fbpx
আন্তর্জাতিকগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

গৃহযুদ্ধের পোড়া ছাইয়ের গন্ধে গণতন্ত্রের আশ্বাস, কেমন চলছে সিরিয়ার নির্বাচন?

সংবাদসংস্থা, দামাস্কাস: মহামারী করোনাভাইরাস বিস্তারের শঙ্কা আর অর্থনৈতিক দুর্দশার মধ্যেই যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়ায় সরকার নিয়ন্ত্রিত এলাকাগুলিতে আয়োজিত হয়েছে সংসদ নির্বাচন। পাশাপাশি, প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদও ক্ষমতাগ্রহণের বিশ বছর পূর্ণ করতে যাচ্ছেন।

২০১১ সালে গৃহযুদ্ধ শুরুর পর এটি সিরিয়ার তৃতীয় পার্লামেন্ট নির্বাচন। এই নির্বাচনে দুই হাজারের অধিক প্রার্থী অংশ নিয়েছেন। এই তালিকায় এমন কিছু ব্যবসায়ীও রয়েছেন, যাদের উপর সম্প্রতি মার্কিন প্রশাসন নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। সূত্রের খবর, নির্বাচনের নির্ধারিত সময় ছিল মূলত গত এপ্রিলে। কিন্তু করোনাভাইরাস মহামারির কারণে তা এর আগে দুই বার পেছানো হয়। জানা যাচ্ছে, আল-আসাদের বাথ পার্টির প্রকৃত প্রতিদ্বন্দ্বী এই নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে না।

তবে, সরকারের সরাসরি প্রতিপক্ষ নয় এমন বিরোধী দলগুলিও নির্বাচন অংশগ্রহণ করেছে। ফলে বাশার আল-আসাদের বার্থ পার্টি যে পূর্বের মতোই নতুন একটি একচেটিয়া সরকার গঠন করতে যাচ্ছে এ ব্যাপারে শতভাগ প্রায় নিশ্চিত আন্তর্জাতিক মহল।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালে সবশেষ পার্লামেন্ট নির্বাচনে আসাদের বাথ পার্টি ও তাদের মিত্ররা সিরিয়ার আড়াইশো আসনবিশিষ্ট সংসদের মধ্যে দু’শোতে ‘জয়ী’ হয়। বাকি আসনগুলিতে জয় পায় স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। নির্বাচনে যারা অংশ নেন তারা হয় আসাদের বাথ পার্টির, নয়তো তার অনুগত। এপ্রসঙ্গে, সিরিয়ান সেন্টার ফর পলিসি রিসার্চের সহ-প্রতিষ্ঠাতা জাকি মেহেচি বলেন, ‘বেশিরভাগ সিরীয় নাগরিক মনে করেন, নির্বাচন কেবলমাত্র সিরিয়ার বৈধ কর্তৃপক্ষ হিসেবে নিজেকে প্রতিনিধি তৈরি করতে সরকার কর্তৃক নিয়ন্ত্রিত একটি প্রক্রিয়া।’

Related Articles

Back to top button
Close