fbpx
কলকাতাহেডলাইন

বাঙালি আবেগ উসকে দিতে সমারোহে ‘বাইশে শ্রাবণ’ উদযাপনের পরিকল্পনা বিজেপির

শরণানন্দ দাস, কলকাতা: ষোলোআনা বাঙালিয়ানা। বাঙালির প্রাণের কবি রবীন্দ্রনাথের প্রয়াণ দিবস সমারোহে পালন করবে বঙ্গ বিজেপি। একুশের মহারণের আগে বাঙালির দল হিসাবে প্রমাণ করার সুযোগ ছাড়তে চায় না গেরুয়া শিবির। যেহেতু শাসকদলের পক্ষে বিজেপির বিরুদ্ধে একটা প্রচার করা হয় গেরুয়া শিবির অবাঙালির দল। সেই অপবাদ ঘোচাতে একুশের আগে বাইশে শ্রাবণকেই হাতিয়ার করছে বিজেপি। বাইশে শ্রাবণের সকালে ঠিক ৯ টায় নিমতলা মহাশ্মশানে রবীন্দ্র স্মৃতি সৌধে কবিগুরুকে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ করবেন রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ ও সহ-সভাপতি প্রতাপ বন্দ্যোপাধ্যায়। এরপর দিনভর রবীন্দ্র স্মরণে নানা অনুষ্ঠান।

বিজেপির রাজ্যসভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘রবীন্দ্রনাথ কারও একার নয়। রবীন্দ্রনাথ, নজরুল সবার কবি। আমরা এবার যথাযথ মর্যাদায় রবীন্দ্র প্রয়াণ দিবস পালন করবো। রাজ্য দফতরে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হবে।’ দলের সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু বলেন, ‘আমরা প্রতিবছরই কবিগুরুর প্রয়াণ দিবসে কবিকে স্মরণ করি। তবে আগে দল ছোট ছিল, সবার নজরে আসতো না। মিডিয়াও প্রচার করতো না। এখন দল বড়ো হয়েছে, তাই বড়ো করে আয়োজন। জেলায় জেলায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হবে।’

সূত্রের খবর, বিজেপি রাজ্য দফতরের বাইরে মঞ্চ বেঁধে রবীন্দ্র প্রয়াণ দিবসে শ্রদ্ধাঞ্জলি অনুষ্ঠান হবে। রাজ্য নেতাদের পাশাপাশি দলের শিল্পী, বুদ্ধিজীবীরা অংশ নেবেন। রাজ্যের প্রতিটি ব্লকে বাইশে শ্রাবণ পালনের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। শহরজুড়েও বিভিন্ন মণ্ডলে পালিত হবে কবির স্মরণ অনুষ্ঠান।এক কথায় পাড়ায় পাড়ায় বাইশে শ্রাবণের ঢেউ পৌঁছে দেওয়াই গেরুয়া শিবিরের উদ্দেশ্যে। বিজেপির উত্তর কলকাতার সভাপতি শিবাজী সিংহ রায় জানালেন, ‘ বাইশে শ্রাবণে ঠিক সকাল ১০ টা ২০ মিনিটে নিমতলা মহাশ্মশানে যেখানে কবিকে দাহ করা হয়েছিল আমরা বিজেপির উত্তর কলকাতা জেলার পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা জানাবো। আমি, তিন কাউন্সিলর মীনাদেবী পুরোহিত, সুনীতা ঝাওয়ার, বিজয় উপাধ্যায়সহ যুবমোর্চার কর্মীরাও থাকবেন। প্রত্যেকটি ওয়ার্ডে রবীন্দ্র স্মরণ অনুষ্ঠান হবে।’ এদিন বিকেলে রাজ্য দফতরে ‘ আমার পরিবার বিজেপি পরিবার’ কর্মসূচির সূচনা হবে।

আরও পড়ুন: গেরুয়াময় নিউ ইয়র্কের টাইমস স্কোয়্যার, বিলবোর্ডে ভেসে উঠল রাম মন্দিরের ছবি

বাঙালির বিরাট আবেগ রবীন্দ্রনাথকে ঘিরে। সেই আবেগটাকেই তুরুপের তাস করতে চায় বঙ্গ বিজেপি। কবি বলেছিলেন, ‘ আমি তোমাদেরই লোক এই হোক মোর শেষ পরিচয়।’ একুশের আগে কবিকে ঘিরেই বাংলার মানুষের ‘ তোমাদের লোক’ হওয়ার আবেগের লড়াইয়ে তৃণমূলকে টেক্কা দিতে মরিয়া বিজেপি।

Related Articles

Back to top button
Close