fbpx
আন্তর্জাতিকবাংলাদেশহেডলাইন

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সংস্কৃতের শিক্ষককে হত্যার হুমকি দিল মৌলবাদীরা

যুগশঙ্খ প্রতিবেদন, ঢাকা: বাংলাদেশ সনাতন বিদ্যার্থী সংসদেও প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও চট্টগ্রাম বিশ^বিদ্যালয়ের সংস্কৃত বিভাগের সহকারি অধ্যাপক কুশল বরণ চক্রবর্তীকে হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছে। গত শুক্রবার তাঁর ফেসবুক ইনবক্সে অডিও রেকর্ড ও ক্ষুদে বার্তা পাঠিয়ে এ হত্যার হুমকি দেওয়া হয়।

অধ্যাপক কুশল বরণ চক্রবর্তী যুগশঙ্খকে বলেন, গত শুক্রবার আমার ফেসবুক আইডিতে ‘৭১ টিভির পাশে আছি’ লোগো সম্বলিত প্রোফাইল পিকচার আপলোড দেই। রাত ৯টা ৪৩ মিনিটে সাঈদ শাহজাদ নামের এক আইডি থেকে আমার মেসেঞ্জার ইনবক্সে ক্ষুদে বার্তা ও পরে এক মিনিট ৫৫ সেকেন্ডের একটি অডিও বার্তা পাঠায়। ওই ক্ষুদে বার্তা ও অডিওতে ব্রাশফায়ার করে আমাকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয় ও অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করা হয়।

এ ঘটনায় নিজের নিরাপত্তা চেয়ে চট্টগ্রামের হাটহাজারী থানায় জিডি করবেন বলে জানান অধ্যাপক কুশল বরণ। বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকেও অবহিত করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

এদিকে কুশল বরণ চক্রবর্তীকে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অডিওবার্তার মাধ্যমে প্রাণনাশের হুমকি দেয়ার প্রতিবাদে বিবৃতি দিয়েছে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক এসোসিয়েশন (পিউট্যাব)।

বিবৃতিতে বলা হয়, সম্প্রতি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক কুশল বরণ চক্রবর্তীকে মৌলবাদী একটি গোষ্ঠি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অডিওবার্তা প্রেরণের মাধ্যমে প্রাণনাশের হুমকি পাঠিয়েছে। বিষয়টি অত্যন্ত গর্হিত ও ন্যক্কারজনক ঘটনা বলে আমরা মনে করছি। একইসাথে আমরা উক্ত শিক্ষকের জীবনের নিরাপত্তা নিয়েও ভীষণ উদ্বেগে আছি।

‘‘অডিওবার্তাটিতে এটা সুস্পষ্ট যে তা উগ্রপন্থী কোন গোষ্ঠির পক্ষ থেকে প্রেরণ করা হয়েছে, যাতে কেবল শিক্ষক কুশল চক্রবর্তীকে আক্রান্ত করার হুমকিই দেয়া হয়নি; একইসাথে এদেশের অসাম্প্রদায়িক চর্চায় বিশ্বাসী সবার প্রতিই অত্যন্ত উস্কানিমূলক ও অযৌক্তিকভাবে ঘৃণা প্রদর্শন করা হয়েছে। যা বঙ্গবন্ধুর আদর্শে প্রভাবিত স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশের বর্তমান সরকার ও সব নাগরিকের প্রতি চূড়ান্ত অসম্মানের।’’

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, আমরা ভীষণ বিস্ময় ও উদ্বেগের সাথে লক্ষ্য করলাম যে, উক্ত অডিওবার্তায় প্রেরিত হুমকিতে নির্দিষ্ট একটি রাজনৈতিক আদর্শে বিশ্বাসীদের প্রতি ভবিষ্যতে ভীষণ উগ্রপন্থায় আক্রমণের ও দেশকে অদূর ভবিষ্যতে একটি অস্থিতিশীল অবস্থায় ফেলার কোন ষড়যন্ত্রের আভাসও বিদ্যমান। তাই বিষয়টিকে কেবল একক কোনো ব্যক্তির প্রতি হুমকি বলে বিবেচনার সুযোগ নেই, বরং এটিকে কোনো মৌলবাদী চক্রের গভীর ষড়যন্ত্র ও সাম্প্রদায়িক কোন গোষ্ঠির বৃহত্তর চক্রান্তের নীলনকশার প্রাথমিক উৎসরণ হিসেবেও পর্যবেক্ষণের দায় রয়েছে।

এই ধরনের উগ্রতা পোষণ করা আমাদের দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ও পরমতসহিষ্ণুতার আবহমান চর্চার জন্য হুমকি স্বরূপ এবং শিক্ষক সমাজের স্বাভাবিক স্বতঃস্ফুর্ত জীবনযাপনের প্রতি প্রতিবন্ধতা সৃষ্টির নিয়ামক। যা একই সাথে অপ্রত্যাশিত, নিন্দনীয় ও শঙ্কার। তাই এহেন উগ্রবাদী বার্তার বিরুদ্ধে আমরা তীব্র ক্ষোভ ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

Related Articles

Back to top button
Close