fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

দিনহাটায় দলীয় কার্যালয় ভাংচুরের প্রতিবাদে ডেপুটেশন বিজেপির

নিজস্ব প্রতিনিধি, দিনহাটা: বিজেপির দলীয় কার্যালয় ভাংচুরের প্রতিবাদে আন্দোলনে নামল বিজেপি। দলের পক্ষ থেকে ভাংচুরের ঘটনায় দিনহাটা থানায় লিখিত অভিযোগ জানানো সত্বেও অভিযুক্তরা গ্রেফতার না হওয়ায় থানায় বিক্ষোভ দেখিয়ে সরব হল কর্মী সমর্থকরা। ঘটনার পর পুলিশে অভিযোগ জানানো সত্ত্বেও প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোনরকম পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ তুলে অবিলম্বে দোষীদের গ্রেফতারের দাবিতে সোচ্চার হল বিজেপি। বুধবার দলের পক্ষ থেকে দিনহাটা থানায় বিক্ষোভ দেখানোর পাশাপাশি অবিলম্বে দোষীদের গ্রেফতারের দাবিতে সরব নেতৃত্বরা।

এদিন দিনহাটা থানায় বিক্ষোভ চলাকালীন নেতৃত্ব দেন কোচবিহার জেলা সম্পাদক সুদেব কর্মকার, শহর মন্ডল সভাপতি অমিত সরকার, সহ সভাপতি বিপ্লব কুমার মন্ডল, চঞ্চল রায়, মুন্না সাউ, হিমাংশু দাস, ধর্মেন্দ্র সিংহ প্রমুখ। এদিন বিক্ষোভ চলাকালীন সুদেব কর্মকারের নেতৃত্বে এক প্রতিনিধি দল দিনহাটা মহকুমা পুলিশ আধিকারিক মানবেন্দ্র দাসের সঙ্গে দেখা করে দাবি পত্র তুলে দেন। পাশাপাশি এই ঘটনায় অভিযুক্তদের গ্রেফতারের দাবি জানানো হয়। এদিন বিজেপির পক্ষ থেকে দিনহাটা থানায় বিক্ষোভের পাশাপাশি ডেপুটেশন তুলে দেওয়ার সময় সেখানে পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার লালটু হালদার, মহকুমা পুলিশ আধিকারিক মানবেন্দ্র দাস, দিনহাটা থানার আইসি সঞ্জয় দত্ত উপস্থিত ছিলেন।

বিজেপির দলীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ইতিপূর্বে একাধিকবার তাদের দলীয় কার্যালয় ভাংচুর করা হয়। প্রতি ক্ষেত্রেই দিনহাটা পুরসভার প্রশাসক বিধায়ক উদয়ন গুহ নিজে দাঁড়িয়ে থেকে কিংবা তার নির্দেশে এই ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। অভিযুক্তদের অবিলম্বে গ্রেফতার করা না হলে আগামীতে দুর্বার আন্দোলনে নামার হুমকি দেওয়া হয়।

বিজেপির কোচবিহার জেলা সম্পাদক সুদেব কর্মকার বলেন, “দলীয় কার্যালয় ভাঙচুর নিয়ে থানায় বিক্ষোভ ও ডেপুটেশন দেওয়া হয়। অবিলম্বে অভিযুক্তদের গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছি। নাহলে পুলিশ প্রশাসনের বিরুদ্ধে আন্দোলন গড়ে তুলবো।”

মহকুমা পুলিশ আধিকারিক মানবেন্দ্র দাস বলেন, “বিজেপির দাবি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।” এই প্রসঙ্গে জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার লালটু হালদার বলেন, “অভিযোগের ভিত্তিতে সবকিছু খতিয়ে দেখা হচ্ছে। আইন অনুযায়ী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

Related Articles

Back to top button
Close