fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

রানিগঞ্জে ইসিএলের খনিতে ভয়াবহ দূর্ঘটনা, আহত ১১

শুভেন্দু বন্দোপাধ্যায়, আসানসোল: বড় ধরনের দূর্ঘটনা থেকে বাঁচলো ইসিএলের কুনুস্তোরিয়া এরিয়ার রানিগঞ্জের বাঁশরা কোলিয়ারি। একইভাবে প্রাণে ভাগ্যক্রমে বাঁচেন কোলিয়ারির সেকেন্ড শিফটের কর্মীরা। খনিগর্ভে নামা ডুলি হুড়মুড়িয়ে ২৫ ফুট নেমে পড়ায় আহত হয়েছেন ১১ জন কর্মী। তারমধ্যে ৬ জনের আঘাত বেশি থাকায় তাদেরকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের চিকিৎসা চলছে এরিয়া হাসপাতালে। মঙ্গলবার বিকেল পৌনে পাঁচটার সময় বাঁশরা কোলিয়ারির সিপিটে এই ঘটনাটি ঘটে।

ইসিএল সূত্রে জানা গেছে, এদিন বিকেল পৌনে পাঁচটা নাগাদ বাঁশরা কোলিয়ারির সিপিটের কর্মীর সেকেন্ড শিফটের ডিউটি করতে ডুলি করে খনিগর্ভে নামছিলেন। আচমকাই সেই নামার সময় ডুলির গতি বেড়ে যায়। ভয়ঙ্কর ঝাঁকুনি দিয়ে সেই ডুলি প্রায় ২৫ ফুট উপর থেকে নিচে গিয়ে থামে। এই ঘটনায় ডুলিতে থাকা কর্মী আহত হয়। ঘটনার কথা জানাজানি হওয়ার পরে কোলিয়ারি চত্বরে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। কর্মীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। আধিকারিকরা খবর পেয়ে ছুটে আসেন। আহতদের উদ্ধার করে উপরে তোলা হয়। আহতদের মধ্যে ৩ জনকে দূর্গাপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতাল ও ৩ জনকে আসানসোলের কাল্লায় ইসিএলের সেন্ট্রাল
হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বাকি ৫ জনকে এরিয়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এই ঘটনার পরে কোলিয়ারির শ্রমিক সংগঠনের নেতারা একজোট হয়ে উচ্চপর্যায়ে তদন্তের দাবি করেছেন। তারা বলেন, বারবার এই ধরনের ঘটনা কেন ঘটছে কেন তা খতিয়ে দেখা হোক। নজরদারি ও গাফিলতির কারনে এই ঘটনা ঘটেছে। এরিয়ার সিপিআইয়ের শ্রমিক সংগঠন এআইটিইউসির নেতা অমর সিং বলেন, ১১ জন কর্মী ডুলিতে করে খনি গর্ভে কাজে নামার সময় ডুলির গতি আচমকাই বেড়ে গিয়ে নেমে যায়। বিদ্যুতে চলে এই ডুলি। নাসিরউদ্দিন মিয়া, রাম সেবক চৌহান ও বাবলু মাঝিকে আহত অবস্থায় দূর্গাপুরের বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আমরা গোটা ঘটনার তদন্ত চেয়েছি।

অন্যদিকে ই সি এলের ডিরেক্টর ( অপারেশন) বি ভিরা রেড্ডি বলেন, কোলিয়ারির জেনারেল ম্যানেজার বিষয়টি জানিয়েছেন। বিদ্যুতে চলা এই ডুলির গতি কেন বেড়ে গেলো, ইঞ্জিনের গন্ডগোল না, যে তা চালাচ্ছিলেন তার কোন গাফিলতি ছিলো কিনা তা তদন্ত না করে এখনই বলা যাবেনা। আহতদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। গোটা ঘটনার তদন্তেরও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

Related Articles

Back to top button
Close