fbpx
কলকাতাহেডলাইন

করোনা মোকাবিলায় পাইকারি বাজারতে বিশেষ দৃষ্টি পুরসভা

অভিষেক গঙ্গোপাধ্যায়, কলকাতা: ঘিঞ্জি ও ঘনবসতি এলাকা থেকেই কলকাতায় কোন ভাইরাসের সংক্রমণ ছড়াচ্ছে। এমনটাই মত কলকাতা পুরসভার বিশেষজ্ঞদের। ইতিমধ্যেই শহরে করোনা মোকাবিলায় পাইকারি বাজার গুলির ওপর বিশেষ দৃষ্টি দিয়েছে পুরসভা। এবার পোস্তা পাইকারি বাজারের পর মেছুয়া ফলপট্টি উপরেও বিশেষ দৃষ্টি আরোপ করল কে এম সি। মঙ্গলবার বড়বাজার মেছুয়া ফল পট্টিতে কিভাবে সোশ্যাল ডিসটেন্স বজায় রেখে লোডিং আনলোডিং করা যায় এবং বেচাকেনা করা যায় তার রূপরেখা ঠিক করতে পুলিশ প্রশাসন এর উচ্চপদস্থ কর্তা সহ কে এম সির নবগঠিত প্রশাসক মন্ডলীর বৈঠক হয়। সেখানে আগামী দিনে এই দুই রাজ্যের সংস্থা একসঙ্গে করোনা মোকাবিলায় কাজ করার রূপরেখা তৈরি হয়।

করোনা  মোকাবিলায় ইতিমধ্যেই শহর থেকে পোস্তা বাজার কে সরানোর প্রস্তাব দিয়েছে কেএমসি। কিন্তু একসঙ্গে অনেক টা জমি না হওয়ার ফলে এই মুহুর্তে থমকে সে কাজ। তবে জমি পেলেই দ্রুততার সঙ্গে সেই কাজ সম্পন্ন হবে। অন্যদিকে মেছুয়া ফল পট্টি তে এত লোক প্রত্যেকদিন একসঙ্গে কাজ করেন এর ফলে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়তে পারে এমনটাই মনে করছে পুরসভা। তাই বাইরে থেকে আসা গাড়ি গুলিতে থেকে কিভাবে মাল আনলোডিং হবে তা নিয়ে বিশেষ চিন্তাভাবনা শুরু করে দিল কলকাতা পুরসভা।

এদিন, ছয়জনের প্রতিনিধিদলের সঙ্গে বৈঠক করেন ফিরহাদ। প্রসঙ্গত, ফলপট্টিতে বড় বড় ট্রাক থেকে লোডিং-আনলোডিং, খুচরো ফলের ঝাড়াই-বাছাই করার জন্য প্রচুর শ্রমিক কাজ করছেন। রাস্তা বন্ধ করে চলছে কাজ। মাস্ক পড়া কিংবা সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা কোনটাই হচ্ছে না। বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে, রাস্তা আটকে কোনভাবেই আর খুচরো ফলের ঝাড়াই-বাছাই করা চলবে না। রাজ্যের অভ্যন্তরে বা বাইরের রাজ্য থেকে যে ফল বিভিন্ন ট্রাকে করে শহরে ঢোকে, সেটা বিভিন্ন মাপের প্যাকিং অবস্থাতেই ফলপট্টিতে ঢোকাতে হবে। এক-একটি লরি লোডিং-আনলোডিংয়ের জন্য দুই থেকে তিন ঘন্টার বেশি সময় নেওয়া চলবে না। প্রতিদিন সন্ধ্যা ৭টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত চলবে সেই কাজ। মাস্ক ব্যবহার এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ব্যবসা চালাতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বৈঠকে ফিরহাদ বলেছেন, আপাতত আপনাদের অনুরোধে এই সময়টুকু দেওয়া হচ্ছে। করোনা মোকাবিলায় সব শর্ত মেনে আপনাদের চলতে হবে। আপনারা যদি সব ভালো করে করতে পারেন, তাহলে প্রশাসন পরবর্তী ভাবনা চিন্তা করবে।

আরও পড়ুন: অশান্ত তেলনিপাড়া, হস্তক্ষেপ চেয়ে অমিত শাহকে চিঠি, রাজ্যপালকে নালিশ লকেটের

ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বৈঠকের পর এদিন কলকাতা পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা সঙ্গেও সেই সংক্রান্ত বৈঠক করেছেন ফিরহাদ। ইতিমধ্যেই, ফলপট্টির বিভিন্ন সংগঠনের নেতাদের কোনা এক্সপ্রেসওয়ে পাশে অবস্থিত সাঁতরাগাছি ট্রাক টার্মিনাল পরিদর্শন করানো হয়েছে। সেখানেই ফলের বাজার স্থানান্তরের করার পরিকল্পনা ছিল প্রশাসনের। সংগঠনের এক নেতার বক্তব্য, সাঁতরাগাছি ট্রাক টার্মিনালে পরিকাঠামোগত অনেক সমস্যা রয়েছে। যদিও প্রশাসন সব করে দেবে বলেছিল। আমরা পুনর্বিবেচনার আর্জি জানিয়ে ছিলাম। সব মেনেই কাজ চালানো হবে।

Related Articles

Back to top button
Close