fbpx
কলকাতাহেডলাইন

পার্কস্ট্রিটে হাড়হিম করা ঘটনা, কেন ঘটালেন তিনি, নিজে মুখেই জানালেন হামলাকারী

যুগশঙ্খ, ওয়েবডেস্ক: পার্ক স্ট্রিটের হাড় হিম করা ঘটনা নিয়ে এখনও আতঙ্কিত রাজ্যবাসী। গতকাল সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায় এই ঘটনার সূত্রপাত হলেও প্রায় কয়েক ঘণ্টার রুদ্ধশ্বাস নাটকের পর হামলাকারী অক্ষয় মিশ্রকে গ্রেফতার করে পুলিশ। হামলাকারী একজন সিআইএসএফ-এর হেড কনস্টেবল। নাম অক্ষয় মিশ্র। খুব স্বাভাবিক ভাবে প্রশ্ন উঠেছে যার হাতে নিরাপত্তার দায়িত্ব তিনি এই কাজ করলেন কিভাবে? কিন্তু কেন তিনি এই কাজ করেছেন তা জানিয়েছেন ওড়িশার ঢেঙ্কানলের বাসিন্দা অক্ষয় মিশ্র। সেই সঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, তিনি যে কাজ করেছেন তার জন্য নিজের কোনও অনুশোচনা নেই। গতকাল তাই গুলিতে মৃত্যু হয় এক সিআইএসএফ জওয়ানের। ইন্ডিয়ান মিউজিয়ামের পিছনের দিকে গুলি চালান এক সিআইএসএফ জওয়ান।

শনিবার পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণের পর অভিযুক্ত জওয়ান অক্ষয় মিশ্র জানান, ‘ডিপার্টমেন্টের লোক জ্বালাতন করত, তাই এই কাজ করেছি।’ গত বুধবার এ কে মিশ্রের বাবা মারা যাওয়ায় তিনি ছুটির আবেদন করেছিলেন। তবে সেই ছুটি তিনি পাননি। বিগত দু’মাস ধরে অভিযুক্তের সঙ্গে সহকর্মীরা সবাই ঠাট্টা ইয়ার্কি করত বলেও খবর। মনে মনে রাগ পুষেছিলেন তিনি। তার বহিঃপ্রকাশ ঘটে শনিবার ভরসন্ধ্যায়। প্রায় ২৫-৩০ রাউন্ড গুলি চলে। পুলিশের দাবি ১৫ রাউণ্ড গুলি চলেছে।

আর এই এলোপাথাড়ি গুলিতে প্রাণ গেছে একজনের। অন্যদিকে সূত্রের আরও খবর, গতকাল রাতে ঝগড়ার পর আজ সকাল থেকে চুপচাপ ছিলেন অভিযুক্ত কনস্টেবল। ঠাট্টা, ইয়ার্কির পরিণাম যে এমন ভয়ঙ্কর হতে পারে তা কিন্তু এক কথায় চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল পার্ক স্ট্রিটের হাড় হিম করা ঘটনা। ঘটনার দিন অভিযুক্তের রাইফেল ব্যারাকেই ছিল। সহ কর্মীর A K 47 রাইফেল ছিনিয়ে নিয়ে গুলি চালান অক্ষয়। যে গুলির দাগ ইতিমধ্যেই ফরেন্সিক দল উদ্ধার করেছে। ১৫ রাউন্ড গুলির মধ্যে মেলে ১৪টি গুলির চিহ্ন। যাদের মধ্যে ১৩টি ঘটনাস্থলে এবং ১টি গাড়িতে। এমটাই খবর।

তবে বিস্ফোরক তথ্য হল অভিযুক্তের টার্গেটে ছিলেন না এএসআই রঞ্জিত ষড়ঙ্গী। বরং তাঁর লক্ষে ছিলেন ইনস্পেক্টর সমাদ্দার, সূত্র মারফত এমনটাই জানা গিয়েছে। ভারতীয় মিউজিয়ামের বিশেষ সূত্র থেকে জানা যাচ্ছে, শনিবারের ঘটনাটি যখন সামনে আসে তখন জানা যায় অক্ষয় মিশ্র এলোপাথাড়ি গুলি ছুড়েছিলেন। আর সেই গুলি গিয়ে লেগেছে ইনস্পেক্টর সমাদ্দারের। পরবর্তীতে যদিও জানতে পারা যায়, তিনি প্রাণে বেঁচে গিয়েছেন। গুলি লেগেছে এএসআই-এর।

জানা যায়, গুলি চলতেই সমাদ্দার দৌড়ে পালিয়ে যান। এরপর জাদুঘরের ভিতরে গিয়ে আশ্রয় নেন তিনি। এরপরই উঠে আসে চাঞ্চল্যকর তথ্য। অভিযুক্ত অক্ষয় মিশ্রের রাগ ছিল ইনস্পেক্টর সমাদ্দারের উপরই। কারণ ছুটি পাওয়া নিয়ে যে গণ্ডগোল হচ্ছিল তাও অক্ষয়ের সঙ্গে ইনস্পেক্টরের চলছিল। ফলত, তাঁকেই টার্গেট করে গুলি করার চেষ্টা করেন অভিযুক্ত জওয়ান। কিন্তু লক্ষ্যভ্রষ্ট হন। ইনস্পেক্টর সমাদ্দার পালিয়ে যেতেই এলোপাথাড়ি গুড়ি চালাতে থাকেন অক্ষয়। এমনটাই অভিযোগ।

 

Related Articles

Back to top button
Close