fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

পাত্রী নাবালিকা, বিয়ে করতে এসেও প্রশাসনের তৎপরতায় ফিরে যেতে হল পাত্রকে

মিলন পণ্ডা, পূর্ব মেদিনীপুর: পাত্রীর বাড়িতে এসেই বিয়ে না করেই ফিরে যেতে হল পাত্রকে। সানাই মূর্ছনার বিয়ে খাওয়া দাওয়া প্রায় শেষের পথে। বিয়ের আয়োজন সম্পন্ন‌‌। পাত্র থেকে বর যাত্রীরা পাত্রীর বাড়িতে এসে পৌঁছেছে। পাত্র দেখতে প্রতিবেশী থেকে গ্রামবাসীরা মেয়ের বাড়িতে ভিড় জমতে শুরু হয়েছে। প্রশাসনের তৎপরতায় ভেস্তে গেল বিয়ে অনুষ্ঠান। রাতেই মেয়ের বাড়িতে হাজির হয় পুলিশ। বন্ধ করে দেওয়া হয় ওই বিয়ে অনুষ্ঠান। চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার ভগবানপুর থানার নেলুয়া গ্রামে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, লকডাউন সুযোগ কাজে লাগিয়ে নাবালিকা মেয়ের বিয়ে অনুষ্ঠান আয়োজন করেছিল। গ্রামেরই বাসিন্দা লালমোহন মন্ডলের নাবালিকা মেয়ে পাশের গ্রামের এক যুবকের সঙ্গে বিয়ে অনুষ্ঠান ঠিক করেন। রবিবার ছিল বিয়ের অনুষ্ঠান। এদিন সকাল থেকে সামাজিক প্রথা মেনেই বিয়ে অনুষ্ঠান সম্পন্ন। গায়ে হলুদ থেকে সামাজিক রীতিনীতি সম্পর্ণ।এদিন সন্ধ্যায় পাত্র কয়েক জন বরযাত্রী নিয়ে পাত্রীর বাড়িতে এসে পৌঁছায়।পাত্রীর বাড়ি থেকে পাত্রকে বরণ পর্ব শেষ হয়েছে।

প্রতিবেশী থেকে বরযাত্রীরা খাওয়া দাওয়া অনুষ্ঠান শেষের পথে। সানাই মূর্ছনার বিয়ে বাড়ি অনুষ্ঠান আনন্দে মুখরিত। ঠিক এমন সময় বিয়ে বাড়িতে হাজির হয় ভগবানপুর থানার ওসি প্রণব রায় নেতৃত্বের বিশাল পুলিশ বাহিনী। পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়, বিয়ের অনুষ্ঠান হবে না। পাত্রী সাবালিকা না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দেওয়া যাবে না। অবশেষে পাত্রীর বাড়ি থেকে বিয়ে না করে পাত্রকে ফিরে যেতে হল। ভগবানপুর থানার ওসি প্রণব রায় বলেন নাবালিকা সাবালিকার না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দেওয়া জন্য পাত্রীর বাড়ি থেকে একটি মুচিলেখা লিখে নেওয়া হয়েছে। নাবালিকার পড়াশুনা বা অন্য কোনো সহযোগিতা আশ্বাস দেন।

Related Articles

Back to top button
Close