fbpx
কলকাতাহেডলাইন

৮ ডিসেম্বর ভারত বনধকে নৈতিকভাবে সমর্থন তৃণমূলের, অকালি দলের সঙ্গে বৈঠক শেষে জানালেন সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়

অভিষেক গঙ্গোপাধ্যায়, কলকাতা: কেন্দ্রের কৃষি বিল এর বিরোধিতায় উত্তাল হয়েছে দেশ। বিলের বিরোধিতা করেছে রাজ্যের শাসক দল। ইতিমধ্যে গতকাল দিল্লিতে কৃষকদের আন্দোলনে তাদের সঙ্গে দেখা করতে ডেরেক ও’ব্রায়েন কে পাঠিয়ে ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এমনকি নিজেও ফোন করে কৃষকদের সঙ্গে কথা বলেছিলেন তিনি। এরপর শনিবার তৃণমূল ভবনে শিরোমণি অকালি দলের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করলেন তৃণমূল সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় এবং ডেরেক ও’ব্রায়েন।

 

এদিন তৃণমূল ভবনে কৃষি আইন ও আন্দোলন নিয়ে দুই দলের বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন অকালি দলের তিনজন সাংসদ বলে জানা গিয়েছে। অন্যদিকে, তৃণমূলের তরফে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন ডেরেক ও ব্রায়েন ও সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়। কৃষি আইন প্রত্যাহারের দাবিতে ৮ই ডিসেম্বর থেকে দেশ জুড়ে ধর্মঘটের ডাক দিয়েছেন দিল্লিতে আন্দোলনরত কৃষকরা। এদিন প্রায় ৪৫ মিনিট বৈঠক করেন তাঁরা।

 

এদিন বৈঠকের পর সুদীপবাবু জানান, “অবিলম্বে কৃষি আইন প্রত্যাহার করতে হবে সরকারকে। তিনটি বিল পাঠাতে হবে স্ট্যান্ডিং অথবা সিলেক্ট কমিটিতে”। কেন্দ্রীয় কৃষি বিলের বিরোধিতা করে ৮ ডিসেম্বর কৃষক সংগঠনগুলির ভারত বনধের ডাক দিয়েছে। এই প্রসঙ্গে সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন,”আমরা বনধকে নৈতিকভাবে সমর্থন করি। তবে রাস্তায় নামব না। ৮ তারিখ থেকে অবস্থান বিক্ষোভে বসবে তৃণমূল। ১০ তারিখ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজে সামিল হবেন।”

 

অন্যদিকে, বৈঠকের পর আকালি দলের প্রতিনিধি প্রেম সিং বলেন,”কৃষি বিল প্রত্যাহার করতেই হবে সরকারকে। এই নতুন বিলে ন্যূনতম সহায়ক মূল্যের কোনও নিশ্চয়তা নেই”। এদিকে, শনিবার ফের কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে কৃষকদের পঞ্চম দফার আলোচনার আগে জরুরি বৈঠকে বসেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে এই বৈঠকে উপস্থিত রয়েছেন অমিত শাহ, রাজনাথ সিং, পীযূষ গোয়েল, নরেন্দ্র এস তোমর বলে জানা গিয়েছে। কৃষকদের দাবি মেনে আইনে নতুন কৃষি আইনে কী কী সংশোধন আনা যায়, সেই নিয়েই বৈঠকে জরুরি আলোচনা চলছে বলে সূত্রে খবর।

 

 

 

 

Related Articles

Back to top button
Close