fbpx
আন্তর্জাতিকগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

ইরাক ও ইয়েমেন সৌদি জোটের হামলায় উত্তপ্ত মধ্যপ্রাচ্য

বাগদাদ ও সানা:  লাগাতার রকেট ও বিমান হামলায় উত্তপ্ত হয়ে উঠছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ইরাক ও ইয়েমেন। ইরাকের সেনাবাহিনী দাবি করেছে, বাগদাদ শহরে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কাছে একাধিক রকেট আঘাত হেনেছে। তবে, কোনও প্রাণহানি ঘটেনি। অন্যদিকে, দারিদ্রপীড়িত ইয়েমেনের রাজধানী সানায় সৌদি নেতৃৃত্বাধীন জোটের বিমান হামলায় অন্তত ১৬ বেসামরিক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন।

ইরাকের রাজধানী বাগদাদের পশ্চিমাঞ্চলের প্রত্যন্ত একটি এলাকা থেকে বেশ কয়েকটি রকেট লাঞ্চার ও রকেট খুঁজে পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে ইরাকের সামরিক বাহিনী। তবে বিমানবন্দরে কাছে রকেট আছড়ে পড়লেও এতে কোনো ক্ষয়ক্ষতি কিংবা হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। সৌদি সংবাদমাধ্যম আল-আরবিয়া জানিয়েছে, বাগদাদ বিমানবন্দরের কাছে তিনটি কাতিউসা রকেট আঘাত হেনেছে। এটি মূলত বিমানবন্দরে মার্কিন সামরিক বাহিনীর স্থাপনা লক্ষ্য করে ছোঁড়া হয়েছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে। একইসঙ্গে, সংবাদ সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, বাগদাদ বিমানবন্দরের কাছে রকেট হামলার দায় তাৎক্ষণিকভাবে কেউ বা কোনো সংগঠন স্বীকার করেনি। বিশ্লেষকদের মতে, এ নিয়ে গত কয়েকদিনের মধ্যে মার্কিন সামরিক বাহিনীর স্থাপনা লক্ষ্য করে ইরাকে অন্তত তিনবার রকেট হামলার ঘটনা ঘটল। উল্লেখ্য, মার্কিন নেতৃত্বাধীন সামরিক জোটের বৃহত্তম ঘাঁটি ক্যাম্প তাজি-তে কয়েকদিন আগে বেশ কয়েকটি রকেট আঘাত করে।

অন্যদিকে, মঙ্গলবার ভোর-রাতে সৌদি নেতৃত্বাধীন জোট বাহিনীর জঙ্গিবিমান ইয়েমেনের কুহে আল নাহদিন এবং কুহে আতানসহ সানার ছয়টি এলাকায় বোমা বর্ষণ করেছে বলে জানিয়েছে সংবাদ মাধ্যম আল-জাজিরা। এই হামলায় বহু বেসরকারি ইয়েমেনি হতাহত হয়েছে এবং অনেক ঘরবাড়ি ধ্বংস হয়েছে। এছাড়া, ইয়েমেনের উত্তরাঞ্চলীয় সীমান্তবর্তী প্রদেশ সাদার শাদা এলাকায় একটি গাড়িকে লক্ষ্য করে হামলা চালালে অন্তত ১৩ জন ব্যক্তি নিহত হয় বলে জানানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত সোমবার আরব লীগের মহাসচিব আহমাদ আবুল গেইত ইয়েমেনের মানবিক পরিস্থিতি নিয়ে হুঁশিয়ারি দেয়ার পর সেখানে সৌদি নেতৃত্বাধীন জোটের বর্বরোচিত হামলার খবর এলো। আবুল গেইত বলেছিলেন, বিশ্ব সমাজ যদি ইয়েমেন বিষয় এখনই সঠিক পদক্ষেপ না নেয় তাহলে দেশটি শিগগিরই ভেঙে পড়বে।

মহামারী করোনাভাইরাসের কারণে ইয়েমেনের মানুষ যখন নানা সমস্যার মধ্যে রয়েছে ঠিক তখনি সামরিক হামলার মাত্রা বাড়িয়ে দিয়েছে সৌদি আরব। ২০১৫ সালের মার্চ থেকে দরিদ্র প্রতিবেশী দেশ ইয়েমেনে হামলা চালিয়ে আসছে সৌদি আরব ও তার কয়েকটি মিত্র দেশ। সৌদি মদদপুষ্ট মানসুর হাদিকে ক্ষমতায় বসাতে এ আগ্রাসন শুরু করলেও এখন পর্যন্ত তাতে সফল হতে পারে নি রিয়াধ।

Related Articles

Back to top button
Close