fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

কেন্দ্রের বিজেপি সরকার নীলকর যুগ ফেরাতে চাইছে: বেচারাম মান্না

অভিষেক গঙ্গোপাধ্যায়, কলকাতা: ফের নীল বিদ্রোহ চাইনা। তোপ দাগলেন তৃণমূল বিধায়ক বেচরাম মান্না। মঙ্গলবার ধর্মতলার মেয়োরোডে গান্ধী মূর্তির পাদদেশে দেশব্যাপী কৃষক আন্দোলনের সপক্ষে অবস্থান বিক্ষোভে সামিল হয়েছিল তৃণমূল কৃষক সংগঠন। সেখানে উপস্থিত বেচরাম এ কথা জানান। তিনি বলেন, ‘নীল বিদ্রোহকে ফিরিয়ে আনতে চাই না।’

কৃষি আইনের প্রতিবাদে মঙ্গলবার ভারত বনধের ডাক দিয়েছ কৃষক সংগঠনগুলি। কৃষি আইনের প্রতিবাদে বনধকে সমর্থন করে দেশজুড়ে বিক্ষোভ দেখাচ্ছে বাম – কংগ্রেস। বাম – কংগ্রেসের পাশাপাশি এবার কৃষি আইনের প্রতিবাদে বনধকে সমর্থন করছে তৃণমূলও। কৃষি আন্দোলনের সমর্থনে এদিন গান্ধী মূর্তির পাদদেশে প্রতিবাদে সামিল রাজ্যের শাসক দল। কৃষি আইনের প্রতিবাদে কৃষক সংগঠনগুলি এদিন সকাল ১১ টা থেকে দুপুর ৩ টে পর্যন্ত বনধের ডাক দিয়েছে। আর সেই আন্দোলনকে সমর্থন জানিয়ে কলকাতার বেশ কিছু জায়গায় মিছিল, মিটিং চলছে। ইতিমধ্যেই পথে নেমেছে বাম – কংগ্রেস।

অন্যদিকে গান্ধী মূর্তির পাদদেশে প্রতিবাদ কর্মসূচিতে শামিল তৃণমূল। মঙ্গলবার সকাল থেকেই সেখানে শুরু হয়েছে সভা। কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে আজ থেকে টানা তিনদিন ধরে চলবে এই অবস্থান বিক্ষোভ। এদিন বিক্ষোভের নেতৃত্ব দেন হরিপালের তৃণমূল বিধায়ক বেচারাম মান্না। বেচরাম মান্না বলেন, ‘কৃষকদের স্বার্থে সিঙ্গুর নন্দীগ্রামের আন্দোলনের নেতৃত্ব দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কৃষকের বিপদের দিনে তিনি আবারও এসে দাঁড়িয়েছেন। এর আগে তার নির্দেশে আমরা প্রতিবাদ করেছি পশ্চিমবঙ্গের প্রতিটা মাঠে ঘাটে। প্রতিবাদ করেছি, বিক্ষোভ হয়েছে, এখানেও আমরা অবস্থান করেছি।

তিনি আরও বলেন, কৃষকরা কেন্দ্রের এই আইন মানছে না। কৃষক চাইছে আমার ফসোলের মূল্য নিজে নির্ধারণ করতে। চুক্তি চাষের মধ্যে দিয়ে নিজেদের জমি বিক্রি করতে চাইছি না। তাই প্রতিবাদে নিজেদের জমির ফসল দিয়ে নিজেদের প্রতিবাদ ভাষায় ফুটিয়ে তুলেছে। আমরা সারা পশ্চিমবঙ্গ জুড়েই আন্দোলনে নেমেছি। এই আইন নরেন্দ্র মোদিকে বাতিল করতেই হবে। তার জন্য দেশজুড়ে আন্দোলন চলছে। কৃষক বঞ্চনা করে কেউ নিজেকে ধরে রাখতে পারেনি। সিপিএম তার জলজ্যান্ত উদাহরণ। বিজেপি-র একি হাল হবে। আমাদের নেত্রীর নির্দেশে এই আন্দোলন আরও সুদীর্ঘ হবে আগামী দিনে।’

Related Articles

Back to top button
Close