fbpx
আন্তর্জাতিকগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

চার মাস ধরে দীর্ঘ লড়াইয়ের অবসান, করোনায় মৃত্যু উহানের চিকিৎসকের

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: প্রায় চার মাস ধরে করোনাভাইরাসের সঙ্গে লড়াই করছিলেন তিনি। অবশেষে মঙ্গলবার মৃত্যু হল উহানের সেন্ট্রাল হাসপাতালের চিকিত্‍সক হু ওয়েইফেং-এর। হু ওয়েইফেং ছিলেন উহানের সেন্ট্রাল হাসপাতালের একজন স্নায়ুরোগ বিশেষজ্ঞ। ওই দিনই একাধিক আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে এই চিকিত্‍সকের মৃত্যুর খবর প্রকাশ করা হয়।

বিশ্বে করোনাভাইরাসের কথা প্রথম প্রকাশ্যে আসে চিনের উহানে। জানা গিয়েছে, সেখানকার দুই চিকিত্‍সক ই ফ্যান এবং হু ওয়েইফেং আক্রান্ত হন এই ভাইরাসে। এর মধ্যে ৪২ বছরের চিকিত্‍সক ই ফ্যানের শারীরিক অবস্থা অত্যন্ত সঙ্কটজনক হয়ে পড়ে। তাঁকে ৩৯ দিন লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছিল। উহানের সেন্ট্রাল হাসপাতালেই চিকিত্‍সাধীন ছিলেন চিকিত্‍সক হু ওয়েইফেংও। মাস দেড়েকের মাথায় ধীরে ধীরে কিছুটা সেরে ওঠে দুজনেই। কিন্তু সেরে ওঠার পর নিজেদের দেখে চিনতেই পারেননি ওই দুই চিকিত্‍সক। দুই চিকিত্‍সকেরই গায়ের রং ফর্সা থেকে একেবারে কালো হয়ে গিয়েছিল!

ওই হাসপাতালের অন্যান্য চিকিত্‍সকরা জানান, করোনা সংক্রমণের ফলে হু ওয়েইফেং-এর যকৃত্‍ বা লিভার মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। একই সঙ্গে হরমোন সংক্রান্ত বেশ কিছু সমস্যার কারণে দুজনেই অস্বাভাবিক কালো হয়ে গিয়েছেন।

চিনা সরকারি সূত্রের খবর, হু ওয়েইফেং-এর (Hu Weifeng) পাকস্থলী বিকল হয়ে যাওয়ার ফলে শরীরে হরমোনের ভারসাম্য বিগড়ে গিয়েছিল। সেই কারণেই অদ্ভূত ভাবে তাঁদের ত্বকের ফর্সা ভাব চলে গিয়ে তাঁরা কালো হয়ে গিয়েছেন।

জানা গিয়েছে, গত ২২ এপ্রিল থেকে হু ওয়েইফেং-এর মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ শুরু হয়। মাঝে চিকিত্‍সায় তাঁর শারীরিক পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি বা স্থিতিশীল হলেও ২৯ মে থেকে ফের মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ শুরু হয় ওয়েইফেং-এর। এর পরই কোমায় চলে যান তিনি। পরে ২ জুন মৃত্য হয় তাঁর। এই নিয়ে উহানের সেন্ট্রাল হাসপাতালের মোট ৬ জন চিকিত্‍সকের করোনাভাইরাসে মৃত্যু হল।

Related Articles

Back to top button
Close