fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

বাড়ির কুয়ো থেকে উদ্ধার নিখোঁজ প্রৌঢ়ার দেহ, আটক ছেলে

শুভেন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়, আসানসোল: প্রায় ২৪ ঘন্টা ধরে নিখোঁজ স্কুল এক প্রৌঢ়ার মৃতদেহ রবিবার দুপুরে উদ্ধার করা হলো বাড়ির কুয়ো থেকেই৷ এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে আসানসোলের কুলটি থানার আসানসোল পুরনিগমের ৬৪ নং ওয়ার্ডের কুলটি নেহেরু স্টেডিয়াম সংলগ্ন শিশুমঙ্গল স্কুল এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। মৃত প্রৌঢ়ার নাম শান্তি দত্ত (৫৮)। এদিন বিকালে আসানসোল জেলা হাসপাতালে প্রৌঢ়ার মৃতদেহর ময়নাতদন্ত করা হয়। পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করার পরে প্রৌঢ়ার একমাত্র ছেলে অরুপ দত্তকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে যায়। কিন্তু সন্দেহজনক কিছু না মেলায় তাকে পরে ছেড়ে দেওয়া হয়। ময়নাতদন্তের পরে প্রৌঢ়ার মৃতদেহ পুলিশ জেলা হাসপাতালে ছেলের হাতেই তুলে দেয়। পুলিশ এই ঘটনায় একটি অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা করে তদন্ত শুরু করেছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, শান্তি দত্ত নামে ওই প্রৌঢ়া কুলটির শিশুমঙ্গল স্কুল এলাকায় ছেলে ও বৌমার সঙ্গে থাকতেন। শান্তিদেবী শনিবার বিকেল তিনটের পর থেকে নিখোঁজ ছিলেন বলে ছেলে এলাকার বাসিন্দাদের বলেছিলো।

রবিবার সকালে এলাকার বাসিন্দারা জানতে পারেন যে, ছেলে অরুপ বাড়ির কুয়োয় কাঁটা ফেলে কিছু তোলার চেষ্টা করছে। সেই খবর পেয়ে এলাকায় আসেন ৬৪ নং ওয়ার্ডের প্রাক্তন কাউন্সিলর কৃষ্ণা প্রসাদ দাস। আসে কুলটি থানার পুলিশ। আসানসোল থেকে দমকলের একটি ইঞ্জিন নিয়ে দমকলকর্মীরা ঘটনাস্থলে আসেন। বেশ কিছুক্ষণের চেষ্টায় দমকলকর্মীরা কুয়ো থেকে শান্তি দেবীর দেহ উদ্ধার করে। সেই সময় তার পরনে ছিল সায়া ও ব্লাউজ। স্বাভাবিক ভাবেই এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে।

এই ঘটনা সম্পর্কে এলাকার প্রাক্তন কাউন্সিলর কৃষ্ণা প্রসাদ বলেন, অরুপ দত্ত নামে ওই যুবক শনিবার বিকালের পরে তার মা নিখোঁজ বলে প্রতীবেশীদের জানিয়েছিলো। এদিন দুপুরে তার মায়ের মৃতদেহ বাড়ির কুয়ো থেকে উদ্ধার করা হয়। তিনি বলেন, ছেলে অরুপ দত্ত তার মাকে প্রায় মারধর করতো বলে আমার কাছে খবর আছে। এলাকার বাসিন্দারা আমাকে বলেছেন তার কারন সম্পত্তি ও মায়ের কাছে থাকা টাকা। সেই কারণে সে মাকে মারধর করত। পুলিশ গোটা ঘটনার তদন্ত করে দেখুক। পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করার পরে ছেলেকে আটক করে থানায় নিয়ে গেছে।

এলাকার বাসিন্দারা বলেন, এদিন সকালে ছেলে কুয়ো থেকে কিছু তুলছিল তা আমরা দেখতে পাই। তখন আমরা প্রাক্তন কাউন্সিলকে খবর দিই। যদিও ছেলে অরুপ দত্ত মাকে মারধর করার কথা অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, এইরকম কোনও ঘটনাই ঘটেনি। মাকে শনিবার বিকেল তিনটের পর থেকে খুঁজে পাচ্ছিলাম না। তা এলাকার বাসিন্দাদের বলেছিলাম। যে মাঠে মা বেড়াতে যান, সেখানেও খুঁজেছিলাম। মায়ের শাড়ি কুয়োর পাশে থাকতে দেখেছিলাম। এদিন সকালে কুয়োতে কাঁটা ফেলে খুঁজছিলাম। তখন কাঁটায় কিছু একটা লাগে। তখন আমি পুলিশকে বলি। আমার বিরুদ্ধে সব অভিযোগ মিথ্যে।

আরও পড়ুন: Breaking: করোনা আক্রান্ত বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডা

অন্যদিকে, আসানসোল দূর্গাপুর পুলিশের ডিসিপি পশ্চিম বিশ্বজিৎ মাহাতো এদিন বলেন, নিখোঁজ প্রৌঢ়ার দেহ তার বাড়ির কুয়ো থেকে উদ্ধার করা যায়। ছেলেকে আটক করে প্রাথমিক তদন্তের জন্য জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। তদন্ত শুরু হয়েছে। কেউ অভিযোগ করলে ছেলেকে আবার জেরা করা হবে।

প্রাথমিকভাবে পুলিশের অনুমান, কোনভাবে কুয়োতে পড়ে গিয়ে জলে ডুবে প্রৌঢ়ার মৃত্যু হয়েছে। শরীরের কোন কোন আঘাতের চিহ্ন নেই। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে জানা যাবে যে, প্রৌঢ়ার ঠিক কি কারণে মৃত্যু হয়েছে।

Related Articles

Back to top button
Close