fbpx
কলকাতাহেডলাইন

সংক্রমণের থাবা সরাসরি মুখ্যমন্ত্রী পরিবারে, আক্রান্ত অভিষেকের স্ত্রী রুজিরা

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পারিবারে করোনার সংক্রমণ ধরা পড়ল। আক্রান্ত হয়েছেন মুখ্যমন্ত্রীর ভাইপো তথা যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্ত্রী রুজিরা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁকে সোমবার রাতে অ্যাপোলো হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। বাইপাস সংলগ্ন এই হাসপাতালে কোভিডের সংক্রমণ নিয়ে ভর্তি রয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। তা ছাড়া করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছে বিধাননগরের ডেপুটি মেয়র তাপস চট্টোপাধ্যায়ের শরীরেও। তাপসবাবুকেও অ্যাপোলো হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সূত্রের খবর, বেশ কয়েকদিন ধরেই রুজিরার শরীরে করোনা সংক্রমণের নানা উপসর্গও দেখা দিচ্ছিল। অসুস্থতা ক্রমশই বাড়তে থাকে। সোমবারই তাঁর কোভিড টেস্ট করানো হয়। রিপোর্ট হাতে আসার পরই জানা যায় রুজিরা করোনা আক্রান্ত। এরপর আর কোনও ঝুঁকি নেওয়া হয়নি। ওই রাতেই তাঁকে বাইপাসের ধারে এক বেসরকারি হাসপাতালে ভরতি করা হয়। গত বছরই পুত্রসন্তানের মা হয়েছেন রুজিরা। তাঁর মেয়ে আজানিয়াও যথেষ্ট ছোট। খুদে আয়াংশ এবং আজানিয়ার মা রুজিরা সংক্রমিত হওয়ায় স্বাভাবিকভাবেই উদ্বেগে গোটা পরিবার।

এদিকে, করোনা সংক্রমিত বিধাননগরের ডেপুটি মেয়র তাপস চট্টোপাধ্যায়ও। তাঁকেও সোমবার রাতেই বাইপাসের ধারে ওই বেসরকারি হাসপাতালে ভরতি করা হয়েছে। তাঁর শরীরেও করোনার নানা উপসর্গ দেখা দিয়েছিল। তাতেই সন্দেহ হওয়ায় কোভিড টেস্ট করানো হয়। পরে রিপোর্টে জানা যায় আশঙ্কাই সত্যি হয়েছে। করোনা থাবা বসিয়েছে বিধাননগরের ডেপুটি মেয়র তাপসবাবুর শরীরেও।

আরও পড়ুন: বারবার সংঘর্ষ, এবার চিনকে ‘শিক্ষা’ দিতে আসছে অ্যাপাচে হেলিকপ্টার

ইতিমধ্যেই শাসকদলের বেশ কয়েকজনের শরীরেই করোনা থাবা বসিয়েছে। সম্প্রতি আক্রান্ত হয়েছেন রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। আগে দমকলমন্ত্রী সুজিত বসু এবং সৌমেন মহাপাত্রও কোভিড আক্রান্ত হন। তাছাড়াও শিবপুরের বিধায়ক জটু লাহিড়ী, মহেশতলার বিধায়ক দুলাল দাস, চোপড়ার বিধায়ক রুকবানুর রহমান, জাঙ্গিপাড়ার বিধায়কও করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন। ঘটেছে প্রাণহানিও। করোনা আক্রান্ত ফলতার বিধায়ক তথা তৃণমূলের কোষাধ্যক্ষ তমোনাশ ঘোষ ও এগরার তৃণমূল বিধায়ক সমরেশ দাসের মৃত্যু হয়েছে।

 

 

Related Articles

Back to top button
Close