক্ষে তা সম্ভব হয়নি। ফলে তাঁদের বছর নষ্ট হল। মোট ৪৫৭৬ পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১১৭৬ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষা দিতে পেরেছেন।”

কিন্তু এই নিয়ে কেন্দ্রকেই দায়ী করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষা পিছিয়ে দেওয়ার আবেদন করেছিল। কিন্তু কেন্দ্র তা মানেনি। প্রধানমন্ত্রীকে ইঙ্গিত করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “কে আপনাকে অধিকার দিয়েছে ছাত্র-ছাত্রীদের বিপাকে ফেলার, ওদের ভবিষ্যত নষ্ট করার?”

এদিন মুখ্যমন্ত্রীকে প্রশ্ন করা হয়, কেন্দ্রের আনলক ফোরের নির্দেশিকাকে অমান্য করে কি ভাবে রাজ্য লকডাউন বহাল রাখতে পারে? এই প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘গণতান্ত্রিক পরিকাঠামোয় কেন্দ্র সরকার রাজ্যের অভিভাবক। রাজ্য তার কাছে সন্তানসম। কিন্তু এখানেই শুধুমাত্র প্রতিযোগিতামূলক আচরণ করা হচ্ছে। গাইডলাইন প্রকাশের মাধ্যমে পরামর্শ দেওয়া কেন্দ্রের কাজ। তবে কোনও সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দেওয়া কাজ নয়। রাজ্যের উপর কেন্দ্রকে ভরসা রাখতে হবে। রাজ্যে লকডাউন করার অধিকার রয়েছে শুধুমাত্র রাজ্য সরকারেরই।’

মেট্রো কবে থেকে চালু হবে এই নিয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ওরা সম্ভবত ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে মেট্রো চালু করতে চাইছে। বিষয়টা মুখ্যসচিব রাজীব সিনহা দেখে নিচ্ছেন। নবান্নে বৈঠকের পর এই নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেওয়া হবে।’

Related Articles

Back to top button
Close