fbpx
কলকাতাহেডলাইন

পাটশিল্পকে এগিয়ে নিয়ে যেতে ভারত সরকারের সদর্থক ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলছে বাম

কলকাতা: সিঙ্গল ইউজ প্লাস্টিক বন্ধ করার চেষ্টা চলছে। এতে পাটশিল্পের ব্যাপক লাভ হবে। বৃহস্পতিবার বেঙ্গল চেম্বার অফ কমার্স এর সাথে এক বৈঠকে এমনটাই জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তবে ভারতে পাট শিল্প কে এগিয়ে নিয়ে যেতে ভারত সরকারের সদর্থক ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে রাজ্যের বাম নেতৃত্ব। বরং এতদিন ভারতের পাট শিল্পকে এগিয়ে নিয়ে যেতে কেন্দ্রীয় সরকার কোন রকম দায়িত্বপূর্ণ ভূমিকা গ্রহণ করেনি বলে অভিযোগ করেছেন তারা।

এদিন প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, “সিঙ্গল ইউজ প্লাস্টিক বন্ধ করার চেষ্টা চলছে।এতে তো পশ্চিমবঙ্গের আরও বেশি লাভ। কারণ, এতে এখানকার পাটশিল্পের ব্যাপক লাভ হবে। ভাবুন পশ্চিমবঙ্গে তৈরি পাটের ব্যাগ সারা দেশের মানুষের হাতে থাকলে রাজ্যের কী বিরাট লাভ হবে।” এই প্রসঙ্গে এদিন বাম পরিষদীয় দলনেতা সুজন চক্রবর্তী জানান, “আজকে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন তিনি পরিকল্পনা করে চটকল পাটের চাষ এবং জৈব চাষ করা হবে। পরিকল্পনার বিষয়টা আসছে কোথা থেকে। তিনি তো পরিকল্পনার কমিশন টাই তুলে দিয়েছেন। মুখে বলাটা সহজ কিন্তু বাস্তবায়ন করাটা কঠিন।”

কটাক্ষ করে তার আরও বক্তব্য, “প্রত্যেকের একাউন্টে ১৫ লক্ষ টাকা ঢোকানো থেকে শুরু করে কালো টাকা উদ্ধার অথবা নোট বন্দির সময় বিভিন্ন আশ্বাস থেকে দু’কোটি বেকারদের চাকরি প্রধানমন্ত্রীর পুরোটাই ধাপ্পা। তাই প্রধানমন্ত্রী কি বলেছেন সে বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া যায় না।যারা পরিকল্পনা কমিশন টাই তুলে দিয়েছেন তারা পরিকল্পনা করে চটকলের ব্যবসার কথা ভাববেন সেটা ভোট মুখী কোনও প্রচারে রঙ্গ কিনা সে প্রশ্নটা স্বাভাবিকভাবেই উঠছে।”

আরও পড়ুন: আমফানে ভেঙেছে বহু গাছ, তবে বাঁচানো যাবে বিভিন্ন প্রক্রিয়ায়, জানাল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান

এই বাম বিধায়কের কথায়, ” চটের ব্যাগ এর দাবি বাংলার বরাবরের দাবি।বামফ্রন্ট সরকারের আমলে দিল্লিতে বারবার প্রতিনিধিদল গেছে এই চটের ব্যাগ এর ব্যবহার বাড়ানোর দাবি নিয়ে। কিন্তু কেন্দ্রীয় সরকার তখন চুপ করে দেখেছে।বর্তমান কেন্দ্রীয় সরকারের আমলেও বিগত ছয় বছর ধরে চটের ব্যাগ প্রসঙ্গ উঠেছে তখন কেন্দ্রীয় সরকার কিছু বলেনি কিন্তু এখন ভোটের মুখে কি হঠাৎ চটের ব্যাগ এর কথা মনে পড়ে গেল।” তাঁর মতে, “পশ্চিমবঙ্গ চটের ব্যাগ শিল্পে তখনই হবে যখন কেন্দ্রীয় সরকার কড়া ভাবে প্লাস্টিক বর্জন করার নির্দেশ দেবে কিন্তু কেন্দ্রীয় সরকার সেই নির্দেশ দেয়নি।”

Related Articles

Back to top button
Close