fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

আমবাগান থেকে সিঁদূর পরা অবস্থায় ছাত্রীর দেহ উদ্ধার, প্রেমিকের বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ

মিল্টন পাল, মালদা: আমবাগান থেকে এক কলেজ ছাত্রীর সিঁদূর পরা অবস্থায় ঝুলন্ত মৃতদেহ ঘিরে চাঞ্চল্য। মৃতের ছাত্রীর পরিবার প্রেমিক অমিত মণ্ডলের বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ দায়ের করেছেন থানায়। বুধবার মালদার মানিকচক থানার নাজিরপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের হরিপুর গ্রামে ঘটনাটি ঘটেছে। ওই ছাত্রীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধারের পর থেকেই গা-ঢাকা দিয়েছে অভিযুক্ত প্রেমিক অমিত মণ্ডল। মৃতদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃত ছাত্রীর নাম কাবেরী মণ্ডল (১৮)। সে মানিকচক কলেজের কলা বিভাগের প্রথম বর্ষের পড়াশোনা করত। মঙ্গলবার ওই ছাত্রীর জন্মদিন ছিল। আর সেই জন্মদিনে বন্ধু বান্ধবদের সঙ্গে পালন করার জন্যই বাড়ি থেকে বেরিয়েছিলেন কাবেরী। কিন্তু রাতে বাড়ি না ফেরায় ওই ছাত্রীর খোঁজ শুরু করেন পরিবারের লোকেরা। এরপরই বুধবার ভোরে বাড়ি থেকে দুই কিলোমিটার দূরে একটি আম বাগানের মধ্যে রহস্যজনক অবস্থায় ওই ছাত্রীর ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার হয়।

আরও পড়ুন:রাম মন্দিরের শিল্যানাসে বদ্রীনাথের মাটি, অলকানন্দা নদীর জল যাচ্ছে অযোধ্যায়

পুলিশ আরও জানান, মৃত ছাত্রীর পরনে ছিল চুরিদার। ওড়না দিয়ে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় গাছের সঙ্গে ঝুলছিল ওই ছাত্রীর দেহ। যদিও মৃতদেহটির পা মাটির সঙ্গে ঠেকানো অবস্থায় ছিল। পায়ের জুতো দুটিও খোলা ছিল। পাশাপাশি মৃত ছাত্রীর মাথায় সিঁদূর লাগানো ছিল। তাতেই পুলিশের প্রাথমিক অনুমান, রাতেই হয়তো প্রেমিক অমিত মণ্ডলকে বিয়ে করেছিল কলেজ পড়ুয়া ওই ছাত্রী। এরপর কি ঘটনা ঘটলো যাতে করে ওই ছাত্রীর রহস্যজনক অবস্থায় দেহ উদ্ধার হয়।

মৃত ছাত্রীর পরিবারের অভিযোগ,কাবেরীকে শ্বাসরোধ করে খুন করার পরই গলায় ওড়না জড়িয়ে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। আর এই ঘটনার পিছনে ওই ছাত্রীর প্রেমিক অমিত মণ্ডল যুক্ত রয়েছে।

মৃত ছাত্রীর বাবা শম্ভু মণ্ডলের সঙ্গে কথা বলে প্রাথমিক ভাবে পুলিশ জানতে পেরেছে, অমিতের সঙ্গে কাবেরীর প্রেমের সম্পর্ক প্রায় দেড় বছরের । তারা বিয়েও করতে চেয়েছিল। তাদের প্রেমের সম্পর্ক কাবেরীর বাড়ির লোকজন মেনে নিয়েছিল কিন্তু তাদের বিয়েতে ঘোর অমত ছিল অমিতের বাবা-মায়ের। তারা এই সম্পর্ক মেনে নিতে পারেননি। মঙ্গলবার ছিল কাবেরীর জন্মদিন। মা-বাবার নিষেধ সত্ত্বেও বন্ধুবান্ধবদের নিয়ে জন্মদিন পালন করবে বলে বাড়ি থেকে বের হয়। কিন্তু আর বাড়ি ফেরেনি কাবেরী। রাতে হয়তো পাশের গ্রামের মাসির বাড়িতে আছে বলে নিশ্চিন্ত ছিলেন কাবেরীর বাড়ির লোকজন। কাবেরীর মাথার সিঁদূর দেখে গ্রামবাসী এবং পরিবারের লোকেদের অনুমান গতকাল রাতে অমিত ও কাবেরী বিয়ে করে। তারপর কি ঘটনা ঘটেছে সেটাই রহস্য।

আরও পড়ুন:করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শতাব্দী রায়ের বাবা

পুলিশ সুপার অলোক রাজোরিয়া জানান, ওই কলেজ ছাত্রীর রহস্যজনক মৃত্যু নিয়ে প্রেমিক অমিত মন্ডলের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের হয়েছে। মৃতদেহ ময়নাতদন্তে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার পর থেকে ওই প্রেমিক অমিত মণ্ডল পলাতক। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে মানিকচক থানার পুলিশ।

Related Articles

Back to top button
Close