fbpx
একনজরে আজকের যুগশঙ্খগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

রবিবার যুগশঙ্খ সংবাদপত্রের উল্লেখযোগ্য খবর গুলো পড়ুন (দ্বিতীয় অংশ)

আজই হুগলিতে নেট পরিষেবা স্বাভাবিক হবে, হাইকোর্টকে রাজ্য

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা, ১৬ মে: ১৭ মে, রবিবার সন্ধ্যার পর থেকে হুগলি জেলার ইন্টারনেট পরিষেবা স্বাভাবিক হবে। কলকাতা হাইকোর্টে রিপোর্ট দিয়ে শনিবার একথা জানাল রাজ্য সরকার। আগামী শুক্রবার হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি থোট্টাথিল ভাস্করণ নায়ার রাধাকৃষ্ণণের ডিভিশন বেঞ্চে এই মামলার পরবর্তী শুনানি।

বিনা কারণে হুগলি জেলার বিস্তীর্ণ অংশে ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এই অভিযোগে গত ১২ মে ইমেল মারফত হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতির কাছে চিঠি দিয়ে অভিযোগ জানান সৌমাভ মুখোপাধ্যায় নামে চন্দননগরের বাসিন্দা হাইকোর্টের এক আইনজীবী। তারই প্রেক্ষিতে স্বতঃপ্রণোদিত মামলা দায়ের করে শনিবার রাজ্যের কাছে জরুরি ভিত্তিতে এই রিপোর্ট তলব করেছিল হাইকোর্ট।

এদিন রাজ্যের তরফে রিপোর্ট দিয়ে জানানো হয়, হুগলি জেলার যে এলাকাগুলোতে অশান্তি সৃষ্টি হয়েছিল সেই জায়গাগুলোতে পরিস্থিতি এখন স্বাভাবিক। রবিবার সন্ধ্যার পর থেকে ইন্টারনেট পরিষেবাও স্বাভাবিক করে দেওয়া হবে।

ইন্টারনেট বন্ধ থাকার কারণ হিসেবে রাজ্যের তরফে জানানো হয়, হুগলি জেলায় বেশ কিছু এলাকায় অশান্তির ঘটনা নিয়ে সমাজবিরোধীরা ইন্টারনেটের মাধ্যমে ভুল ও উসকানিমূলক  খবর ছড়াচ্ছিল। ফলে অশান্তি আরও বাড়ছিল। তার পরিপ্রেক্ষিতেই ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ রাখা সিদ্ধান্ত নেয় জেলা প্রশাসন।

অশান্ত হুগলি! অমিতের হস্তক্ষেপ দাবি দিলীপের

শরণানন্দ দাস, কলকাতা, ১৬ মে: হুগলির অশান্তির ঘটনায় বিজেপি সাংসদদের বিরুদ্ধে এফআইআর ও সাধারণ মানুষের উপর পুলিশি নির্যাতনের বিরুদ্ধে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আমিত শাহের হস্তক্ষেপ চাইলেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

শনিবার সল্টলেকের বাসভবনে সাংবাদিক বৈঠকে দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘হুগলির অশান্তি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ ব্যর্থ। লাগাতার সংঘর্ষ, উত্তজনায় জনজীবন ব্যাহত হয়েছে। নিজেদের অকর্মণ্যতা ঢাকতে বিজেপির দুই সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায় ও অর্জুন সিংয়ের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের হয়েছে। মাননীয় দুই সাংসদের সঙ্গে সাধারণ আসামীদের মতো ব্যবহার করা হচ্ছে। হিন্দু জাগরণ মঞ্চের হংসরাজজিকে ব্যারাকপুর থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে আটকে রাখা হয়েছে। আমি সমস্ত বিষয় জানিয়ে অমিতজিকে চিঠি দিচ্ছি। পাশাপাশি এই দাবি জানাচ্ছি হুগলিতে যেভাবে অশান্তি, সম্পত্তি নষ্টের ঘটনা ঘটেছে, কোনও কেন্দ্রীয় সংস্থাকে দিয়ে তার তদন্ত করানো হোক।’

দিলীপ এদিন উত্তরপ্রদেশে দুর্ঘটনায় পরিযায়ী শ্রমিক নিহতের ঘটনায় গভীর দুঃখ প্রকাশ করেছেন। এদিনও তিনি রাজ্য সরকারের কাছে দ্রুত পরিযায়ী শ্রমিকদের ফেরানোর আবেদন জানান। মমতাকে তাঁর প্রশ্ন, ‘উত্তরপ্রদেশ ৪৮৭টি ট্রেন চালিয়েছে। ভিনরাজ্যের যে শ্রমিকরা ওখানে রয়েছেন, তাঁদের থাকা-খাওয়ায় ব্যবস্থা করেছে। আপনারা কী করেছেন? কটা ট্রেন চালিয়েছেন?’ মুখ্যমন্ত্রীকে মেদিনীপুরের সাংসদ বলেন, ‘আপনারা যে ১০৫ টি ট্রেনের কথা বলছেন, তার কোনও মাথাছাতা নেই। রোজ ৩০০ ট্রেন  চালাচ্ছে রেল। আমি আবারও বলছি এখনও সময় আছে রেলের সঙ্গে সহযোগিতা করুন।’

প্রশ্ন উঠেছে, বিদেশ থেকে বিমানে প্রবাসীদের ফেরানোর তালিকাতেও বাংলার নাম না থাকা নিয়ে।  অথচ রাজ্য বিদেশমন্ত্রকে চিঠি পাঠিয়েছিল বলে দাবি। দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘কোন মেলে চিঠি পাঠিয়েছিলেন যে, মেলই পৌঁছোল না! ওসব ধোঁকাবাজির রাজনীতি অন্য কোথাও করবেন।’

পরিযায়ীদের ফেরানোর খরচ বহন করবে রাজ্য

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা, ১৬ মে: পরিযায়ী শ্রমিকদের রাজ্যে ফেরানোর খরচ বহন করবে রাজ্যই। শনিবার টুইট করে একথা  জানান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পাশাপাশি উত্তরপ্রদেশে দুর্ঘটনায় মৃত এরাজ্যের শ্রমিকদের পরিবারকে মাথাপিছু দু’লক্ষ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কথা এদিন ঘোষণা করে নবান্ন।

পরিযায়ী শ্রমিকদের ফেরার ট্রেন ভাড়া মেটানোর বিষয়ে বেশ কিছু দিন ধরে রাজনৈতিক তরজা অব্যাহত। বিজেপির অভিযোগ, ক্লাবগুলোকে মুখ্যমন্ত্রী ১৩ হাজার কোটি টাকা দিতে পারলেও পরিযায়ী শ্রমিকদের ফেরার ভাড়া ১৩ কোটি টাকা খরচ করতে পারেন না? এদিনের টুইটে যেন এরই জবাব দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি লিখেছেন, ‘আমি গর্বের সঙ্গে ঘোষণা করছি, রাজ্য সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে, স্পেশাল ট্রেনে করে আসা ভিন রাজ্যে আটকে পড়া সব বাংলার শ্রমিককের ফেরার খরচ বহন করবে রাজ্য সরকার। কোনও পরিযায়ী শ্রমিককে এজন্য কোনও খরচ করতে হবে না। একইসঙ্গে রেলবোর্ডে পাঠানো এই সংক্রান্ত চিঠিও তিনি টুইটে জুড়ে দেন।

‌অন্যদিকে, উত্তরপ্রদেশের আউরিয়ায় পথদুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন ২৪ জন পরিযায়ী শ্রমিক। মৃতদের মধ্যে এ রাজ্যের কিছু শ্রমিকও রয়েছেন। এদিন রাজ্য স্বরাষ্ট্র দফতরের পক্ষ থেকে টুইট করে নিহত ওই শ্রমিক পরিবারগুলিকে ক্ষতিপূরণ দেওয়া  হবে বলে জানানো হয়। সূত্রের খবর, নিহতদের তালিকায় রয়েছেন পুরুলিয়ার কয়েকজন শ্রমিক।

পরিযায়ী শ্রমিকদের নিয়ে আর নাটক করবেন না, মমতাকে খোঁচা রাহুলের

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা, ১৬ মে: পরিযায়ী শ্রমিকদের নিয়ে আর নাটক করবেন না। মমতাকে হুঁশিয়ারি দিয়ে শনিবার একথা বলেন রাহুল সিনহা। এদিনই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দুইটি ঘোষণা করেন, পরিযায়ী শ্রমিকদের ফিরিয়ে আনার খরচ রাজ্য দেবে। তাঁর এই টুইট নিয়েই বিকেলে পালটা খোঁচা দিলেন বিজেপির কেন্দ্রীয় সম্পাদক।

রাহুল  বলেন, ‘আমি প্রশ্ন করতে চাই, আর কত নাটক করবেন পরিযায়ী শ্রমিকদের নিয়ে? আর কত খেলা খেলবেন?  যেখানে রেল ঘোষণা করেছে ৮৫ শতাংশ খরচ তারাই দিচ্ছে, আর রাজ্যকে দিতে হবে মাত্র ১৫ শতাংশ। সেখানে আপনি ঘোষণা করছেন আপনি পুরো খরচ দেবেন। এটা রাজনীতি নয় কি?’

বিজেপির কেন্দ্রীয় সম্পাদক বলেন, ‘এদিকে সর্বক্ষণ বলেন, টাকা নেই। কেন্দ্রের টাকার জন্য  তীর্থের কাকের মতো বসে  থাকেন। এখন এত টাকা কোথা থেকে পাবেন?’ তাঁর স্পষ্ট হুঁশিয়ারি, ‘পরিযায়ী শ্রমিকদের ধোঁকা দেবেন না। আপনি যে ১০৫টি ট্রেন চেয়েছেন, তার শেষ শ্রমিক আসবেন ১৬ জুন। এই একমাস ভিন রাজ্যে কোথায় থাকবেন, কী খাবেন তাঁরা? উত্তর প্রদেশে যেমন দুঃখজনক ঘটনা ঘটেছে, এত দীর্ঘ প্রতীক্ষায় থাকতে হলে এমন আরও অনেক ঘটনা ঘটবে বলে আমার আশঙ্কা।’ রাহুল বলেন, ‘আমি দাবি করছি সাতদিনের মধ্যে ১০০০ ট্রেন চেয়ে ভিনরাজ্যে আটকে থাকা আমাদের পরিযায়ী শ্রমিকদের ফেরান।’

বাংলায় আক্রান্তের সংখ্যা আড়াই হাজার ছাড়াল,
নয়া কোভিড পজিটিভ ১১৫, মৃত ৭

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা, ১৬ মে: দু’মাসের মধ্যেই রাজ্যে  আড়াই হাজার পেরোল আক্রান্তের সংখ্যা। শনিবার বিকেলে নবান্নে স্বরাষ্ট্রসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, শেষ ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে নতুন করে ১১৫ জন করোনা পজিটিভ হওয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ২৫৭৬। মৃত্যু হয়েছে আরও ৭ জনের। ফলে এদিন পর্যন্ত  রাজ্যে করোনায় মোট মৃত্যু ১৬০। অন্যদিকে,  করোনা শরীরে থাকাকালীন আরও ৭২ জনের মৃত্যুর হিসাব ধরলে মোট মৃত্যু হয়েছে ২৩২ জনের। একই সঙ্গে শেঘ ২৪ ঘণ্টায় আরও ৬৩ জন সুস্থ হয়েছেন। অর্থাৎ মোট সুস্থ ৮৯২ জন। এই মুহূর্তে রাজ্যে করোনা আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন ১৪৫২ জন।

অন্যদিকে, স্বাস্থ্য দফতর থেকে  বুলেটিনে জানানো হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে করোনা পরীক্ষা হয়েছে ৭৭৪৫ জনের। যা আগের দিনের তুলনায় ১০৩৯ বেশি। এছাড়া এদিনের বুলেটিনে জানানো হয়েছে, শেষ ২৪ ঘণ্টায়  কলকাতায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে ৬৫ জন। শুধুমাত্র  কলকাতাতেই মৃত্যু হয়েছে আরও ৩ জনের।

রাজ্যে কমছে আক্রান্তের হার! দাবি স্বরাষ্ট্রসচিবের

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা, ১৬ মে: রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়লেও সুস্থতার হারও দ্রুত বাড়ছে। শনিবার এই দাবি করলেন রাজ্যের স্বরাষ্ট্র সচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়।

স্বরাষ্ট্র সচিব বলেন,  বিগত কয়েক দিনে সুস্থতার হার অনেকটাই বেড়েছে। এতে বোঝা যাচ্ছে, মানুষের মধ্যে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি হচ্ছে। পাশাপাশি চিকিৎসকদের চেষ্টার সুফলও কাজে দিচ্ছে। পুরো বিষয়টিই ইতিবাচক দিকে মোড় নিচ্ছে।’ দ্রুত পশ্চিমবঙ্গ এই ভাইরাসের ভয়াবহ প্রকোপ কাটিয়ে উঠবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

পুরো সংবাদপত্র পড়তে সাবস্ক্রাইব করুন epaper.jugasankha.in

Related Articles

Back to top button
Close