fbpx
অসমখেলাফুটবলহেডলাইন

শিলচরের দ্বিতীয় দল হিসেবে অসম ক্লাব কাপ জিতেছিল তারাপুর এ সি

তাজ উদ্দিন, শিলচর: শিলচরের পাড়াভিত্তিক ক্লাবগুলির মধ্যে প্রথম সারিতে অবশ্যই থাকবে তারাপুর অ্যাথলেটিক ক্লাবপি এইচ ই আর সি-র পর শিলচরের দ্বিতীয় ক্লাব হিসেবে তারা ২০১৬ সালে অসম ক্লাব কাপ ফুটবলে চ্যাম্পিয়ন হয়এছাড়া ২০১২ সালে শিলচরের সুপার ডিভিশন ফুটবল চালু হলে প্রথম বছর থেকেই তাতে খেলছে তারাপুর

১৯৬৩ সালে তারাপুর সি ক্লাবের জন্মআসলে শিলচরে তারাপুর একটি বৃহত্তর এলাকাএক সময় ইন্ডিয়া ক্লাব পয়েন্ট থেকে শুরু করে চিরুকান্দি, রামনগর, মজুমদার বাজার এলাকা পর্যন্ত বিস্তৃতি ছিল তারাপুরেরএই এলাকা শিলচরকে প্রচুর ফুটবলার উপহার দিয়েছেফলে এলাকার একটা নিজস্ব ক্লাব স্থাপনের প্রয়োজনীয়তার কথা অনেকের মাথায় আসেশিলচর ক্রীড়ার প্রাণপুরুষ সন্তোষ মোহন দেব তখন ডি এস সচিবতাঁর বাড়িও তারাপুরেতবে ক্লাব গঠনের ব্যাপারে তিনি হস্তক্ষেপ করেননিবরং আগ্রহীদের পরামর্শ দেন তাঁরা যেন ডি এস গভর্নিং বডির সদস্যদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে নতুন ক্লাবের জন্য সম্মতিপত্রে নিয়ে আসেনশেষ পর্যন্ত এরকমই হয়। ‘৬৩তে জন্ম এবং সঙ্গে সঙ্গে ডি এস এর স্বীকৃতি পেয়ে যায় তারাপুর সি

আরও পড়ুন:করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশ সহ ১২টি দেশে ভেন্টিলেটর পাঠালেন ধর্মগুরু পোপ ফ্রান্সিস

জন্ম লগ্নে তারাপুর ক্লাবের সভাপতি ছিলেন কুমুদ সেন, সচিব শান্তিময় সেনগুপ্তকোষাধ্যক্ষ হরিপদ ভট্টাচার্যসহসভাপতি ছিলেন যতীন্দ্র বিজয় হোড় দেবা দেবসহসচিব বকুল দাস

নতুন ক্লাব প্রথম বছরেই ডিভিশন ফুটবলে অংশগ্রহণ করেইন্ডিয়া ক্লাব থেকে ননী নাথ, প্রশান্ত বসু রায়, পান্না চক্রবর্তী, অর্জুন হাজাম, টাউন ক্লাব থেকে প্রেম বাহাদুর ছেত্রী, চিন্ময় রঞ্জন দে প্রমুখ নতুন ক্লাবে যোগ দেনসেবার খুব ভালো প্রদর্শন করে শেষ ম্যাচে বাজার ইউনাইটেডের সঙ্গে ড্র করে লিগ হাতছাড়া হয় তারাপুরের

ক্লাব গঠনের প্রথমদিকে বেশ দাপট ছিল তারাপুর সি১৯৬৯ সালে তারা লিগ চ্যাম্পিয়ন হয়সেবার ক্যাপ্টেন নলিনী মোহন গুপ্ত ট্রফিতে খেলার সুযোগ পেয়ে এক ঐতিহাসিক কাণ্ড ঘটায় তারাপুরত্রিপুরা রাজ্য দলের বিরুদ্ধে তাদের ম্যাচটি টানা তিন দিন খেলে মীমাংসা হয়েছিলশেষ পর্যন্ত এক গোলে যেতে বিমল চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন ত্রিপুরা

প্রসঙ্গত, সেই সময় টাইব্রেকার প্রক্রিয়া চালু ছিল নাকোনও ম্যাচ ড্র হলে পরের দিন নতুন করে আবার খেলার নিয়ম ছিলতখন তারাপুরের দলটিতে মলয় ভট্টাচার্য, বিজয় ভট্টাচার্য, জহর গুপ্ত, ইন্দ্রজিৎ দে, হিমেন্দু সেনগুপ্ত, মাইনু ছেত্রী, গোবিন্দ গোয়ালা খেলতেন

১৯৭০ সালে বঙ্গাইগাঁওয়ে বাক্রিওয়াল শিল্ডে অংশ নিয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল পর্যন্ত গিয়েছিল তারাপুর১৯৭৫ সালে খেলাধুলায় সোনালি সময় ছিল তাদেরসেবার তারাপুর ক্লাব ত্রিমুকুট অর্জন করেএকইসঙ্গে জিতে নেয় ফুটবল ক্রিকেট এবং হকির খেতাবসমর্থকদের অবস্থা এমন হয়ে দাঁড়িয়েছিল যে তারা কিছুতেই দলের হার হজম করতে পারতেন নাএজন্য সেই দিনগুলিতে মাঠে বিশৃঙ্খলা ঘটানোর বদনাম ছিল তারাপুরের সমর্থকদের

আরও পড়ুন:এখনই বিধানসভা ভোট হলে এ রাজ্যে কারা সরকার গড়বে: বিজেপি না তৃণমূল?

ক্লাব গঠিত হয়ে গেলেও স্থায়ী কার্যালয়ের জন্য বহু বছর অপেক্ষা করতে হয়েছে তারাপুরকেপ্রথমে রেলস্টেশনের বিপরীতেরেস্ট হাউসনামের মিষ্টির দোকানে এবং পরবর্তীতে বাবুল হোড়েরসুরমা বেকারিরপিছনের কক্ষে খেলোয়াড়রা ড্রেস আপ করতেনবাবুল হোড় নিজেই এই প্রতিবেদককে ( Taz Uddin ) কথা জানান

১৯৯৪ সালে সন্তোষমোহন দেব ব্যক্তিগতভাবে ক্লাবকে তিন লক্ষ টাকা দান করেনপ্রয়াত মণীন্দ্র দে ক্লাব ভবন নির্মাণের জন্য জমি দেনসেখানেই গড়ে ওঠে বর্তমান ক্লাব ভবননির্মাণের দেখভাল করেন সভাপতি রুণু দত্ত, সহসভাপতি ভানু সোম, সচিব বাবুল হোড় প্রমুখ

এই শতাব্দীর শুরুর দিকে অবশ্য ক্লাবের উল্লেখ করার মতো তেমন প্রদর্শন নেইকিন্তু ফর্মে ফিরতে তাদের তেমন দেরি হয়নিযার সুবাদে ফুটবলে তারাপুর সি একটি সমীহ জাগানো নামএর পেছনে তাদের কর্মকর্তা অমিতাভ বিশ্বাসের (সোনা) যথেষ্ট অবদান রয়েছে

২০১৩ সালে সুবর্ণ জয়ন্তী পালন করে তারাপুর এসিতখন সভাপতি ছিলেন বাবুল হোড়, সহসভাপতি অনিমেষ সেনগুপ্ত, সচিব শিবব্রত দত্ত, কোষাধ্যক্ষ মণি শর্মাএছাড়া শীর্ষ পদাধিকারী হিসাবে বিভিন্ন সময়ে অতীতে দায়িত্ব পালন করেছেন চিন্ময় দে, প্রভাস দে, নারায়ণ দাস, রঞ্জু বিশ্বাস, ইন্দু ভূষণ ঘোষ, রাঘবেন্দ্র ভট্টাচার্য প্রমুখ

২০১২ সালে রণবীর রায় স্মৃতি সুপার ডিভিশন ফুটবল চালু করে শিলচর ডি এস সেবার আসরে যুগ্ম চ্যাম্পিয়ন হয় ইন্ডিয়া ক্লাব তারাপুর২০১৫তে রামানুজ গুপ্ত সুপার ডিভিশন আসলে এককভাবে জেতে তারাপুরের ক্লাবটিপরের বছর ধেমাজিতে অসম ক্লাব কাপে তারা চ্যাম্পিয়ন হয়ফাইনালে হারায় কোকরাঝাড়ের ক্লাবকেতবে একবার নয়, বারবার শিলচরে জন্য সম্মান নিয়ে আসুক তারাপুর এসিএমন আশা করেন জেলার ক্রীড়াপ্রেমীরা

কক্রিকেটে তারাপুর ডিভিশনের দলমাঝে তারা বি ডিভিশনে নেমে গিয়েছিলসেই বছর (২০১৫) জেলার তারকা ক্রিকেটারদের বি ডিভিশনে তাদের দলে খেলিয়ে আবার ডিভিশনে ফিরে আসে ফিরে আসেতবে ফুটবল তারাপুর সিকে আসল পরিচিতি দিয়েছেএটাই ধরে রাখতে চায় তারা

 

Related Articles

Back to top button
Close