fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

আমফানের ক্ষতিপূরণের ফর্ম জমাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা কাঁথিতে

নিজস্ব প্রতিনিধি, পূর্ব মেদিনীপুর: আড়াই মাস পরও আমফান ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে ক্ষতিপূরন না পেয়ে বিক্ষোভে সামিল হলেন এলাকায় স্থানীয় বাসিন্দারা। সোমবার কাঁথি ৩ ব্লক ও পটাশপুর ২ ব্লকের বিক্ষোভ দেখালেন এলাকা স্থানীয় বাসিন্দারা। বিক্ষোভের জেরে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। পূর্ব মেদিনীপুর জেলার আমফান ক্ষতিপুরনের ফর্ম জমাকে কেন্দ্র করে ফের উপ্তয় হয়ে উঠল পূর্ব মেদিনীপুর জেলার পটাশপুর। আবোদনকারী মহিলাদের পুলিশ লাঠিচার্চ করে বলে অভিযোগ। যদিও লাঠিচার্চের অভিযোগ পুরোপুরি অস্বীকার করেছে পুলিশ। সংবাদ মাধ্যম কর্মীদের ছবি তুলতেও বাধা দেয় পুলিশ। রীতিমতো ধমক দেওয়া হয় সংবাদ মাধ্যম কর্মীদের।

জানা গেছে, দীর্ঘ আড়াই মাস কেটে গেলেও এখনো পর্ষন্ত আমফান ক্ষতিগ্রস্তরা কোন ক্ষতিপূরন পায়নি। সোমবার দুপুরে পটাশপুর ২ ব্লকের ব্লক অফিসে এলাকা ক্ষতিগ্রস্ত মহিলারা ফর্ম জমা দিতে আসেন। আবেদন ফর্ম জমাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক উওেজনা ছড়িয়ে পড়ে। উওেজনা চরমে উঠলে ঘটনার স্থলে হাজির হয় পটাশপুর থানার পুলিশ। আবেদনকারী মহিলাদের উপর সিভিক ভলেন্টিয়ার ও পুলিশ লাঠিচার্জ করে বলে অভিযোগ। লাঠিচার্জের অভিযোগ পুরোপুরি অস্বীকার করেছে পুলিশ।

আবেদনকারী পটাশপুরে মথুরা গ্রামের বাসিন্দা সুজাতা প্যড়য়া অভিযোগ করে বলেন, আমফানে কয়েক মাস কেটে গেলেও এখনো পর্যন্ত কোনো ক্ষতিপূরণের টাকা পায়নি। ক্ষতিপূরণ না পেয়ে আবেদন ফর্ম জমা দিতে আসি। পুলিশ এসে সবাইকে মারধর করেছে। ফর্ম জমা দিতে দিচ্ছে না। এখান থেকে তাড়িয়ে দিচ্ছে। তিনি আরও অভিযোগ করে বলেন, এখানে কোন মহিলা পুলিশ ছিল না। সিভিক ভলেন্টিয়ার ও পুলিশ আমাদের মারধর করেছে। পটাশপুর থানার ওসি চন্দ্রকান্ত শাসমল বলেন, জমায়েত থাকায় সেখান থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। কোন লাঠিচার্জের ঘটনা ঘটেনি।

Related Articles

Back to top button
Close