fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

হিন্দুদের কালি মন্দির নির্মানের জন্য অর্থ সাহায্য করলেন মুসলিম মহিলা

প্রদীপ চট্টোপাধ্যায়, বর্ধমান : অর্থের অভাবে বন্ধ হয়েযায় কালি মন্দির নির্মাণের কাজ।তা জানার পরেই মন্দির নির্মানের জন্য অর্থ সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিলেন ফজিলা বেগম নামে এক মুসলিম মহিলা।পূর্ব বর্ধমানের গলসি ১ ব্লকের রাইপুর গ্রামনিবাসী ফজিলা বেগমের এমন মহানুভবতায় আপ্লুত কালি মন্দির নির্মানে অংশগ্রহনকারী মানুষজন ।

গলসির লোয়া রামগোপালপুর পঞ্চায়েতের করকোনা গ্রামটি হিন্দু অধ্যুষিত । এই গ্রামের বাসিন্দারা গ্রামে একটি রক্ষাকালি মন্দির তৈরির কাজ শুরু করছেন । গ্রামের মানুষজনের অর্থ সাহায্যেই তৈরি হচ্ছিল মন্দিরটি। কিন্তু করোনা অতিমারির কারনে
গ্রামের অনেকেই আর্থিক সমস্যায় মধ্যে পড়েযান ।তারফলে থমকে যায় মন্দির নির্মানের কাজ । মন্দির নির্মানের অর্থ কিভাবে যোগাড় হবে তার কিছুই বুঝে উঠতে পারছিলেন না গ্রামবাসীরা। বিষয়টি জানতে পেরে নিজেই গ্রামবাসীদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন গলসি ১ পঞ্চায়েত সমিতির কর্মাধ্যক্ষ  ফজিলা বেগম ।তিনি করকোনা গ্রামের মন্দির নির্মান কমিটির সদস্যদের সোমবার তাঁর বাড়িতে একবার আসার কথা বলেন ।  গ্রামবাসীরা তার বাড়িতে পৌছালে ফজিলা বেগম তাঁদের হাতে ৩০ হাজার টাকার চেক তুলেদেন । কালি মন্দির নির্মানে আগামী দিনেও সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেবার আশ্বাস  ফজিলা বেগম দিয়েছেন মন্দির কমিটিকে ।

গ্রামবাসী ভুলু বাগদি ও দীপ বাগদি প্রমুখরা বলেন,‘ আমারা বহু কষ্ট করে ওই মন্দির নির্মাণ করছি। গ্রামের মানুষজনের অর্থ সাহায্যেই মন্দিরটি তৈরী করা হচ্ছে। করোনা অতিমারির কারণে করকোনা গ্রামের মানুষজনও আর্থিক সমস্যায় পড়ে গিয়েছেন ।সেই কারণে টাকার অভাবে মন্দির নির্মান কাজ থমকে যায়। রাইপুর গ্রাম নিবাসী ফজিলা বেগম বিষয়টি জানার পর তাঁদের ডেকে ৩০ হাজার টাকা সাহায্য করেছেন । আগামীদিনেও মন্দির নির্মানের জন্য ফাজিলা বেগম সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেবার আশ্বাস তাঁদের দিয়েছেন।’ফজিলা বেগম বলেন, ’এই বংলা সম্প্রতির বাংলা । হিন্দু মুসলিম মিলেমিশেই তাদের সমাজ। জাত ধর্ম বিচার করে ভেদাভেদ কোনভাবেই কাম্য নয় । তাই তিনি কালি মন্দির নির্মানের জন্য অর্থ সাহায্য করেছেন । ফজিলা বেগম বলেন ,কালি মন্দির নির্মানের জন্য আগামী দিনেও সামর্থ মত অর্থ সাহায্য করবেন ।

Related Articles

Back to top button
Close