fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

‘মুখ্যমন্ত্রীর দুঃখ প্রকাশ করা উচিত’ ভিডিও বার্তায় মন্তব্য ধনকরের

অভিষেক গঙ্গোপাধ্যায়, কলকাতা: ‘মুখ্যমন্ত্রীর দুঃখ প্রকাশ করা উচিত।’ ফের রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে তোপ দাগলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকর। রবিবার নিজের টুইটারে এক ভিডিও বার্তায় এমনটাই জানালেন রাজ্যপাল ধনকর। প্রসঙ্গত, করোনা মোকাবিলায় রাজ্যের বেলাগাম দুর্নীতি, আক্রান্ত ও মৃতের তথ্য গোপন সহ একাধিক ইস্যুতে ক্ষোভ প্রকাশ করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আট পাতার কড়া চিঠি লিখে ছিলেন রাজ্যপাল।

আর সেই চিঠির পালটা জবাবে মুখ্যমন্ত্রীও রাজ্যপাল ধনকরকে তীব্র ভাষায় আক্রমণ করে ১৩ পাতার চিঠি লেখেন। চিঠিতে উল্লেখযোগ্যভাবে বলা হয়, দেশের কোনও রাজ্যপাল এমন ভাষার ব্যবহার করেন না। আর তাই এদিন মুখ্যমন্ত্রীকে দুঃখ প্রকাশ করতে বলেন জগদীপ ধনকর। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের একাংশের মতে, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যে ভাষায় একজন সাংবিধানিক প্রধানকে আক্রমণ করেছেন তা অত্যন্ত নিন্দনীয়। এতে সংবিধানের অসন্মান হয়েছে। রাজ্যপাল এদিন বলেন, ‘এখন রাজনৈতিক মতবাদ ও রাজনীতির দূরে সরিয়ে রাখা উচিত।’ একইসঙ্গে একজন রাজ্যপালের হিসেবে যা যা করণীয় সবটাই তিনি করছেন বলেও দাবি করেন ওই ভিডিও বার্তায়।

অন্যদিকে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে রাজ্যপাল বলেন, ‘এ সময় আপনারা নিরপেক্ষ থেকে রাজনৈতিক মতাদর্শ এড়িয়ে চলুন।’ এদিন ধনকর রেশন দুর্নীতি নিয়ে সরব হয়ে বলেন, ‘এই সময় যাতে কোনও রকম দুর্নীতি না হয়। সাধারণ মানুষ যেন এই সময় তাদের বরাদ্দ খাবার পায়। পাশাপাশি করোনা আক্রান্ত হয়ে যে সকল মানুষ মারা গেছেন তাদের পরিবারের প্রতি এদিন সমবেদনা জানান রাজ্যপাল।’

‘তৃতীয় পর্যায়ের লকডাউন আরও অনেক বেশি চ্যালেঞ্জিং।’ মন্তব্য করলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকর। ইতিমধ্যেই কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক বিজ্ঞপ্তি জারি করে জানিয়ে দিয়েছে তৃতীয় পর্যায়ের লকডাউন বর্ধিত করা হচ্ছে আরও দু সপ্তাহ। অর্থাৎ লকডাউন চলবে ১৭মে পর্যন্ত। উল্লেখ্য যেভাবে মানুষের অসতর্কতায় রাজ্যের রেড জোনের সংখ্যা এক লাফে বেড়ে দশ হয়ে গেল, তাতে নিশ্চিতভাবে দুশ্চিন্তা বাড়ছে। আর রাজ্যের অন্যতম সাংবিধানিক প্রধান হিসেবে সেই চিন্তা রাজ্যপাল ধনকরকেও গ্রাস করছে। তাই তিনি এদিন সাধারণ মানুষের উদ্দেশ্যে সতর্কতার সঙ্গে লকডাউন পালনের বার্তা দেন।

এদিন ওই ভিডিও বার্তায় রাজ্যপাল বলেন, ‘তৃতীয় পর্যায়ের লকডাউন অনেক বেশি চ্যালেঞ্জিং। সতর্কতার সঙ্গে আমাদের এই লকডাউন মেনে চলতে হবে।’
তিনি আরও জানান, ‘কোভিড-১৯ এর বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য তৃতীয় দফার লকডাউন খুবই গুরুত্বপূর্ণ। লকডাউন চলাকালীন সময় কোনওভাবেই আপোষ করা যাবে না।’

জনগণের উদ্দেশ্যে পরামর্শ দিয়ে তিনি লকডাউন চলাকালীন জমায়েত এড়িয়ে চলতে বলেন। একই সঙ্গে সামাজিক দূরত্ব মেনে চলার কথা বলেন। কোনও রকম ধর্মীয় অনুষ্ঠান করার থেকে এখন বিরত থাকার আহ্বান জানান। সাধারণ মানুষের প্রতি তিনি আবেদন জানিয়ে বলেন, ‘এই সংকটকালীন মুহূর্তে চিকিৎসক পুলিশ কর্মী ও সাংবাদিকদের মতো যারা জরুরি পরিষেবা দিচ্ছেন তাদেরকে আমাদের সাহায্য করা উচিত।’

Related Articles

Back to top button
Close