fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

প্রশান্ত কিশোরের ‘ফোর এম’ এ আস্থা রেখেই ঘুরে দাঁড়াতে মরিয়া কংগ্রেস

যুগশঙ্খ, ওয়েবডেস্ক: পর পর নির্বাচনে ধরাশায়ী কংগ্রেস। ২০১৪ সালে বিজেপির কাছে হেরে যায় কংগ্রেস। তার পর থেকেই হারের ধারা অব্যাহত। গত ১০ বছরে ৯০ শতাংশ (রাজ্য ও কেন্দ্র) নির্বাচনে পরাজিত হয়েছে ভারতের সবচেয়ে পুরনো রাজনৈতিক দল কংগ্রেস।

এদিকে ইতিমধ্যেই নিজেদের পুরনো মাটি খুঁজে পেতে মরিয়া কংগ্রেস। ভোট কুশলী প্রশান্ত কিশোরের হাত ধরেই ফের ঘুরে দাঁড়াবার পথে কংগ্রস। এরই মধ্যে দলটির সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধীর সঙ্গে বেশ কয়েকবার বৈঠক করেছেন প্রশান্ত কিশোর।

তিনি নাকি কংগ্রেসে যোগ দিতে চান, এমন খবরও চাওর হয়। ২০২৪ সালে দলটির লক্ষ্যও কী হওয়া উচিত, তা নিয়ে বিশদ পরিকল্পনা দিয়েছেন তিনি। ইতিমধ্যে প্রশান্ত কিশোর সোনিয়া ও কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্বের কাছে কংগ্রেসের জন্য ‘ফোর এম’ পরিকল্পনা জমা দিয়েছেন। তাঁর লক্ষ্য ও ভূমিকার ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন সোনিয়া গান্ধী।

দিন কয়েক আগে প্রশান্ত কিশোর সোনিয়া গান্ধীর বাসভবনে গিয়ে বৈঠক করেন। সেই বৈঠকে ২০২৪ সালের নির্বাচনে কংগ্রেসের অবস্থান ধরে একটি প্রস্তাব দেন। কংগ্রেসের পক্ষ থেকে সেই প্রস্তাব পর্যালোচনার জন্য কমিটিও করা হয়েছে। সোনিয়াদের ৩৭০টি আসন ধরে পরিকল্পনা সাজাতে বলেছেন। কংগ্রেসকে প্রশান্ত কিশোর বলেছেন, ৫৪৩টি আসন নয়, ৩৭০টি ধরে লড়াইয়ে নামতে হবে। ৩৭০টি আসনে কংগ্রেস আগে থেকেই শক্তিশালী। এই আসনগুলোতে বিজেপির সঙ্গে সরাসরি লড়াই হতে পারে। এ লক্ষ্য নিয়ে সামনে এগোলে ভালো ফল আসতে পারে। বাকি ১৭৩ আসন বিভিন্ন রাজ্যে জোটসঙ্গীদের জন্য ছেড়ে রাখার প্রস্তাবও দিয়েছেন তিনি।

 

১৬ এপ্রিল সোনিয়া গান্ধীর সঙ্গে প্রশান্ত কিশোরের বৈঠকের পর প্রবীণ কংগ্রেস নেতা কে সি বেনুগোপাল বলেছিলেন, ২০২৪-এর লোকসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে পরিকল্পনা জমা দিয়েছেন প্রশান্ত কিশোর। পরিকল্পনার মধ্যে আছে ‘ফোর-এম’। ভোটকুশলীর সেই ফোর-এমের মধ্যে আছে মেসেজ, ম্যাসেঞ্জার, মেশিনারি ও মেকানিকস। পাশাপাশি প্রশান্ত কিশোর বিজেপি হিন্দুত্ববাদ, তীব্র জাতীয়তাবাদ ও কল্যাণমূলক প্রকল্প—তিনটি বিষয় নিয়ে যে জোর লড়াই চালাচ্ছে, সেই কথাও স্মরণ করিয়ে দিয়েছিলেন।

Related Articles

Back to top button
Close