fbpx
কলকাতাহেডলাইন

যাত্রা শুরু ট্রাম লাইব্রেরির, স্বাগত জানাল বইপাড়া

শরণানন্দ দাস, কলকাতা: ইতিহাসের শহর কলকাতা বৃহস্পতিবার ফের নতুন ইতিহাস তৈরি করলো। তিলোত্তমায় দেশের মধ্যে প্রথম চালু হলো ট্রাম লাইব্রেরি। অর্থাৎ ট্রামের যাত্রা পথে বই পড়ার সুযোগ। শুধুমাত্র ছাপার অক্ষর নয়, যাত্রীরা অনলাইনেও বই পড়তে পারবেন। ট্রামেই থাকছে ফ্রি ওয়াইফাইয়ের ব্যবস্থা। আর এই উদ্যোগকে স্বাগত জানালো বইপাড়া।
করোনা আর আমফানের জোড়াফলার আঘাতে ছ’টি রুটের মধ্যে আপাতত চারটি রুটে ট্রাম চলাচল শুরু করেছে।

বৃহস্পতিবার থেকে শ্যামবাজার-এসপ্ল্যানেড রুটও চালু হলো। এই রুটেই ছুটছে ট্রাম লাইব্রেরী। রাজ্য পরিবহণ নিগমের এমডি রজনবীর সিং কাপুর জানিয়েছেন, ‘কলেজস্ট্রিট কলকাতার পড়াশুনোর পীঠস্থান। এমন কোনও বই নেই যা কলেজ স্ট্রিটে পাওয়া যায় না। আবার শ্যামবাজার-এসপ্ল্যানেড রুটে প্রায় ৩০টি স্কুল-কলেজ রয়েছে। সেখানকার পড়ুয়াদের কাছে ট্রামকে ফের আকর্ষণীয় করে তুলতেই এই উদ্যোগ।’

কলকাতা ট্রামের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছে কলেজ স্ট্রিট বইপাড়া। পাবলিশার্স অ্যান্ড বুক সেলার্স গিল্ডের সভাপতি ত্রিদিব চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘ এটা খুবই আনন্দের কথা। আমরা রাজ্য সরকারের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানাচ্ছি। বইয়ের প্রতি নিশ্চিত ভাবেই এই উদ্যোগ নতুন প্রজন্মকে আগ্রহী করে তুলবে।’ গিল্ডের সাধারণ সম্পাদক সুধাংশু দে ও এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘করোনা ও আম্ফানের জন্য কলেজ স্ট্রিটের বইপাড়ার প্রকাশক ও বিক্রেতারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। এই উদ্যোগ বইপ্রেমী মানুষকে কলেজ স্ট্রিট মুখী করে তুলবে বলে আশা করছি।’

সাহিত্যিক অমর মিত্র বলেন, ‘ ট্রামের সঙ্গে আমার সম্পর্ক শৈশব থেকে। ভোর ৪ টেয় বেলগাছিয়া ট্রাম ডিপো থেকে ট্রাম ধরে ময়দানে ফুটবল খেলতে যেতাম। আবার ট্রাম ধরে বাড়ি ফিরতাম। এবার ট্রাম লাইব্রেরী নিশ্চিত ভাবেই একটা ভালো উদ্যোগ। আমি স্বাগত জানাচ্ছি।’  কী কী থাকছে লাইব্রেরীতে? বাংলা সাহিত্যের জনপ্রিয় গল্প, উপন্যাস ছাড়াও থাকছে বিভিন্ন প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার বই। এছাড়াও পরিকল্পনা রয়েছে জনপ্রিয় সাহিত্যিকদের গল্প পাঠ, সাহিত্য সভা আয়োজনের। সব মিলিয়ে ইতিহাসের ট্রাম নয়া ইতিহাস গড়লো।

Related Articles

Back to top button
Close