fbpx
পশ্চিমবঙ্গ

বর্ধমানে ‘দুয়ারে সরকার’ কর্মসূচীর ক্যাম্প ঘুরে দেখলেন রাজ্যের প্রিন্সিপাল সেক্রেটারি 

প্রদীপ চট্টোপাধ্যায়, বর্ধমান: রাজ্যজুড়ে ১ ডিসেম্বর থেকে শুরু হয়েছে ‘দুয়ারে সরকার’ কর্মসূচী। শুক্রবার চতুর্থ দিনে সেই কর্মসূচির কাজ সরজমিনে খতিয়ে দেখতে পূর্ব বর্ধমানে এলেন রাজ্যের প্রিন্সিপাল সেক্রেটারি বরুণ রায়। তিনি জেলার বিভিন্ন জায়গায় হওয়া ‘দুয়ারে সরকার’ ক্যাম্পে পৌছে গিয়ে কাজকর্ম খতিয়ে দেখার পাশাপাশি সাধারণ মানুষজনের সঙ্গেও কথা বললেন। সরকারী প্রকল্পের সুবিধা পাবার জন্য মানুষের আগ্রহ দেখে প্রিন্সিপাল সেক্রেটারি সন্তোষ প্রকাশ করেন। তবে ক্যাম্পে উপস্থিত মানুষজনের সামাজিক দূরত্ব বিধি না মানা নিয়ে অনেকেই প্রশ্ন তুললেন।

প্রিন্সিপাল সেক্রেটারি বরুন রায় শুক্রবার কলকাতা থেকে সোজা পৌছে যান পূর্ব বর্ধমানের ভাতারের নাসিগ্রামের স্টেডিয়াম হওয়া ক্যাম্পে। ‘দুয়ারে সরকার’ কর্মসূচীর কাজকর্ম কি ভাবে হচ্ছে সেই বিষয়ে তিনি সেখানে থাকা প্রশাসনের আধিকারিকদের সঙ্গে আলোচনা করেন। ক্যাম্পে মানুষের অংশগ্রহন বিষয়েও তিনি খোঁজ খবর নেন। এরপর নাসিগ্রাম থেকে তিনি যান ভাতারের বড়বেলুন ১ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের বড়বেলুন মোহিনীমোহন উচ্চ বিদ্যালয়ে। সেখানেও দুয়ারে সরকারের ক্যাম্প বা কর্মসূচির আয়োজন করা হয়েছে। এদিন প্রিন্সিপাল সেক্রেটারির বরুণ রায়ের সঙ্গে সহায়তা শিবির পরিদর্শনে অংশ নিয়েছিলেন ভাতার ব্লকের বিডিও তপন সরকার, পুলিশ সুপার ভাস্কর মুখোপাধ্যায় সহ জেলা প্রশাসনের অন্য আধিকারিকরা।

ভাতার ঘুরে প্রিন্সিপাল সেক্রেটারি বরুণ রায় বর্ধমান সার্কিট হাউসে উপস্থিত হন। সেখানে জেলাশাসক এনাউর রহমান ও জেলা প্রশাসনের আধিকারিকদের সঙ্গে তিনি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক করেন।আধ ঘন্টার বৈঠক শেষে জেলাশাসক এনাউর রহমানকে সঙ্গে নিয়ে প্রিন্সিপাল সেক্রেটারি ফের বর্ধমান শহরের টাউনহলে ‘দুয়ারে সরকার’ ক্যাম্পে যান। সেখানে তিনি উপভোক্তাদের সঙ্গে কথা বলার পাশাপাশি ক্যাম্পের ব্যবস্থপনা নিয়ে খোঁজ খবর নেন। ক্যাম্পের কর্মীদের সঙ্গেও তিনি ব্যবস্থাপনা নিয়ে কথা বলেন। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, শুক্রবার চতুর্থ দিন বিকাল ৪ টা পর্যন্ত জেলার ‘দুয়ারের সরকার ’কর্মসূচীর ক্যাম্পে অসংখ্য মানুষ উপস্থিত হয়েছিলেন।

প্রিন্সিপাল সেক্রেটারি বরুণ রায় সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, “ক্যাম্পগুলিতে আগ্রহী মানুষজনের ভিড় চোখে পড়ল। প্রতিটা ক্যাম্পেই দেখা গেল প্রচুর লোকজন হাজির হয়েছেন।” রেশন কার্ড নিয়ে মানুষের ক্ষোভ প্রসঙ্গে প্রিন্সিপাল সেক্রেটারিকে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, এইসব জানতেই তো ক্যাম্প পরিদর্শন করলেন। তবে ক্যাম্পে সামাজিক দূরত্ব বিধি মানা নিয়ে জেলাশাসক এনাউর রহমানকে জিজ্ঞেস করা হলে কোন সদুত্তর মেলে নি। তিনি বলেন, “মানুষের আগ্রহ আছে। তাই এত মানুষজন ক্যাম্পে হাজির হচ্ছেন।“ ভাতারের বড়বেলুন থেকে বর্ধমানের টাউনহল সব জায়গাতেই যদিও দেখাযায় বেশির ভাগ মানুষের মুখে মাস্ক রয়েছে। তবে সামাজিক দূরত্ব বিধি মানার ব্যাপারে কারুর কোন আগ্রহ নেই।

Related Articles

Back to top button
Close