fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

নিখোঁজ থাকার পর বিজেপি কর্মীর মৃতদেহ উদ্ধার, উত্তেজনা জুনপুটে

মিলন পণ্ডা, কাঁথি: নিখোঁজ থাকার পর পুকুর থেকে এক বিজেপি কর্মীর মৃতদেহ উদ্ধার ঘিরে এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়েছে। রবিবার সকালে স্থানীয় বাসিন্দারা পুকুরে ভাসতে দেখতে পান। ঘটনা জানাজানি হতেই লকডাউনে মাঝে গ্রামে কাতারে কাতারে মানুষ ভিড় জমায়। ঘটনার খবর পেয়ে ছুটে আসে জুনপুট উপকূল থানার পুলিশ। পুকুর থেকে মৃতদেহ উদ্ধার করে নিয়ে যায়। পুলিশ জানিয়েছে মৃত দুলাল মাইতি (৩৫)। তার বাড়ি জুনপুট উপকূল থানা হামিরপুর গ্রামে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, দুলালবাবু এলাকায় সক্রিয় বিজেপি কর্মী ছিলেন। শুক্রবার সন্ধ্যায় বাড়ি থেকে আচমকাই নিখোঁজ হয়ে যায় ওই বিজেপি কর্মী। এরপর আর ওই বিজেপি কর্মী বাড়ি ফিরে আসেনি। গভীর রাত থেকে শনিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত পরিবারের লোকেরা খোঁজাখুঁজি করলে কোন সন্ধান পাননি। মোবাইলে যোগাযোগ করলে বন্ধ রয়েছে। সন্ধ্যায় জুনপুট উপকূল থানায় মৌখিকভাবে জানায় মৃত বিজেপি কর্মীর পরিবারের লোকেরা।

আরও পড়ুন: কলকাতা পৌর নিগমের প্রশাসক বোর্ড নিয়ে সিঙ্গেল বেঞ্চের নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করে ডিভিশন বেঞ্চে মামলা দায়ের

স্থানীয় বিজেপি নেতা নীলেশ মণ্ডল বলেন, দুলাল মাইতি সক্রিয়ভাবে বিজেপি কর্মী ছিলেন। দুদিন আগে রহস্যজনকভাবে বাড়ি থেকে বেরিয়ে আর বাড়ি ফেরেননি। সকালে স্থানীয় বাসিন্দারা পুকুরে মৃতদেহ ভাসতে দেখেন। তিনি আরও বলেন, কে বা কারা খুন করে প্রমাণ লোপাটের জন্য পুকুরে ফেলে দিয়েছে। পুলিশ তদন্ত করলে প্রকৃত তথ্য উঠে আসবে।

জুনপুট উপকুল থানার ওসি রাজু কুণ্ডু বলেন, সকালে মৃতদেহ উদ্ধার করে কাঁথি মহকুমা হাসপাতালে ময়না তদন্তে পাঠানো হয়েছে। ময়না তদন্তের রির্পোট এলে মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে। এটি খুন নাকি দুর্ঘটনা তা জানা যাবে। ওসি আরও বলেন, যদিও পরিবারের পক্ষ থেকে কোন লিখিত অভিযোগ দায়ের করেননি। অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রুজু করে তদন্ত শুরু করা হয়েছে।

পূর্ব মেদিনীপুর জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক কনিষ্ক পন্ডা বলেন, প্রত্যেক মৃত্যু দুর্ভাগ্যজনক। এই মৃত্যুর ঘটনার সঙ্গে কোন রাজনৈতিক যোগ নেই। পুলিশ তদন্ত করলে প্রকৃত তথ্য প্রকাশ পাবে।

Related Articles

Back to top button
Close