fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণশিক্ষা-কর্মজীবনহেডলাইন

সংস্কৃত ভাষাই আগামীর ভবিষ্যৎ

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: হিব্রু নয়, পৃথিবীর প্রাচীনতম ভাষা হল সংস্কৃত। আর ৫০০০ বছর আগে আবিষ্কৃত এই ভাষাই হল পৃথিবীর সব থেকে বেশি ব্যবহৃত এবং বৈজ্ঞানিক ভাষা, যা কম্পিউটারেও পাঠযোগ্য। এই মন্তব্য করেছিলেন কেন্দ্রীয় মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রী রমেশ পোখরিয়াল নিশঙ্কের। খড়গপুর আইআইটির ৬৫ তম সমাবর্তন অনুষ্ঠানে সংস্কৃত ভাষা নিয়ে এমনটাই বলেছিলেন, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নাসার মতেও সংস্কৃত ভাষা কম্পিউটারের পক্ষে সবচেযে উপযুক্ত।

শুধু তাই নয়, ষষ্ঠ ও সপ্তম প্রজন্মের কম্পিউটার তৈরি করার লক্ষ্যমাত্রা ধার্য্য হযেছে যথাক্রমে ২০২৫ এবং ২০৩৪। যার পরে মানুষকে উচ্চ প্রযুক্তি নিয়ে পড়াশোনা করতে গেলে বা কাজ করতে গেলে সংস্কৃত শিখতেই হবে।

আরও পড়ুন:সঙ্কটে রবীন্দ্র আদর্শ

সংস্কৃতের প্রচার ও প্রসারে শ্রী শ্রী সীতারামদাস ওঙ্কারনাথ সংস্কৃত শিক্ষা সংসদের ভূমিকা সম্পর্কে নতুন করে কিছু বলার নেই। সেই ধারা বজায় রেখেই শ্রাবণী পূর্ণিমার পুণ্যলগ্নে  সংস্কৃত দিবস উপলক্ষ্যে একটি আন্তর্জাতিক সভার আয়োজন করেছিল সংসদ। প্রধান উপদেষ্টা-দ্য মর্ডান আকাদেমির ডিরেক্টর রত্না মিত্র। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেছিলেন বিভিন্ন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা। গত ৩ আগস্ট ২০২০ সকালে বিশেষ পূজার্চনার পরে  ১১টায় বৈদিক মঙ্গলাচারণ করেন সংসদ অধ্যাপক পণ্ডিত রাজকুমার মিশ্র। উদ্বোধনী সংগীত পরিবেশন করেন ময়ূখ মুখোপাধ্যায়। বিশেষ কারণে সংসদ সভাপতি ও নাসার প্রখ্যাত বিজ্ঞানী ড. ওমপ্রকাশ পান্ডে সভায় উপস্থিত থাকতে না পারায় তাঁর পাঠানো আর্শীবচনটি পাঠ করে শোনান সংসদের রেজিষ্ট্রার ড. সুরেশ কুমার বন্দ্যোপাধ্যায়।

স্বাগত ভাষণ প্রদান করেন সংসদের সম্পাদিকা অধ্যাপিকা সুখদা গঙ্গোপাধ্যায়। সংস্কৃত দিবসীয় ভাষণে বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের সংস্কৃত বিভাগের অধ্যাপক ড. পার্থপ্রতিম দাস সংস্কৃত ভাষার শব্দভাণ্ডারের প্রাচুর্য ও বাক্যগঠনের সুবিধা সম্পর্কে এক মনোজ্ঞ বক্তব্য রাখেন। সংস্কৃত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপিকা ড. সোমা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘প্রাচীনকাল থেকেই সংস্কৃত ভাষা জ্ঞানচর্চার এক অতুলনীয় মাধ্যম। সংস্কৃত এমন একটি ভাষা যার মাধ্যমে অনন্ত শব্দের নির্মাণ সম্ভব’। সমগ্র অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন শহিদ মাতঙ্গিনী হাজরা কলেজের অধ্যাপক ড. দেবব্রত বেরা ও সংসদ অধ্যাপক শৌভিক পাহাড়ী।

Related Articles

Back to top button
Close