fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

আতঙ্কের মাঝেও স্বস্তি, ১৫ আগস্টেই ভারতে উদ্বোধন হতে পারে প্রথম করোনা ভ্যাকসিন!

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: করোনায় জর্জরিত গোটা বিশ্ব। প্রায় প্রতিদিনই দেশে বাড়ছে করোনায় আক্রান্তের হার। পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃতের সংখ্যা। এসবের মাঝেই ভালো খবর শুনিয়েছিল যে ভারত বায়োটেক আবিষ্কার করে ফেলেছে করোনা ভ্যাকসিন। এদিকে জুলাই-অগস্ট মাস করোনা সংক্রমণের নিরিখে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হতে চলেছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। এহেন পরিস্থিতিতে আরও খুশির খবর। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী ১৫ আগস্ট অর্থাৎ স্বাধীনতা দিবসের দিন উদ্বোধন করা হতে পারে ভারতে তৈরি প্রথম করোনভাইরাসের ভ্যাকসিন।

 

 

আরও পড়ুনঃ কলকাতায় উর্দ্ধমুখী পারদ, পাঁচ জেলায় অতিভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস, উত্তরবঙ্গে ধসের আশঙ্কা

ভারত বায়োটেক ইন্টারন্যাশনালের সঙ্গে যৌথ ভাবে এই ভ্যাকসিন নিয়ে আসছে ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চ বা আইসিএমআর। এর নাম দেওয়া হয়েছে ‘কোভ্যাক্সিন’। সম্পূর্ণ দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি এই ভ্যাকসিনের ক্লিনিকাল ট্রায়ালের জন্য এক ডজন ইনস্টিটিউটকে মনোনীত করা হয়েছে বলে সরকারের শীর্ষ মেডিক্যাল রিসার্চ বডি জানিয়েছে। এই ইনস্টিটিউটগুলিকে আইসিএমআর ক্লিনিকাল ট্রায়ালের জন্য প্রস্তুত হতে বলেছে। এই বিষয়টিকে প্রায়োরিটি প্রজেক্ট হিসেবে দেখছে কেন্দ্রীয় সরকার। ইনস্টিটিউটগুলিকে লেখা চিঠিতে আইসিএমআর বলেছে যে পুনের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ভায়োলজি-তে সার্স-কোভ-২ ভাইরাস নিয়ে কাজ করে এই ভ্যাকসিন প্রস্তুত করা হয়েছে। আইসিএমআর এবং বিবিআই একযোগে এই ভ্যাকসিনের প্রি-ক্লিনিকাল এবং ক্লিনিকাল ডেভেলপমেন্টের ওপর কাজ করছে। সাধারণ মানুষের জন্য ১৫ অগস্ট এই ভ্যাকসিন লঞ্চ করতে চাইছে আইসিএমআর।

 

আরও পড়ুনঃ সরোজ খানের প্রয়াণে শোকবার্তা জ্ঞাপন অমিতাভ-অক্ষয়-মাধুরীর

 

স্বাধীনতা দিবসেই করোনাভাইরাসের মতো মারণ অসুখের কবল থেকে দেশবাসীকে মুক্তি দিতে চাইছে কেন্দ্র। চলতি সপ্তাহেই ক্লিনিকাল ট্রায়াল শুরু করে দিতে নির্দেশ দিয়েছে আইসিএমআর। ক্লিনিকাল ট্রায়ালের ওপরেই এই ভ্যাকসিনের সাফল্য নির্ভর করবে। কোনও ইনস্টিটিউট এই বিষয়ে সহযোগিতা না করলে তা গুরুত অপরাধ হিসেবে দেখা হবে বলেও হুঁশিয়ারি দিয়েছে আইসিএমআর। ক্লিনিকাল ট্রায়ালের জন্য নির্বাচিত ইনস্টিটিউটগুলিকে নির্দিষ্ট টাইমলাইনের মধ্যে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে এই কাজটি করতে বলা হয়েছে আইসিএমআর-এর লেখা চিঠিতে। দেশের যে সব জায়গার ইনস্টিটিউগুলিকে ক্লিনিকাল ট্রায়ালের জন্য বেছে নেওয়া হয়েছে সেগুলি অবস্থিত বিশাখাপত্তনম, রোহতক, নিউদিল্লি, পাটনা, বেলগাউম (কর্নাটক), নাগপুর, গোরক্ষপুর, কট্টনকুলাথুর (তামিলনাড়ু), হায়দরাবাদ, আর্য্য নগর, কানপুর এবং গোয়া।

Related Articles

Back to top button
Close