fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

বেআইনি ভাবে পোস্ত চাষ বন্ধে পথে নেমে কড়া বার্তা আবগারি দফতরের

প্রদীপ চট্টোপাধ্যায়, বর্ধমান: বেআইনি ভাবে পোস্ত চাষ করলে কড়া শাস্তির মুখে পড়তে হবে। এই বার্তা ছড়িয়ে দিতে ধারাবাহিক ভাবে প্রচার চালানো শুরু করলো আবগারি দফতর।সোমবার পূর্ব বর্ধমানের ভাতারের বিভিন্ন এলাকায় আবগারি দফতরের পক্ষ থেকে প্রচার চালানো হয়। জেলার আবগারি দফতরের এসআই নিতাই হালদার নিজে প্রচার কর্মসূচিতে সামিল থাকেন। আবগারি দফতরের প্রচারে উপেক্ষা করে জেলায় কেউ আর বেআইনি ভাবে পোস্ত চাষ করেন কিনা সেটাই এখন দেখার বিষয়।

পোস্ত একটি মহার্ঘ্য পণ্য। বাজারে তার দামও অনেক। পোস্ত গাছ থেকেই মেলে নেশার দ্রব্য আফিম। মাদক আইনে আফিং উৎপাদন নিষিদ্ধ। তা জানার পরেও বিভিন্ন জায়গায় চোরগোপ্তা কেউ কেউ পোস্ত চাষ করে থাকেন। সেই খবর পাওয়া মাত্রই পুলিশ ও আবগারি দফতর অভিযানে নেমে পোস্ত চাষ নষ্ট করে দেয়। বেআইনি ভাবে পোস্ত চাষ করার দায়ে আবগারি দফতরের হাতে ধরাও পড়েন অনেকে। এতকিছুর পরেও আইনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে অনেকে চোরাগোপ্তা পোস্ত চাষ করে। তাদের উদ্দেশ্যে কড়া বার্তা দিতেই এদিন পথে নামে আবগারি দফতর। জানা গিয়েছে, আগে জেলায় দামোদর ও অজয়নদের তীরে গোপনে পোস্ত চাষ করা হত। তবে লাগাতার প্রচারের জন্য এখন আর ওইসব জায়গায় পোস্ত চাষ চোখে পড়ে না। একটা সময়ে গলসিতে দামোদরের মানাতেও ব্যাপক ভাবে পোস্ত চাষ করা হত। কিন্তু আবগারি ও পুলিশের ধরপাকড়ের কারণে এখন তা বন্ধ রয়েছে। এটাই প্রচারের সুফল বলে মনে করছেন আবগারি দফতরের কর্তারা।

আবগারি দফতরের এসআই নিতাই হালদার জানান, ‘বেআইনি ভাবে কেউ পোস্ত চাষ করলে তার ১০ থেকে ২০ বছর পর্যন্ত জেল হতে পারে। এমনকি ১ থেকে ২ লক্ষ টাকা জরিমানাও হতে পারে।এই তথ্যগুলিই এদিন ফের সাধারণ মানুষকে তারা জানালেন। নিষেদ অমান্য করে যারা বেআইনি ভাবে পোস্ত চাষ করবেন তাদের কঠিন শাস্তি পেতে হবে।’

Related Articles

Back to top button
Close