fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

শর্ত সাপেক্ষে ইআইএমপিসিসি-র আবেদনে শুটিং শুরুর নির্দেশ দিলেন মুখ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ‘সোমবার থেকেই মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে শর্তসাপেক্ষে ইআইএমপিসিসি-র উদ্যোগে টলিপাড়ায় শুটিংয়ের কাজ শুরু হতে চলেছে।’ জানালেন সংগঠনের সভাপতি বাবান ঘোষ। রবিবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে সংগঠনের সভাপতি বলেন, ‘ আমাদের লিখিত বার্তা পেয়ে অবশেষে মুখ্যমন্ত্রীর শুভবুদ্ধির উদয় হয়েছে। তার এই উদ্যোগকে আমরা সাধুবাদ জানাই।’  তিনি আরও বলেন, ‘আমরা টলিপাড়ায় শুটিংয়ের কাজ কাজ করার জন্য মুখ্যমন্ত্রীর কাছে আবেদন করেছিলাম। সেই আবেদনে সাড়া দিয়ে নবান্ন থেকে শর্তসাপেক্ষে কাজ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আমরা এই বার্তা টলিপাড়ার সকলের কাছেই সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে পাঠিয়ে দিয়েছি। আমরা অতি অবশ্যই পূর্ণ নিয়ম ও শর্ত মেনে শুটিংয়ের কাজ করব।’

এদিকে কোভিড ১৯ মহামারী দেশজুড়ে অর্থনীতিতে প্রভাব ফেলেছে। বাদ নেই কলকাতার টলিপাড়ায়ও। দীর্ঘ সময় ধরে লকডাউন এর ফলে পেটে টান পড়েছে টলিপাড়ার কলাকুশলী শিল্পী থেকে সব মহলেই। আর তাই মুখ্যমন্ত্রী কে চিঠি লিখে কাজ শুরুর আর্জি জানানো হয় ইস্টার্ন ইন্ডিয়া মোশন পিকচার্স অ্যান্ড কালচারাল কনফেডারেশন এর পক্ষ থেকে। সংগঠনের পক্ষ থেকে সম্পাদক কাজল রায় জানান ‘কাজ শুরু হলে সোশ্যাল ডিসটেন্স থার্মাল স্ক্রীনিং মাস্ক ব্যবহার এবং ঘনঘন স্যানিটাইজ সব কিছুর পর্যাপ্ত ব্যবস্থাপনা থাকবে। একসঙ্গে ফ্লোর এর মধ্যে ১০ থেকে ১৫ জনের বেশি কাজ করবেনা। প্রত্যেককে রোটেশন শিফট হিসেবে ডিউটি দেওয়া হবে। যাতে একসঙ্গে অনেক লোক ফ্লরে আনাগোনা না করতে পারে। এছাড়াও গাড়ি ব্যবহার করার ক্ষেত্রে ছোট গাড়ি হলে মোট চারজন এবং বড় গাড়ি হলে মোট ছয় জন মানুষকে ব্যবহার করতে দেওয়া হবে।’

আরও পড়ুন: আমফানে ক্ষতিগ্রস্তদের ফর্ম বিলি নিয়ে তৃণমূল ও বিজেপি সংঘর্ষ, আহত একাধিক কর্মী

তবে ইতিমধ্যেই ক্রীড়া মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস সংবাদমাধ্যমে জানিয়েছেন টলিপাড়ায় এখনই কাজ শুরু হচ্ছে না। ৪ জুন কলাকুশলী মহলের সঙ্গে বৈঠকের পরই কবে থেকে ঠিক শুটিং শুরু হবে সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে। যদিও ক্রিয়া মন্ত্রীর এই উদ্যোগকে পাত্তা দিতে নারাজ ই আই এম পি সি সি সভাপতি বাবান ঘোষ। এ প্রসঙ্গে তিনি সাফ জানিয়ে দেন, ‘অরূপ বিশ্বাস কালচারাল মিনিস্টার নয়। আর মুখ্যমন্ত্রী যেখানে নির্দেশ দিয়েছেন। তার থেকে উপরে কেউ হতে পারে না। তাই আমরা সোমবার থেকেই কাজ শুরু করব।’

অন্যদিকে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদিকা সংঘমিত্রা চৌধুরী টলিপাড়ায় দীর্ঘ লকডাউন এরপর শুটিংয়ের কাজ শুরু হওয়ায় যথেষ্ট উচ্ছ্বসিত। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমরাই প্রথম টলিপাড়ায় কাজ শুরুর জন্য আবেদন করেছিলাম মুখ্যমন্ত্রীর কাছে। সেই আবেদনে সাড়া দিয়ে মাননীয়া আমাদের কাজ শুরুর নির্দেশ দিয়েছেন। বিগত কয়েক মাস ধরে টলিপাড়ায় শুটিংয়ের কাজ বন্ধ থাকায় রীতিমতো অনাহারে দিন কাটাতে হচ্ছে এখানে কর্মরত বিভিন্ন পর্যায়ের মানুষকে। তাদের অসহায় অবস্থার কথা ভেবে আমরা এই পদক্ষেপ গ্রহণ করেছিলাম। অবশেষে তার সুরাহা হলো। শিল্পীরা মেকাপ রুম আর টয়লেটের দুর্বল পরিকাঠামো নিয়ে একটু চিন্তিত। সেই দিক গুলোর দিকে একটু নজর দিতে হবে। তবেই পুনরায় বহু মানুষ নিজেদের জীবিকা অর্জনের পথ ফিরে পাবে।’

Related Articles

Back to top button
Close