fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

বাস্তব যুক্তির চাপে অশোকের চেয়ারম্যান হওয়ার প্রস্তাবে সবুজ সঙ্কেত দিতে চলেছে সিপিএম

সঞ্জিত সেনগুপ্ত, শিলিগুড়ি: দলের নেতাকর্মীদের একটি বড় অংশের বাস্তব যুক্তিকে মেনে নিল সিপিএম। দলীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, রাজ্য সরকার শিলিগুড়ি পুরসভায় বামফ্রন্ট পরিচালিত বোর্ডের বিদায়ী মেয়র অশোক ভট্টাচার্যকে প্রশাসক বোর্ডের চেয়ারম্যান হওয়ার প্রস্তাব দিলে তা গ্রহণ করার ব্যাপারে সবুজ সংকেত দেবে সিপিএম।

তবে এদিনও অশোক ভট্টাচার্য বলেন, ‘ রাজ্য সরকারের কাছ থেকে এখনও প্রস্তাব আসেনি। তাই এই নিয়ে আগ বাড়িয়ে কিছু বলা ঠিক নয়।’ আর শিলিগুড়ি পুরসভার বিরোধী দলনেতা জেলা তৃণমূল সভাপতি রঞ্জন সরকার বৃহস্পতিবার সাংবাদিক সম্মেলন করে বলেন, ‘আশা করব এই সঙ্কটে রাজ্য সরকারের পাশে থাকবে শিলিগুড়ি পুরসভার বর্তমান বোর্ড।’

সম্প্রতি পর্যটন মন্ত্রী গৌতম দেব রাজ্য সরকারের এই সিদ্ধান্ত ঘোষণা করার পর সিপিএম দুটি শিবিরে বিভাজিত  হয়েছিল। দলের একটি ক্ষুদ্র অংশ তাত্ত্বিক নীতিতে এই প্রস্তাব গ্রহণ করার বিরুদ্ধে মত দিয়ে তা বাস্তবায়িত করতে তৎপর হয়ে ওঠে। কিন্তু দলের একটি বড় অংশ অশোক ভট্টাচার্যকে প্রশাসক বোর্ডের চেয়ারম্যান হওয়ার পক্ষে মত দেয়। সিংহভাগ বাম কাউন্সিলরও দলকে জানিয়ে দেন, এই পরিস্থিতি এধরনের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করা হলে তা মারাত্মক ভুল হবে। ক্ষমতার বাইরে থেকে শিলিগুড়িতে সংগঠনকে ধরে রাখা যাবে না।

দলীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, তারপরেও দলের জেলা কমিটির এক গুরুত্বপূর্ণ পদাধিকারী ও এক বর্ষীয়ান কাউন্সিলর প্রশাসকের প্রস্তাব গ্রহণের বিরোধিতা চালিয়ে রাজ্য নেতৃত্বকে প্রভাবিত করার প্রক্রিয়া শুরু করেন। সেক্ষেত্রে তাঁরা যুক্তি হিসেবে, কলকাতা পুরসভায় বিদায়ী মেয়র ফিরহাদ হাকিমের নেতৃত্বে প্রশাসক বোর্ড গঠনের বিরোধিতা করার দিকটি সামনে রাখেন। পাশাপাশি বোঝানর চেষ্টা করেন যে, রাজ্য সরকারের এই প্রস্তাব গ্রহণ করা হলে তৃণমূল- সিপিএম আঁতাতের অভিযোগে  বিজেপি ফায়দা নিতে চাইবে।

কিন্তু দার্জিলিং জেলা সিপিএমের সিংহ ভাগ নেতা কর্মী ও বাম কাউন্সিলররা, পরিষ্কার জানিয়ে দেন, রাজ্য সরকার প্রস্তাব দিলে তা গ্রহণ না করলে তৃণমূল দুই দিক দিয়ে রাজনৈতিক ফায়দা নেবে। প্রথমত তারা প্রচার করবে, করোনা সঙ্কটে রাজ্য সরকারের পাশে না থেকে সিপিএম দায়িত্ব পালনের ভয়ে পালিয়ে গেল। বিপদের দিনে সিপিএম মানুষের পাশে থাকে না। দ্বিতীয়ত, সিপিএম প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করলে তৃণমূলের নেতা মন্ত্রী কাউকে দায়িত্ব দেওয়া হবে। তাতে মানুষের মন থেকো সিপিএম হারিয়ে যাবে।

এই যুক্তির কাছে অশোক ভট্টাচার্যকে প্রশাসক করার প্রস্তাব গ্রহণের  বিরোধীরা রণেভঙ্গ দেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জেলা বামফ্রন্টের এক নেতা ও শিলিগুড়ি পুরসভার কাউন্সিলর বলেন,’ এই পরিস্থিতিতে এধরনের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করার  ভাবনা দলের স্বার্থে নয়।

অশোক ভট্টাচার্যের সঙ্গে ব্যক্তিগত লড়াই বা তৃণমূলের প্রতি কারও কোনও দায়বদ্ধতা থেকে এই বিরোধিতা। কেননা এই পরিস্থিততে এধরণের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যানের ভাবনায় সিপিএমে-রই ক্ষতি হবে। আর এটা দলের নেতারা জানেন না এটা অবিশ্বাস্য।’

 

 

Related Articles

Back to top button
Close