fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

সরকারি জায়গা দখল করে বেআইনিভাবে কারখানা, কড়া পদক্ষেপ নিলেন মহকুমা শাসক

তারক হরি, পশ্চিম মেদিনীপুর:  দীর্ঘদিন ধরে সরকারি জাগয়া দখল করে কারখানা চালানোর অভিযোগ উঠলো এক ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে। যা নিয়ে রীতিমতো উত্তেজনা ছড়িয়েছিল এলাকায়। এই নিয়ে কয়েক বছর ধরে আদালতে একটি মামলাও চলছে। ঘটনা এমন পরিস্থিতিতে পৌঁছে গিয়েছিল যে ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন খড়গপুর মহকুমা শাসক বৈভব চৌধুরী। ঘটনাটি পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার ডেবরা ব্লকের ডেবরা ৫/২ অঞ্চলের আলিশাহাগড় এলাকায়। অভিযুক্ত ব্যবসায়ী রাজা রাম দুবে তিনি অন্য লোকের নামিত সরকারি পাট্টা জায়গা লিজ নিয়ে ওই জায়গায় ইট ভাটা চালাচ্ছেন। কিন্তু সরকারি পাট্টা জমি লিজ বা হস্তান্তর করা সম্পূর্ণ বেআইনি এমনিই অভিযোগ করেন ডেবরা ৫/২ অঞ্চলের প্রধান রেখা হুই।

তিনি বলেন, “এলাকার বাসিন্দা রাজা রাম দুবে একটি পাট্টা কৃত জায়গা দখল করে ইট ভাটা চালাচ্ছে। ওই জায়গাটি তিনি পাট্টা মালিকের কাছে লিজে নিয়েছেন বলে তিনি দাবী করছেন, কিন্তু প্রকৃত পক্ষে সরকারি পাট্টা লিজ বা কেনা কি আইন সঙ্গত?  ওখানে একটি অঙ্গনাওয়াড়ি কেন্দ্র তৈরির অনুমোদনও দেওয়া হয়েছে। তারপরেও তিনি বেশ কিছু লোকের মদতে জোর পূর্বক দখল করে রেখেছে। আমরা জানাতে গেলেও কোর্টে মামলা করে। তাই আমরা এস ডি ও মহোদয়কে জানিয়েছিলাম।

ঘটনার খবর পেয়ে খড়গপুর মহকুমা শাসক বৈভব চৌধুরী উনি স্বয়ং এসে সমস্ত জিনিস খাতিয়ে দেখার পর রীতিমত ক্ষোভ প্রকাশ করেন ওই ব্যবসায়ী রাজা রাম দুবে কে বৈধ কাগজ দেখাতে বলেন, সরকারি পাট্টা জমিতে তিনি কিভাবে এতো বড় একটা ব্যবসা করছেন? এই জায়গার কি ট্রেড লাইসেন্স আছে? কাদের কাদের মদতে সরকারি জায়গা দখল করে ব্যবসা চালাচ্ছেন? একের পর এক প্রশ্নের জবাব চান তিনি, রীতিমতো সিংগম অবতারে বেআইনি জবর দখলের বিরুদ্ধে গর্জে ওঠেন এবং তাৎক্ষণিক এই কারখানা সিল করে দেন। ওই ব্যাক্তির বিরুদ্ধে প্রতারণার মামলা করবেন বলে জানান।

অপরদিকে অভিযুক্ত ব্যবসায়ী রাজা রাম দুবে বলেন, “আমি পাট্টা লিজে নিয়েছি। আমি ভাড়া দিই। আমি ট্রেড লাইসেন্স করে ছিলাম। কিন্তু অঞ্চল পরে আমাকে আর রিনিউয়াল করতে দেয়নি। আমাকে ওরা নানা ভাবে হেনস্থা করছে”। এই ঘটনার পরেই শনিবার খড়গপুর এস ডি ও সাহেব, ডেবরা বিডিও সাহেব এবং ডেবরা থানার উপস্থিতিতে ওই কারখানা সিল করে দেওয়া হয়েছে।

Related Articles

Back to top button
Close