fbpx
দেশহেডলাইন

দিল্লিতে করোনা চিকিৎসায় সফল প্লাজমা থেরাপি

সুজয় অধিকারী: প্লাজমা থেরাপি করোনা রোগীদের সুস্থ করতে প্রথম সারির চিকিৎসা পদ্ধতি বলে স্বীকৃতি পেয়েছে। টিকা আবিষ্কার হয়নি, বিকল্প পদ্ধতি দ্বারাই চলছে করনা রোগীদের সুস্থ করা। বিকল্প পদ্ধতির মধ্যে উন্নত দেশগুলি অনেকদিন আগেই বেছে নিয়েছিল প্লাজমা থেরাপি। আমেরিকা, ইতালির মতো দেশে উন্নত চিকিৎসা পদ্ধতি মাধ্যমে যখন রোগীদের সুস্থ করা যাচ্ছে না তখন আবারও প্লাজমা থেরাপি ব্যবহার শুরু হয়েছে।

প্লাজমা থেরাপি কোনও ওষুধের ব্যবহার নয়। করোনা থেকে সুস্থ হয়ে ওঠা ব্যক্তির শরীর থেকে রক্ত নেওয়া হয় তারপর সেই রক্ত থেকে প্লাজমা আলাদা করে রক্ত আবার তার শরীরে ফিরিয়ে দেওয়া হয়। এই প্লাজমা করোনা রোগীর শরীরে প্রয়োগ করা হয় অ্যান্টিবডি তৈরির জন্য। চিকিৎসকদের কথায়, যে রোগীর শরীরের অ্যান্টিবডি যত শক্তিশালী সেই রোগী করোনা থেকে তত তাড়াতাড়ি সুস্থ হয়ে উঠতে পারবে। তবে বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, শরীরে প্লাজমা প্রয়োগ করে সুস্থ হয়ে ওঠা ব্যক্তির প্লাজমা কোনো অন্য করোনা রোগীর শরীরে প্রয়োগ করা যাবে না।
কিছুদিন আগে আই সি এম আর-এর তরফ থেকে ঘোষণা করা হয়েছিল, বিশ্বের একাধিক উন্নত দেশ প্লাজমা ব্যবহার করে অনেক করোনা রোগীকে সুস্থ করেছে। তাই এবার ভারতেও শুরু হবে প্লাজমা প্রয়োগ করে সুস্থ করার পদ্ধতি।

 

দেশে যেমন ব্লাড ব্যাংক আছে তেমন অনেক প্লাজমার ব্যাংকও আছে।
দিল্লি সরকার অনেকদিন থেকেই প্লাজমা থেরাপি ব্যবহার করার কথা তুলেছেন। আর এবার দিল্লির সাকেত ম্যাক্স হাসপাতালে প্লাজমা প্রয়োগ করে সফলভাবে সুস্থ হয়ে উঠল করোনা রোগী। হাসপাতালের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, রোগীর শরীরে প্রয়োগ করার প্লাজমা, রোগীর পরিবার থেকেই জোগাড় করে গিয়েছিলেন। সুস্থ হয়ে ওঠা ব্যক্তি তার শরীরের প্লাসমা স্বেচ্ছায় দান করলেই তবে সেই প্লাজমা নিয়ে করোনা রোগীর শরীরে ব্যবহার করা যাবে। প্লাজমা ব্যবহার করে রোগীদের সুস্থ করে তোলার পদ্ধতি নতুন নয়। দীর্ঘদিন ধরে অনেক কঠিন রোগ থেকে রোগীদের সুস্থ করতে, সুস্থ হয়ে ওঠা ব্যক্তিদের শরীরের প্লাজমা রোগীদের শরীরে ব্যবহার করে সাফল্য পাওয়া গেছে।

Related Articles

Back to top button
Close