fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

নেই নিরাপত্তা, রয়েছে কাজের অনিশ্চয়তা, কোভিভ হাসপাতালের সামনে অবস্থান বিক্ষোভে অস্থায়ী কর্মীরা

অভিষেক আচার্য, কৃষ্ণনগর: “দীর্ঘ আট মাস ধরে কোভিড হাসপাতালে ডিউটি করছি, নেই কোনও নিরাপত্তা, নেই কাজের নিশ্চয়তা, করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেলে কে নেবে আমাদের সংসারের দায়িত্ব”, একথা বললেন কোভিড হাসপাতালের এক অস্থায়ী কর্মী। এবার চিকিৎসা বন্ধ করে কোভিভ হাসপাতালের সামনে অবস্থান বিক্ষোভে নামলেন অস্থায়ী কর্মীরা। নদিয়ার কৃষ্ণনগর গ্লোক্যাল কোভিভ হাসপাতালে ঘটনা। করোনা আবহ শুরু হওয়ার পর থেকে রাজ্যের প্রতিটি জেলায় নতুন ভাবে আলাদা আলাদা করে কোভিড হাসপাতাল চালু করা হয়েছে। ঠিক সেইমতো নদিয়াতে বর্তমানে দুটি কোভিড হাসপাতাল রয়েছে। একটি কল্যাণীতে এবং অন্যটি কৃষ্ণনগরে। বিক্ষোভকারীদের দাবি, কৃষ্ণনগর গ্লোক্যাল কোভিড হাসপাতাল চালু হওয়ার পর থেকেই তাঁরা কর্মরত। বিক্ষোভকারীরা প্রায় ১২ ঘন্টা ডিউটি করেন।

কিন্তু তাঁদের মাসিক বেতন ৮ হাজার টাকা। যা দিয়ে বর্তমানে সংসার চলে না। দীর্ঘদিন ধরে কাজ করে যাদের সুস্থ করে তুলছেন তারা পরবর্তীতে ১৫ হাজার টাকা বেতনে কাজ পাচ্ছে ওই একই হাসপাতালে। অথচ তাঁরা প্রথমদিকে কাজ করে আসছে সেই ক্ষেত্রে তাঁদের বেতন নিয়ে কোনওরকম ভাবনা চিন্তা নেই স্বাস্থ্য দফতরের। যেহেতু বিক্ষোভকারীরা কোভিড হাসপাতালে কর্মরত সেই কারণেই তাঁদের সব সময় একটা আক্রান্তের ভয় থেকেই থাকে। তাঁরা মারা গেলে তাঁদের নেই কোন বিমার ব্যবস্থা। কিছু হয়ে গেলে সংসারের কি হবে? প্রশ্ন তোলেন বিক্ষোভকারীরা।  বিক্ষোভকারীরা জানিয়েছেন, তাঁদের এই দাবিগুলি না মানলে পরবর্তীকালে বড়োসড়ো আন্দোলনের পাশাপাশি কর্মবিরতি রাখারও হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তাঁরা।

Related Articles

Back to top button
Close