fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

পেনশনের টাকা থেকে খাদ্যসামগ্রী কিনে আদিবাসীদের দিলেন শিমুরালির প্রাক্তন শিক্ষিকা

অভিষেক আচার্য, কল্যাণী: অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষিকা শুক্লা বিশ্বাস, বয়স ষাটোর্ধ্ব। অসুস্থ, স্বামীহারা ছেলে,বৌমা ও নাতনি নিয়ে সংসার। বাড়ি নদীয়ার শিমুরালি। তিনি দাঁড়ালেন শিমুরালি এলাকার রাউতাড়ি অঞ্চলের আদিবাসী পরিবারদের পাশে। তাঁদের হাতে তুলে দিলেন খাদ্যসামগ্রী। করোনার জন্ম ঘরবন্দি করে রেখেছে আম আদমি থেকে বিত্তবানদের।লকডাউনের বয়সও হল প্রায় ১মাস। কিন্তু সমস্যায় পড়েছেন দিন আনা দিন খাওয়া মানুষগুলো। যাঁদের মধ্যে পড়েন এই রাউতাড়ি অঞ্চলের আদিবাসীরা। রোজগার নেই। ভাঁড়ার শূন্যের পথে। তাঁদের ভরসা একমাত্র ত্রাণ। রাজনৈতিক দলগুলো পাশে রয়েছে ঠিকই। তাতে দিন গুজরান হচ্ছে না বললেই চলে। সেই কথা মাথায় রেখে তাঁদের পাশে দাঁড়ালেন প্রাক্তন শিক্ষিকা শুক্লা বিশ্বাস।

রাউতাড়ি বালিকা বিদ্যালয়ের(মাধ্যমিক) ইতিহাসের শিক্ষিকা ছিলেন শুক্লাদেবী। ২০১০ সালে অবসর নেন। স্বল্প পেনশনভোগী। কোনোমতে নিজের ওষুধ ও হাত খরচ চলে তাঁর। তিনি বলেন, বাবা ঈশ্বর কানাইলাল মুখার্জি দুঃস্থদের পাশে দাঁড়াতেন সবসময়। সেখান থেকেই পেয়েছেন অনুপ্রেরণা। বাবা নেই। আর্থিক সামর্থ্যও নৈব নৈব চ। কিন্তু একটি প্রশ্ন তাঁকে পুরো নাড়িয়ে দিয়েছে। এই কঠিন পরিস্থিতিতে দুঃস্থদের পাশে দাঁড়িয়েছেন আমলা থেকে নব্য সংগঠনও। কিন্তু কোনো শিক্ষক সংগঠন পাশে নেই কেন? ঠিক করলেন এবার পথে নামবেন তিনি। শুক্লা দেবী বলেন, এই প্রশ্নের পরই তিনি ঠিক করেন পেনশনের টাকা থেকে খাদ্যসামগ্রী কিনে তিনি ওই আদিবাসীদের পাশে দাঁড়াবেন। যেমন ভাবনা তেমন কাজ। পাশে পেলেন কয়েকজন সহৃদয় ব্যক্তিকেও। অসুস্থ শরীরকে রীতিমত ‘ডোন্ট কেয়ার’ করে চাল, আলু, পেঁয়াজ, লবন নিয়ে হাজির হলেন রাওতাড়ি আদিবাসী এলাকায়। ২১জন আদিবাসীর হাতে নিজে তুলে দিলেন খাদ্যসামগ্রী।

আরও পড়ুন: আপনি করোনা রুখতে চূড়ান্ত ব্যর্থ, মুখ্যমন্ত্রীকে কড়া চিঠি ধনকরের

পেনশনের কিছু টাকা খরচ করলেন ঠিকই। এবার নিজের খরচ চলবে কি করে? রয়েছে ওষুধ খরচ। হাত খরচ। নাতনির আবদার। সামলাবেন কি করে? হাসিমুখে তিনি জানান, টান পড়বে ঠিকই। কিন্তু আমার ছেলে আমার পাশে রয়েছে। সমর্থন করে আমার এই কাজ কে।  খাদ্যসামগ্রী পেয়ে খুশি আদিবাসী পরিবারগুলো। তাঁদের মুখের হাসি দেখে খুশি শুক্লা দেবীও। ওই একটি প্রশ্ন আজ দোলা দিয়েছে একজন অবসর প্রাপ্ত শিক্ষিকাকে। সেই প্রশ্ন অন্যান্য শিক্ষক-শিক্ষিকাদের দোলা দিলো কি?

Related Articles

Back to top button
Close