fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

দশমীর রাতে বিজেপি কর্মী খুনের ঘটনায় চাঞ্চল্য সিতাই-এ

নিজস্ব সংবাদদাতা, দিনহাটা: দশমীর রাতে বিজেপি কর্মী খুনের ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়াল সিতাই ব্লকের  ব্রহ্মত্তরচাতরা গ্রামে।  সোমবার  রাতে রুহিদাস বিশ্বাস নামে ওই ব্যক্তি  তাঁর ঘরের বিছানায় বসে ছিলেন। অভিযোগ, সেই সময় হঠাৎ কিছু দুষ্কৃতী তাঁর ঘরে দরজা থেকে তাঁকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়। এলাকার ৫৩৮ সিঙ্গিমারি গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। মৃত ওই ব্যাক্তি বিজেপি কর্মী বলে পরিচিত বলে দলের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে। পেশায় কৃষি কাজের সঙ্গে যুক্ত ওই ব্যক্তি। তাকে তৃণমূলের দুষ্কৃতীরা খুন করে বলে বিজেপির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে। যদিও তৃণমূলের দাবি এই ঘটনার সঙ্গে কোনও রাজনীতি নেই।  বিজেপি অভ্যন্তরীণ কোন্দলের জের। বিজেপি এই ঘটনা নিয়ে রাজনীতি করছে। পুলিশ সূত্রে অবশ্য জানা গিয়েছে, ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। মৃত ওই ব্যক্তির পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, সোমবার দশমীর রাতে বাড়ির পাশেই পুজো মণ্ডপে অনুষ্ঠান চলছিল। সেখানে  বাড়ির সকলে যায়।

কিছুক্ষণ বাদে  বাড়ির লোকেরা বাড়িতে এসে  দেখে রুহিদাস বিশ্বাসের মৃতদেহ বিছানার উপরে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছে।  তার ঘরে বন্দুকের একটি গুলি  পাওয়া যায়। দীর্ঘদিন ধরেই ওই পরিবার  বিজেপি দলের সাথে যুক্ত থাকায় রাজ্যের শাসক দলের কর্মী সমর্থকরাই তাঁকে খুন করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। রুহিদাস বিশ্বাসের নিকট আত্মীয় রঞ্জিত বিশ্বাস বলেন, “বাড়ির পাশেই দুর্গা পুজোর মণ্ডপে অনুষ্ঠান হচ্ছিল। সেইসময় তাঁর কাকাকে কে বা কারা গুলি করে খুন করে। তারা বিজেপি করায় তার কাকাকে  খুন করা হয় বলে তার  অভিযোগ। গোটা ঘটনা পুলিশকে জানানো হয়েছে। এদিকে ঘটনার খবর পেয়ে সিতাই থানার পুলিশ রাতেই সেখানে গিয়ে রক্তাক্ত অবস্থায় ওই ব্যক্তিকে উদ্ধার করে দিনহাটা মহকুমা হাসপাতাল  নিয়ে এলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করে।

[আরও পড়ুন- করোনা কেড়ে নিল এক কৃতী চিকিৎসকের প্রাণ, মেদিনীপুর শহরে শোকের ছায়া]

পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠায়। তৃণমূল কংগ্রেস নেতা প্রসন্ন দেব শর্মা বলেন, এই ঘটনার সঙ্গে দলের কোনও সম্পর্ক নেই। বিজেপির অভ্যন্তরীণ কোন্দলের জের। ওই এলাকাতে বিজেপির একাধিক গোষ্ঠী রয়েছে। আর সেটা সেই গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের বহিঃপ্রকাশ  হলেও হতে পারে।

বিজেপির কোচবিহার জেলা সম্পাদক সুদেব কর্মকার বলেন,” তৃণমূলের নেতাকর্মীদের পায়ের তলা থেকে মাটি সরে যাচ্ছে। তাই আগামী ভোটের কথা মাথায় রেখে ক্ষমতায় থাকার জন্য খুনের রাজনীতি শুরু করেছে। বিভিন্ন জায়গায় সন্ত্রাসের পাশাপাশি বিজেপি কর্মীদের বেছে বেছে খুন করা হচ্ছে। মানুষ তৃণমূলকে উপযুক্ত জবাব দেবে ব্যালটের মধ্য দিয়ে।

তৃণমূল নেতা বিধায়ক জগদীশচন্দ্র বর্মা বসুনিয়া বলেন,” এই ঘটনার সঙ্গে দলের  কোনও সম্পর্ক নেই। পারিবারিক গন্ডগোলের জের। তৃণমূলকে কালিমালিপ্ত করতে বিজেপি এই ঘটনা নিয়ে রাজনীতি করার চেষ্টা করছে। সিতাই থানার ওসি  সূর্যদীপ্ত ভট্টাচার্য বলেন,” মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে একটি গুলি উদ্ধার হয়েছে। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। ব্যক্তিগত কোনও ঘটনা থেকে হতে পারে বলেও পুলিশের প্রাথমিক অনুমান।  রিপোর্ট এলেই সব পরিষ্কার হয়ে যাবে।

Related Articles

Back to top button
Close