fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ছাত্র-ছাত্রীর জন্য বিনামূল্যে অভাবনীয় হাট বসালেন স্বপ্নসন্ধান

বাবলু প্রামাণিক, দক্ষিণ ২৪ পরগনা: নিরবচ্ছিন্নতায়, ধারাবাহিকতায় আবার পাশে এসে দাঁড়ালো স্বপ্নসন্ধান। সংস্থা ৭৫ টা অভাবী ছাত্রছাত্রীদের পরিবারের পাশে এবং সাথে স্বপ্নসন্ধান সংলগ্ন ৩২ টি প্রান্তিক পরিবারের পাশে দাঁড়ালো। অর্থাৎ মোট ১০৭ টি পরিবারের পাশে দাঁড়ালো স্বপ্নসন্ধান। এক মাসের সমান্তরাল এই অভিনব রেশনিং এর আজ ছিল তৃতীয় পর্যায়। এই উদ্যোগের সবিস্তারিত ব্যাখ্যা দিলেন সংস্থার সম্পাদক, বিশিষ্ট সমাজকর্মী সুমিত মন্ডল।

তিনি জানালেন প্রথাগত দান বা ত্রাণ নয় সামাজিক দায়বদ্ধতায়,নিঃশর্ত ভালোবাসায় সন্তানসম ছাত্রছাত্রীদের পাশে দাঁড়ানোই তাঁদের লক্ষ্য।

লকডাউনের জন্য তাদের পরিবারের জীবন,জীবিকার কঠিন লড়াইয়ের অঙ্গীকারে সহায়তা প্রদান। আজ ছিলো তৃতীয় পর্যায়ের উদ্যোগ। এই পরিবারগুলোর হাতে অত্যাবশ্যক সামগ্রী হিসাবে তুলে দেওয়া হলো চাল,ডাল,আলু,তেল,চিনি,লবন,আটা,সয়াবিন,ডিম,মুড়ি সহ ১১টি অত্যাবশ্যক পণ্যসামগ্রী।
আর পরিবারগুলোর প্রয়োজনের ভিত্তিতে দেওয়া হল ওষুধ, স্যানিটারি ন্যাপকিন, মাস্ক ও বেবিফুড। একমাসের জন্য এই সহায়তা প্রদান। আবার একমাস পর এইধরনের সামগ্রী বন্টিত হবে।
শুধু তাই নয় এই সহায়তা প্রদান উদ্যোগে আজ ছিলো রক্তদান সচেতনতা সংক্রান্ত একটা হেল্প ডেস্ক। এখানে ৪ জন নতুন রক্তদাতা সহ মোট ১৫জন আগামী ২৪ শে মে স্বপ্নসন্ধান দ্বারা আয়োজিত রক্তদান শিবিরে রক্তদানের অঙ্গীকার করেন।বর্তমানের ভয়ংকর রক্ত সংকটে স্বপ্নসেনাদের এহেন প্রচেষ্টা তারিফ যোগ্য।ছাত্রছাত্রীদের মানসিক স্বাস্থ্য তত্ত্বাবধানের জন্য আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্না মনস্তত্ত্ববিদ ড.অঞ্জলি ঘোষের নেতৃত্বে চালু হয়েছে ২৪ ঘন্টার হেল্পলাইন।
কিন্তু এর সাথে জুন, জুলাই মাসের উদ্যোগে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক উত্তীর্ণ ছাত্রছাত্রীদের জন্য বই,খাতা,আ্যডমিশন ফিস,টিউশন ইত্যাদি বিষয়ে সাধ্যমতো পাশে থাকবে স্বপ্নসন্ধান। প্রতি বছরের মত শুধু মাত্র অভাবী মেধাবীদের স্কলারশিপ নয়।এবছরের পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে অন্তত ৫০ জন প্রান্তিক পরিবারের ছাত্রছাত্রীদের জন্য এই উদ্যোগ সম্প্রসারিত হবে।
তারপর এই পরিবার গুলোর জীবন,জীবিকার পুনঃগঠনের ক্ষেত্রে দল গঠন করে স্যানিটারি ন্যাপকিন,স্যানিটাইজার, মাস্ক,জৈবচাষ প্রভৃতির দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনাগুলো খুব সত্ত্বর কার্যকরী হতে চলেছে।

মূলত হোয়াটস আ্যাপ গ্রুপ ও ফেসবুকের আবেদনের ভিত্তিতেই অর্থ সংগৃহীত হয়েছে।রাজ্য,দেশের গন্ডী ছাড়িয়ে সুদুর কানাডা,আয়ারল্যান্ড, আমেরিকা,তাইওয়ান থেকে ইতিবাচক সাড়া ও সহযোগ আসছে স্বপ্নসন্ধানের
এই মহতী প্রচেষ্টায়।

আজ এলাকার প্রান্তিক, শ্রমজীবী পরিবারের ছেলে মেয়েগুলো খুশিতে উজ্জ্বল।তেমনই একজন সুকন্যা দাস।বিখ্যাত লাদাখচলে খ্যাত সত্যেন দাসের একমাত্র কন্যা স্বপ্নসন্ধানেরই ছাত্রী। তার কথাতেও স্বতঃস্ফূর্ত আবেগ ও কৃতজ্ঞতা ঝড়ে পড়ল স্বপ্নসন্ধানের এমন ব্যতিক্রমী উদ্যোগের প্রতি। সাথে সাথে আরও নতুন নতুন স্বপ্নকে বাস্তবায়িত করার শপথ নিয়েই ছাত্রছাত্রীরা ঘরে ফিরলো।

Related Articles

Back to top button
Close