fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

সরকার শিক্ষা ব্যবস্থার গেরুয়াকরণ করতে চাইছে, অভিযোগ মুসলিম সংগঠনগুলির

মোকতার হোসেন মন্ডল: নতুন জাতীয় শিক্ষা নীতির মাধ্যমে সরকার শিক্ষা ব্যবস্থার গেরুয়াকরণ করতে চাইছে বলে অভিযোগ করছে দেশের মুসলিম সংগঠনগুলি। বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরে বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করছেন জামায়াতে ইসলামী, স্টুডেন্টস ইসলামিক অর্গানাইজেশন অফ ইন্ডিয়া, গার্লস ইসলামিক অর্গানাইজেশন সহ একাধিক সংগঠন। জাতীয় শিক্ষা নীতি নিয়ে বাম ছাত্র সংগঠনগুলি ছাড়াও ফ্রাটারনিটি মুভমেন্ট অফ ইন্ডিয়া, দলিত আদিবাসী সংগঠনগুলি ক্ষোভ জানিয়েছে।

পাশাপাশি একাধিক মুসলিম নেতা বলছেন, করোনা আবহে জাতীয় শিক্ষা নীতির আমুল পরিবর্তন আসলে শিক্ষা ব্যবস্থায় সঙ্ঘের আধিপত্য প্রতিষ্ঠা। স্টুডেন্টস ইসলামিক অর্গানাইজেশন অফ ইন্ডিয়া দেশ জুড়ে জাতীয় শিক্ষা নীতির বিরুদ্ধে প্রচার অভিযান শুরু করেছে।

এসআইও-র রাজ্য সভাপতি ওসমান গনি এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলেন, “আমরা জাতীয় শিক্ষা নীতি সহ আরও এগারোটি দাবি সরকারের সামনে পেশ করতে চাই। জাতীয় শিক্ষা নীতির মাধ্যমে সরকার শিক্ষা ব্যবস্থার গৈরিকীকরণ, কেন্দ্রীকরণ এবং বানিজ্যিকীকরণ করতে চাইছে।”

মুসলিম নেতাদের দাবি, জাতীয় শিক্ষা নীতি-২০২০ পুনর্মূল্যায়ন করতে হবে। বর্তমান পরিস্থিতিকে সামনে রেখে বিকল্প শিক্ষণ পদ্ধতির প্রচলন করতে হবে। স্কুলছুট নিয়ন্ত্রনে গঠনমূলক পরিকল্পনা ও প্রকল্প তৈরি করতে হবে। কিন্তু কেন জাতীয় শিক্ষানীতির বিরোধিতা? এক সংখ্যালঘু মুসলিম নেতা বলেন, বর্তমান সরকার সব কিছুতেই সংঘের আদর্শ প্রতিষ্ঠা করতে চাইছে। এই শিক্ষা নীতির ফলে গরিব ছেলেমেয়েদের ক্ষতি হবে। শিক্ষার বেসরকারিকরণের পথ প্রশস্ত হবে।

এদিকে জাতীয় শিক্ষানীতির পুনর্মূল্যায়ন চেয়ে সারা দেশের বিভিন্ন জায়গায় মিছিল করেছে এসআইও। পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জায়গাতেও মানব বন্ধন, ধর্ণা হচ্ছে।

Related Articles

Back to top button
Close