fbpx
দেশহেডলাইন

সাময়িক স্বস্তি পাইলটের, ২৪ জুলাই পর্যন্ত বিধায়ক পদ বাতিল নয়: হাইকোর্ট

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক:  বিধায়ক পদ বাতিল সংক্রান্ত মামলায় রাজস্থান হাইকোর্টে আংশিক স্বস্তি পেলেন রাজ্যের প্রাক্তন উপমুখ্যমন্ত্রী শচীন পাইলট। আগামী ২৪ জুলাই পর্যন্ত রাজস্থান বিধানসভার স্পিকারকে কোনও বক্তব্য না রাখতে নির্দেশ দিল রাজস্থান হাইকোর্ট। এমনকি কোনও পদক্ষেপও যেন স্পিকার না নেন, তাও নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট। আগামী ৩ দিন পাইলট এবং তাঁর অনুগামী ১৮ জন বিধায়কের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নিতে পারবেন না বিধানসভার স্পিকার সিপি যোশী। আগামী ২৪ জুলাই পাইলট শিবিরের বিধায়কদের করা আবেদনের ভিত্তিতে রায় দেবে রাজস্থান হাই কোর্ট। তারপর আদালতের নির্দেশ মতোই এই ইস্যুতে পদক্ষেপ করতে হবে স্পিকারকে। যদিও আইনজীবীরা মনে করছেন, যুযুধান দুই শিবিরকেই কিছুটা ‘স্নায়ুর চাপে’ ফেলে দিলেন রাজস্থান হাইকোর্টের বিচারপতিরা। শচিন শিবিরের আর্জি যেমন খারিজ করা হয়নি, তেমনই বিধানসভার অধ্যক্ষের দেওয়া নোটিশকেও অবৈধ ঘোষণা করেনি। ফলে ২৪ জুলাই পর্যন্ত মামলার ভাগ্য ঝুলেই রইল।

আদালতের এই সিদ্ধান্তে আপাতত খানিকটা হলেও স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলবেন শচীন পাইলট। কারণ, এর ফলে অন্তত দিন তিনেকের একটা সময়ে পেয়ে যাবেন তিনি। এই তিনদিনে একদিকে যেমন বিধায়কপদ বাতিলের নোটিসের বিরুদ্ধে পরবর্তী পদক্ষেপ নিয়ে ভাবনা চিন্তা করতে পারবেন, তেমনি নিজের রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নিয়েও আগাম পরিকল্পনা সেরে ফেলতে পারবেন। উল্লেখ্য, পাইলটের সঙ্গে অশোক গেহলটের সম্পর্ক একেবারে তলানিতে ঠেকলেও কংগ্রেস শীর্ষ নেতৃত্ব তাঁর জন্য দলের রাস্তা এখনও খোলা রেখেছে। এমনকী, তিনি এখনও প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলেছেন বলে দাবি কংগ্রেস সূত্রের।

গত কয়েকদিন ধরেই মরুরাজ্যের রাজনীতিতে টানটান উত্তেজনার নাটক চলছে। মরুরাজ্যে কংগ্রেস সরকার পতনের লক্ষ্যে গেরুয়া শিবিরের সঙ্গে সরাসরি তিনি হাত মেলালেও অশোক গহলৌতের সরকারের সঙ্গে ১০২ বিধায়কের সমর্থন থাকায় আপাতত ক্ষমতা টিঁকিয়ে রাখতে পেরেছে হাত শিবির। সোমবারই মুখ্যমন্ত্রী গেহলট নিজের সদ্যপ্রাক্তন ডেপুটিকে ‘নিষ্কর্মা’বলে কটাক্ষ করেছিলেন। শোনা যাচ্ছে গেহলটের সেই মন্তব্য নাকি ভাল চোখে নেয়নি দলের শীর্ষ নেতৃত্ব। গেহলটকে নাকি এই ধরনের মন্তব্য করা নিয়ে সতর্কও করে দেওয়া হয়েছে। সার্বিকভাবে একটা জিনিস পরিষ্কার, পাইলটকে দলে ফেরানোর আশা এখনও পুরোপুরি ছাড়েনি কংগ্রেস। আগামী ৩ দিন তরুণ, প্রতিভাবান এই নেতার সঙ্গে আলোচনা করে তাঁকে ঘরে ফেরানোর সুযোগ পাচ্ছে কংগ্রেসও।

আরও পড়ুন: ছাত্র-ছাত্রীদের মনস্তাত্বিক দিক থেকে উদ্বুদ্ধ করতে বিশেষ অনুষ্ঠান কেন্দ্রের

এদিকে, হাই কোর্টের শুনানির দিনই রাজস্থানের জয়পুরের কাছের যে হোটেলে কংগ্রেস বিধায়কদের রাখা হয়েছে, সেখানে বিধায়কদলের বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী গেহলট। উপস্থিত ছিলেন অজয় মাকেন, রণদীপ সুরজেওয়ালার মতো কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিরাও। বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী বিধায়কদের জানিয়েছেন, তাঁদের আরও কিছুদিন ওই হোটেলেই থাকতে হতে পারে। কংগ্রেস যে এই সপ্তাহেই বিধানসভার অধিবেশন ডেকে আস্থাভোটের পরিকল্পনা করছিল, সেটাও সম্ভবত এই সপ্তাহে হচ্ছে না।

শচীন শিবির সাফ ভাষায় জানিয়েছে, রাজস্থান সরকারে তাঁরা নেতৃত্বে বদল চান। আর সেই দাবিতেই অনড় থেকে তাঁরা সরকার গঠনে বড় ভূমিকা পালন করতে চান। এদিকে, বিজেপির সঙ্গে শচীন শিবিরের আঁতাত নিয়ে যে প্রশ্ন উঠেছিল, তাকেও নস্যাত্‍ করে দিয়েছে সচিন

 

 

Related Articles

Back to top button
Close