fbpx
খেলাদেশহেডলাইন

কুপিয়ে খুন রায়নার পরিবার, বিচারের আশ্বাস মুখ্যমন্ত্রীর

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: অপরাধীরা যেন কোনওভাবেই রেহাই না পায়। পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিংকে এই অনুরোধ করেছেন সুরেশ রায়না।  তারপরেই পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং আশ্বাস দিলেন ক্রিকেটারকে ন্যায় বিচার দেওয়া হবে। জানিয়ে দিলেন, বিশেষ তদন্তকারী দল এই হত্যাকাণ্ডের তদন্ত করবে।

চলতি বছর আইপিএল খেলবেন না সুরেশ রায়না। তিনি আচমকাই দেশে ফিরে আসেন ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে। সঠিক কারণ কেই জানে না। কেউ বলছেন, করোনা আতঙ্কের কারণেই রায়না দেশে ফিরেছেন। আবার কেউ বলছেন, হোটলের রুম পছন্দ না হওয়ায় রায়না দেশে ফিরে আসার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। আবার কেউ বলছেন, পাঠানকোটে দুষ্কৃতী হামলায় রায়নার নিকটাত্মীয় মারা যাওয়ায় তিনি আইপিএল না খেলে দেশে ফিরে এসেছেন।

এবার মুখ খুললেন রায়না। তবে দেশে ফেরা নিয়ে নয়। তিনি চান দোষীরা অপযুক্ত শাস্তি পাক। পুলিশের সহযোগিতা চেয়ে রায়না বলেছেন, ‘‌আমি এখনও জানি না ওইদিন রাতে ঠিক কী হয়েছিল। কারা এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত।’‌ রায়নার সংযোজন, ‘‌পাঞ্জাবে আমার পরিবারের সঙ্গে যা ঘটেছে, তা ভাবলেই শিউরে উঠছি। আমার কাকাকে হত্যা করা হয়েছে। আমার কাকিমা ও দুই ভাই গুরুতরভাবে আহত হয়। দুর্ভাগ্যজনকভাবে এক ভাই আবার হাসপাতালে মারা গেছে। এমনকি মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে আমার কাকিমা। তাঁকে ভেন্টিলেটরে রাখা হয়েছে।’‌

নিজের টুইটে রায়না আরো লিখেছেন, ‘এখনো পর্যন্ত জানি না সেদিন রাতে কী ঘটেছিল। পাঞ্জাব পুলিশকে অনুরোধ করছি পুরো বিষয়টা খতিয়ে দেখার জন্য। কারা এমন ন্যক্কারজনক ঘটনা ঘটাল, তা জানার অধিকার আমাদের রয়েছে। কোনোভাবেই আততায়ীদের ছাড়া উচিত হবে না।’ বিচার চেয়ে টুইটে পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং এবং পাঞ্জাব পুলিশকে ট্যাগ করেন তারকা ক্রিকেটার।

আরও পড়ুন: ইঞ্জেকশনে আর ব্যথা নয়, এবার বাজারে আসছে বিশেষ ধরনের সূঁচ

এরপরে পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং টুইট করেন, ‘দোষীরা যাতে শাস্তি পায়, তা অবশ্যই নিশ্চিত করব। পাঠানকোটে রায়নার আত্নীয়দের উপর হামলায় কড়া নিন্দা জানাচ্ছি। ইতিমধ্যেই সিট কে গোটা ঘটনার তদন্ত করতে বলেছি। পাঞ্জাব পুলিশকে বলেছি দোষীদের যেন যত শীঘ্র গ্রেফতার করে।’

জানা গেছে ২০ আগস্ট এই হামলা হয়েছিল রায়নার পরিবারের উপর। পাঠানকোটের থারিয়াল গ্রামের বাসিন্দা রায়নার ওই আত্মীয়রা। ২০ আগস্ট রাতে হঠাত্‍ই তাঁদের বাড়িতে ঢুকে পড়ে অজ্ঞাতপরিচয় দুষ্কৃতীদের একটি দল। সেই সময় বাড়ির ছাদে ঘুমোচ্ছিলেন কাকা-কাকিমা ও তাঁদের সন্তানরা। তখনই ধারাল অস্ত্র দিয়ে তাঁদের উপর আক্রমণ করে দুষ্কৃতীরা। সেই হামলাতেই প্রাণ হারান বছর চুয়ান্নর কাকা অশোক কুমার। গুরুতর আঘাত পান রায়নার কাকিমা আশাদেবী। হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন তিনি। এক ভাই হামলায় বেঁচে গেলেও হাসপাতালে মারা যায় অপর ভাই।

Related Articles

Back to top button
Close