fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

তমলুকে ২০০ কর্মীর বিজেপিতে যোগদান

ভাস্করব্রত পতি, তমলুক : তৃণমূল সহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলের ছত্রছায়া ছেড়ে ভারতীয় জনতা পার্টিতে যোগদান করলেন শহীদ মাতঙ্গিনী ব্লকের দুশো জন মানুষ। রামচন্দ্রপুরে তাঁদের হাতে পার্টির পতাকা তুলে দেন সংগঠনের জেলা সম্পাদক নবারুণ নায়েক। একসময় সন্ত্রাসের পীঠস্থান ছিল এই এলাকা। মানুষ দেখেছে গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে তৃণমূলের একছত্র দাদাগিরি। এখন ভয় ভেঙে মানুষ এগিয়ে আসছে।

ভারতীয় জনতা পার্টির শহীদ মাতঙ্গিনী মণ্ডল ১ এর নিজস্ব কার্যালয়ের উদ্বোধন উপলক্ষে আয়োজন করা হয় সভা। সেখানে নবারুন নায়েক ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন জেলা নেতৃত্ব আশিষ মণ্ডল, নারায়ন মাইতি, কার্তিকচন্দ্র মিদ্যা, বামদেব গুছাইত, মধুসূদন মণ্ডল, নবীন দাস প্রমুখ। শান্তিপুর ২ অঞ্চলের পাশাপাশি বিভিন্ন মণ্ডলের প্রায় ২০০ জন এদিন বিজেপিতে যোগ দেন উৎসাহের সাথে। প্রাক্তন সিপিএম নেতা বিমল মাঝি যোগ দেন এদিন।

রামচন্দ্রপুর বাসস্ট্যাণ্ডে এই পার্টি অফিসের উদ্বোধন করেন নবারুণ নায়েক। মূলতঃ অঞ্চলের অন্যতম সংগঠক নবীন দাসের উদ্যোগে পরিচালিত হয় যাবতীয় কর্মসূচি। এর আগে লক ডাউন পরিস্থিতিতে তিনি এলাকার মানুষজনকে নিয়ে পার্টির উদ্যোগে পাশে দাঁড়িয়েছেন ত্রাণসামগ্রী নিয়ে। একসময় এখানেই তৃণমূলের গুণ্ডাবাহিনী এখানকার দুটি বুথ দখল করে দেদার ছাপ্পা ভোট মেরেছিল পঞ্চায়েত ভোটে। অপহরণ করেছিল বিজেপি নেতা কার্তিক চন্দ্র মিদ্যাকে।

মানুষ এখন ঘুরে দাঁড়িয়েছে। আমফান নিয়ে তৃণমূলের জোচ্চুরি ও দুর্নীতি প্রকাশ্যে এসেছে। মানুষের পাশে থাকার বদলে নিজেদের আখের গোছাতে ব্যস্ত তৃণমূলের নেতাকর্মীরা। মানুষ তাই বিতশ্রদ্ধ হয়ে দলে দলে বিজেপিতে যোগদান করছে। নবীন দাস বলেন, এখানে মানুষ প্রতিবাদ করার শক্তি পেয়েছে। তৃণমূলের স্বজনপোষণ আর পুকুরচুরি জেনে গিয়েছে সবাই। ফলে আগামী একুশের বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূলকে সাধারন মানুষ বুঝিয়ে দেবে সবকিছুই। সেজন্য প্রস্তুত শহীদ মাতঙ্গিনী ব্লকের মানুষজন।

Related Articles

Back to top button
Close