fbpx
কলকাতাহেডলাইন

ক্ষুব্ধ শুভেন্দু, ‘সৌগতকে এসএমএস ‘একসঙ্গে কাজ করা সম্ভব নয়’

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক:   ‘আর একসঙ্গে কাজ করা সম্ভব নয়।’ বুধবার দুপুরে সৌগত রায়কে এসএমএস করে এমনটাই জানিয়ে দিলেন রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী।  মান ভাঙাতে শুভেন্দু-অভিষেক-প্রশান্ত কিশোর বৈঠক হয়েছে ১৬-১৭ ঘণ্টা পেরিয়েছে। তারই মধ্যে ফের সমস্যা দানা বাঁধতে শুরু করেছে। তৃণমূল সূত্রের খবর, কেন এই বৈঠক নিয়ে মিডিয়ার কাছে মুখ খোলা হল, তা নিয়ে শুভেন্দু অধিকারী বর্ষীয়ান নেতা সৌগত রায়কে বুধবার সকালে এসএমএস করে তাঁর অসন্তোষের কথা জানিয়েছেন।

এসএমএসে শুভেন্দু জানতে চেয়েছে, কেন মিডিয়ায় মুখ খোলা হল দলের পক্ষ থেকে। উল্লেখ্য, গতকাল বহুলকাঙ্খিত এই বৈঠকের পর একমাত্র সৌগত রায়ই মুখ খুলছিলেন। তিনি জানিয়েছিলেন, যে সমস্যা ছিল, তা মিটে গিয়েছে। আর কোনও সমস্যা নেই। ওঁ তৃণমূলেই থাকবে। বাকি যা বলার তা শুভেন্দুই বলবেন। কিন্তু শুভেন্দু তা চাননি। সূত্রের খবর বুধবার দুপুরে শুভেন্দু সৌগত রায়কে এক মেসেজ করে স্পষ্ট জানান, কিছু বলার আগেই দলের পক্ষ থেকে আপনি সংবাদমাধ্যমে মন্তব্য করেছেন। এর ফলে কথা রাখা হয়নি। এখনও সমস্যাগুলি মেটেনি। তাই এভাবে কাজ করা সম্ভব নয়।

বুধবার দুপুরে শুভেন্দু অধিকারী একটি এসএমএস করেন সৌগত রায়কে। সূত্রের খবর, সেখানে লিখেছেন, ৬ ডিসেম্বর আমার সাংবাদিক সম্মেলন করার কথা ছিল। কিন্তু তার আগেই আপনারা প্রেসকে সব জানিয়ে দিলেন। ফলে একসঙ্গে কাজ করা সম্ভব নয়। তিনি আরও লিখেছেন,আমার বক্তব্যের এখনও সমাধান করা হয়নি। সমাধান না করেই আমার ওপর সব চাপিয়ে দেওয়া হচ্ছে। ফলে একসঙ্গে কাজ করা সম্ভব নয়,আমাকে মাপ করবেন। শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গে তৃণমূলের দূরত্ব ক্রমশ বাড়ছিল।  সম্পর্কের বরফ গলাতে বারবার কথা বলছিলেন সৌগত রায়। এমনকী, মঙ্গলবার রাতে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়-পিকের সঙ্গেও কলকাতায় দীর্ঘক্ষণ বৈঠক হয়। তারপরে দলের তরফে জানানো হয়, সমস্যা মিটে গিয়েছে। শুভেন্দুবাবু দলের সঙ্গেই রয়েছেন। এরপর আচমকাই বুধবার দুপুরে ছন্দপতন।

আরও  পড়ুন: পিকে-র বিরুদ্ধে অসন্তোষের কথা লিখে সরকারি কমিটির চেয়ারম্যান পদে মদন মিত্র

তবে রাজনৈতিক মহলের মতে, শুভেন্দু মোটের উপর একরোখা। ফলে তিনি যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তা তিনি করবেনই। কিন্তু শোনা যাচ্ছে, গত কয়েকদিন ধরে তাঁর সঙ্গে যে কথা বলা হয়েছিল, কার্যক্ষেত্রে তা করা হয়নি। একাধিকবার কথার খেলাপ করা হয়েছে। ফলে তিনি কী করবেন, তা এখনও নিশ্চিত নয়। সূত্রের খবর, যে মেসেজ তিনি সৌগত রায়কে পাঠিয়েছেন, সেখানে নিজের বিরক্তির কথা স্পষ্টই জানিয়েছেন। পাশাপাশি, কার্যত আরও একবার তৃণমূল শীর্ষ নেতৃত্বের যে দায়িত্বজ্ঞানহীনতা, তা স্পষ্ট করেছেন।

 

 

Related Articles

Back to top button
Close