fbpx
কলকাতাহেডলাইন

রাজস্ব ঘাটতি মেটাতে এসেসমেন্ট ওয়েবার স্কিম চালু করলো পুর কর্তৃপক্ষ

অভিষেক গঙ্গোপাধ্যায়, কলকাতা: রাজকোষের ঘাটতি মেটাতে এই নিয়ে চতুর্থবার কলকাতা পুরসভার চালু করা হল অ্যাসেসমেন্ট ওয়েবার স্কীম। শনিবার কলকাতা পুরসভায় এর শুভ উদ্বোধন করেন বর্তমান পুর প্রশাসক মণ্ডলীর চেয়ারম্যান ফিরহাদ হাকিম। প্রসঙ্গত, গত কুড়ি বছরের মধ্যে ২০০০, ২০০৪ ও ২০১২ সালে ওয়েভার স্ক্রিমে ছাড় দেওয়া হয়েছিল।

কলকাতা পুরসভার রাজকোষের হাল ফেরাতে এবং বকেয়া পুর কর আদায়ের লক্ষ্যে ও করদাতাদের সুবিধার্থে শনিবার ট্যাক্স ওয়েভার স্কিম চালু করলো পুর কর্তৃপক্ষ।পুরভবনে আজ প্রশাসকবোর্ডের চেয়ারম্যান ফিরহাদ হাকিম ওয়েভার স্কিমের আনুষ্ঠানিক সূচনা করেন। এদিন দুজন উপভোক্তার হাতে চালান তুলে দেন মুখ্য প্রশাসক। একই সঙ্গে উপভোক্তারা ড্রাফট তুলে দেন ফিরহাদের হাতে।

বিগত অর্থবর্ষের ৩১ শে মার্চ পর্যন্ত পুরসভার পাঠানো বিল যারা পেয়েছেন তারা এই স্কিমের জন্য আবেদন করতে পারবেন। এই প্রসঙ্গে পুর প্রশাসক জানান, “আগামী বছরের ফেব্রুয়ারি মাসের মধ্যে বকেয়া পুরকর মিটিয়ে দিলে করের উপর জমা হওয়া সুদ ও জরিমানা ১০০ শতাংশ মুকুব করে দেওয়া হবে”। এদিন ৪ জন করদাতা করছাড়ের আবেদনপত্র প্রশাসকবোর্ডের চেয়ারম্যান ফিরহাদ হাকিমের কাছে জমা দেন। এরপরেই পুর প্রশাসক তাদের হাতে সংশোধিত বিল তুলে দেন। এদের মধ্যে ২ জন আজই বকেয়া পুরকরের অর্থ জমা করে দেন।

[আরও পড়ুন- ভারতীয় জনতা যুব মোর্চার উদ্যোগে রক্তদান শিবির মুকুন্দপুরে]

পুরসভা আগেই জানিয়েছিল, মার্চ থেকে মে মাসের মধ্যে বকেয়া পুরকর মিটিয়ে দিলে সুদের উপর ৬০ শতাংশ ও পেনাল্টির উপর ৯৯ শতাংশ ছাড় মিলবে। এই স্কিমের সুবিধা নেওয়ার জন্য চলতি বছরের ৩১ শে ডিসেম্বরের মধ্যে আবেদন করতে হবে। আবেদন পত্র পুরসভার প্রতিটি কর গ্রহণ কেন্দ্র, পুরসভার কেন্দ্রীয় ভবন ও পুরসভার ওয়েবসাইট থেকে সংগ্রহ করা যাবে। আবেদনপত্র জমা দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই করদাতাকে সংশোধিত বিল দিয়ে দেওয়া হবে। অনলাইন ও অফলাইন দুইভাবেই কর জমা দেওয়া যাবে। ফিরহাদ হাকিম দাবি করে জানান, কলকাতা পুরসভার ইতিহাসে বকেয়া পুরকরের উপর জমা হওয়া সুদ ও পেনাল্টির উপর ১০০ শতাংশ ছাড়ের সংস্থান এই প্রথম। এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “পুরসভার রাজস্বের কিছুটা ক্ষতি হলেও, এর ফলে বিপুল পরিমাণ বকেয়া করের বোঝা বহনকারী করদাতাদের সুবিধা হবে”।

একইসঙ্গে কলকাতা পুরসভা আগামী দিনে করের অর্থ বৃদ্ধি করবে না বলে আশ্বাস দেন তিনি। তবে শহরে বসবাসকারী প্রতিটি পরিবারকে করের আওতায় নিয়ে আসা হবে বলেও এদিন জানান তিনি।

অন্যদিকে, পুরসভার পাঠানো বিলের টাকার পরিমাণ নিয়ে যে সব করদাতাদের অভিযোগ আছে তাদের সঙ্গে কর মূল্যায়ন বিভাগের আধিকারিকদের বৈঠকে সমস্যার সমাধানে মধ্যস্থতার জন্য ফিরহাদ হাকিম পুরকমিশনার বিনোদ কুমারকে ইতিমধ্যেই নির্দেশ দিয়েছেন।

Related Articles

Back to top button
Close